বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তহিদুর রহমান মিজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করার পর শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্ত করছেন। অভিযোগ উঠেছে, সমাজের অসহায়, দরিদ্র, খেটে-খাওয়া মানুষের জন্য দেয়া প্রধানমন্ত্রী উপহার বিতরণ না করে আত্মসাৎ করেছেন চেয়ারম্যান তহিদুর রহমান মিজ্ঞা।

অভিযোগের অনুলিপি ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নে পবিত্র ইদুল ফিতর উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে জনপ্রতি ৫০০টাকা করে ৫০০ জন এবং ৪৫০টাকা করে ২৩০৫ জনের তালিকা প্রস্তুত করা হয়। এই তালিকা প্রস্তুতের সময় অনেকের নাম দেয়ার কথা বলে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সংগ্রহ করা হয়েছিল। কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি নেয়ার পরে তালিকায় নাম থাকা স্বত্বেও কোন সহায়তা দেয়া হয়নি। এমনকি অনেকের নামই দুই জায়গায় থাকলেও টাকা পেয়েছেন একটির। অন্য তালিকার টাকা চেয়ারম্যান আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ করছেন ভুক্তভোগীরা।

অভিযোগ রয়েছে, টিপসই ছাড়াই টাকা পেয়েছেন অনেকেই। এছাড়াও টাকা দেয়ার পর বিভিন্ন অযুহাতে কেটে নেয়ার ঘটনাও ঘটেছে। এসব বিষয় নিয়ে ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অভিযোগ করার পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি তহিদুর রহমান মিজ্ঞা গ্রাম পুলিশ সদস্যদের দিয়ে বাড়িতে টাকা পাঠিয়েছেন বলেও জানা গেছে।

মোবারকপুর-বাগানবাড়ি গ্রামের ভ্যানচালক মো. আলম বলেন, ইদের সময় সরকারি অর্থ বিতরনের আগে আমার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি নেয় চেয়ারম্যান। কিন্তু কয়েকবার অনুদানের জন্য পরিষদে গেলেও বারবার ঘুরিয়ে দিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান। বলেছে, আসলে পাবে। আমার সাথের সবাই পেয়েছে, কিন্তু আমি কোন সহায়তা পায়নি। অথচ তালিকায় আমার নাম রয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক দিনমজুর জানান, চেয়ারম্যানের কাছে অনেকবার ঘুরছি, কিন্তু কোন সাহায্য করেনি। বাধ্য হয়ে যখন ডিসি অফিসে অভিযোগ করেছি, তখন গ্রাম পুলিশ দিয়ে বাসায় টাকা পাঠিয়েছিলো। আমি বলেছি, এখন টাকা নিব না, ঘুরে যান।

মোবারকপুর গ্রামের বিজলী বেগম বলেন, আমার নামে মেম্বার (ইউপি সদস্য) ও চেয়ারম্যান দুজনই জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে দুটি কার্ড করে। ৫০০ ও ৪৫০ টাকার দুটি তালিকায় নাম থাকলেও একটি দিয়ে আরেকটি দেয়নি। শুনেছি, আমার মতো এমন অনেকের দুই জায়গায় নাম ছিল। অথচ তারা একটির টাকা পেয়েছেন।

আতাউর রহমান (ছদ্মনাম) বলেন, ৫০০ টাকার তালিকায় নাম ছিল। নির্ধারিত দিনে উপস্থিত হয়ে টাকা পেয়েছিলাম। কিন্তু টাকা দেয়ার পর সাথে সাথেই আবার ১৫০ টাকা ফেরত নিয়েছে।গ্রাম পুলিশ সদস্যরা টাকা ফেরত নেয়ার সময় বলেছেন, এটা অফিসের খরচ, দিতেই হবে। না হলে কোন টাকা পাওয়া যাবে না।

স্থানীয় সচেতন যুবক ও জাতীয় শ্রমিকলীগ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সবুজ আলী বলেন, গত ইদুল ফিতরের সময়ে মোবারকপুর ইউনিয়নের প্রায় ৪০০-৫০০ জন ব্যক্তি তালিকায় নাম থাকার পরেও টাকা পায়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। আমরা যারা সচেতন ব্যক্তি রয়েছি, বিষয়টি নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন। কারন করোনাকালীন সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাজের অসহায়, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য যে সহায়তা প্রদান করছেন তা সঠিকভাবে পাচ্ছেন না। গ্রামবাসীর পক্ষে আমি নিজেই জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করেছি। তদন্ত করে অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আহ্বান জানান তিনি।

এবিষয়ে কথা বলার জন্য মোবারকপুর ইউনিয়ন পরিষদে ও চেয়ারম্যান তহিদুর রহমান মিজ্ঞার বাড়িতে দুই দিন উপস্থিত হলেও তার দেখা পাওয়া যায়নি৷ এমনকি তার সাথে অনেকবার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব-আল-রাব্বী বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর ভুক্তভোগী তিন জনের বক্তব্য নেয়া হয়েছে। অভিযোগকারী, অভিযুক্ত ও ভুক্তভোগীদের ডেকে শুনানী এবং তদন্ত করা হবে। তদন্তে যা পাওয়া যাবে, সেই প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হবে। এরপর জেলা প্রশাসক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

Previous articleলক্ষ্মীপুরে এমপি’র ঐচ্ছিক বরাদ্দের ১৪ লাখ টাকার চেক বিতরণ
Next articleসাঁথিয়ায় জরুরী অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম উদ্বোধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।