ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: আষাঢ়ে বৃৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে পদ্মায় পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙন দেখা দিয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জে। হুমকির মুখে রয়েছে শতশত বিঘা আবাদি জমিসহ বসতবাড়ি।

নদীগর্ভে বিলীন হতে চলেছে শিবগঞ্জের ১৬৭ নং নামো জগন্নাথপুর বাবুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভিটামাটি। ভাঙনের তীব্রতায় স্কুলটি স্থানান্তরিত করে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দূরে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোজতবা আলী জানান, স্কুলের ভিটামাটির অধিকাংশই নদীতে। যেটুক অবশিষ্ট আছে সেটুকুও খুব শিগগিরই নদীগর্ভে চলে যাবে। সে আশঙ্কায় বিদ্যালয়টির সরঞ্জামাদি জগন্নাথপুর ফুলদিয়াড়ী নামক স্থানে রাখা হয়েছে। পাকা রাস্তা না থাকায় বর্ষায় কর্দমাক্ত কাঁচা রাস্তা দিয়ে মাথায় করে টেবিল বেঞ্চ বয়ে নিয়ে আসতে হয়েছে। শিক্ষা অফিস থেকে আর্থিক কোন অনুদান না দেওয়ায় নিজ খরচেই তিনি এসব কাজ করাচ্ছেন।
তিনি বলেন, জুন মাস থেকেই পদ্মা নদীতে ভাঙন ধরেছে। এবার ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। পদ্মা পাড়ের বাসিন্দারা খুবই আতঙ্কিত আছেন।
ওই স্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক আ. কাফি বলেন, আমাদের চোখে দেখা স্কুলের ভিটামাটি নদীতে নেমে যাচ্ছে। সরকার যদি ভাঙন রোধে কোন ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে অনেক আবাদযোগ্য জমি, বসতবাড়িসহ নানা স্থাপনা নদীগর্ভে চলে যাবে।
শিবগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার আসাদুজ্জামান বলেন, নামো জগন্নাথপুর বাবুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভাঙনের বিষয়টি জানিয়েছে, আমি উনাকে বিদ্যায়লটি স্হানান্তরের আদেশ দিয়েছি।
জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান জানান, এ বছর পদ্মা নদীর পানির বিপৎসীমা ধরা হয়েছে ২২ দশমিক ৫০ সেন্টিমিটার। বর্তমানে পানি আছে ১৯ দশমিক ১১ সেন্টিমিটার।

Previous articleশার্শায় গাঁজা ও মোটরসাইকেলসহ আটক ২
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।