অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে প্রতিদিনই লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। নমূণা পরীক্ষার আলোকে গড়ে সনাক্তের হার শতকরা ৫০ ভাগ বলে জানিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তা।

সাধারন মানুষ কঠোর লকডাউনের বিধিনিষেধ না মানায় করোনা আক্রান্তের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে সচেতন মহল মনে করছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) দুপুর ১২ টা পর্যন্ত উপজেলায় ৩৬ জন করোন আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। এরমধ্যে একজনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ২ জন হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসা নিচ্ছেন এবং ৩৩ জন বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা বলেন, যে সকল রোগী হোম আইসোলেশনে আছেন তাদেরকে নিয়মিত মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মনিটরিং করা হচ্ছে এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি সর্বত্তম সেবা দিতে। আজ শুক্রবার দুপুরে তিনি এই প্রতিনিধিকে জানান, বাউফলে সংক্রমণের হার শতকরা ৪০ থেকে ৫০ ভাগ হবে। সাধারন মানুষ নমূণা পরীক্ষা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন না। যারা আসছেন তাদের নমূণা পরীক্ষায় গড়ে শতকরা ৪০ থেকে ৫০ ভাগ করোনা পজেটিভ আসছে। যেটা ভয়াবহ রুপ নিতে পারে। তিনি আরো জানান, বরিশাল বিভাগে সংক্রমণের হার প্রায় ৭০ ভাগ। সংক্রমন প্রতিরোধে সচেতনতার বিকল্প নাই। মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে এবং অপ্রয়োজনে ঘরের বাহির হওয়া যাবেনা। প্রশাসনের আরো কঠোর হয়ে অপ্রয়োজনীয় দোকানপাট বন্ধ করে দেয়া উচিৎ এবং সাধারন মানুষসহ যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা উচিৎ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রায় বাড়িতেই জ্বর, সর্দি-কাশি এবং শ্বাস কষ্টের রোগী রয়েছে। তারা নমূণা পরীক্ষা কিংবা চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে না এসে গোপণে বাড়িতে বসে গ্রাম্য ডাক্তারের মাধ্যমে চিকিৎসা নিচ্ছেন। যার পরিণাম ভয়াবহ হতে পারে বলে বাউফলের সচেতন মহল মতামত ব্যক্ত করেছেন। জানা গেছে, বাউফলের প্রায় ৪৫টি হাটবাজারে বিধিনিেিষধ উপক্ষো করে প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে দোকানপাট খোলা রেখে বেচাকেনা করা হচ্ছে। পুলিশ, সেনাবাহিনী এবং প্রশাসনের লোকজন কোন বাজারে গেলে তৎক্ষণাত দোকানপাট বন্ধ রাখা হয় আবার চলে গেলে খোলা হয়। এযেন চোর পুলিশের খেলা। এদিকে বৃহষ্পতিবার পর্যন্ত কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ণের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেন ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) আনিচুর রহমান বালির নেতৃত্বে দুইটি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১৬৭টি মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং ৫২ হাজার ৯৫৪ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

Previous articleনোয়াখালী থেকে ৪ দিন ধরে আলেম নিখোঁজ
Next articleশার্শায় গাঁজা ও মোটরসাইকেলসহ আটক ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।