ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের ড্রাইভারকে পিটিয়ে চাবি ছিনতাই করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। সোমবার (২৬ জুলাই) দুপুর ১২টা ৫০মিনিটের দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। এসময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান তসিকুল ইসলাম তসির সরকারি গাড়ির ড্রাইভারকে মারধর করেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোসা. নাসরিন আখতারের লোকজন। এমনকি গাড়ির চাবিও ছিনিয়ে নিয়ে যায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের অনুসারীরা।

জানা যায়, উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ না করতে দেয়া, বিভিন্ন কাজে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে অবগত না করা এবং গাড়ি ব্যবহার করতে না দেয়ার অভিযোগে চাবি নেয়া ও মারধরের ঘটনা ঘটেছে। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে বিরোধ চলছিলো উপজেলা চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি তসিকুল ইসলাম তসি এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসরিন আখতারের মধ্যে।

উপজেলা চেয়ারম্যান তসিকুল ইসলাম তসি মুঠোফোনে বলেন, মারধরের সময় আমি অফিসেই ছিলাম। হঠাৎ শুনতে পেলাম আমার ড্রাইভারকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের জামাই জাহিদ ও তার লোকজন বেধড়ক পিটিয়েছে। এমনকি মারধরের পর গাড়ির চাবিও ছিনিয়ে নিয়ে যায় তারা। পরে ড্রাইভারকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহোদয়কে জানানো হয়েছে। পূর্বের কোন জের ছিল না উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, হঠাৎ করেই এমন আক্রমণ হয়েছে, আগের কোন ঝামেলা ছিল না।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার সুলতানুল আরেফিন জানান, উপজেলা থেকে একজনকে মাথায় ও শরীরে আঘাত নিয়ে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে আহত ব্যক্তিকে মাথায় ব্যান্ডেজসহ প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।

ড্রাইভার আমির হোসেন বলেন, ফোন দিয়ে আমাকে ডাক দিলে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের রুমে যায়। সেখানে গেলে তিনি আমার কাছ থেকে গাড়ির চাবি চেয়ে নিয়ে নিচে থাকা তার জামাইকে দিয়ে দেন। তার জামাই চাবি নিয়ে মোটরসাইকেলে চলে যায়। তার (মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান) কাছে অনেক অনুনয় বিনয় করলেও চাবি না দিয়ে জামাইকে পুনরায় ডাক দেয়। এরপর উপজেলা পরিষদ চত্বরেই মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের জামাইসহ ২টি মোটরসাইকেলে ৬ জন এসে বেধড়ক মারধর করে। পা ধরে চাবি চেয়ে অনুরোধ করলেও তা না শুনে মারতে থাকে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন আখতার বলেন, ইউএনও মহোদয়ের সাথে সরকারি একটি অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য গাড়ি ব্যবহার করতে চাইলে ড্রাইভার রাজি হয়নি৷ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে বললেও তিনি চাবি দিতে নারাজ। তাই চাবি কেড়ে নিয়েছি।

শুধুমাত্র গাড়ি ব্যবহার নয়, বিভিন্ন কারনে অতিষ্ঠ হয়ে এই কাজটি করেছি উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, উপজেলা পরিষদের সবকিছু নিজের সম্পত্তি মনে করেন উপজেলা চেয়ারম্যান। উপজেলার যেকোন কাজে আমার সাথে কথা না বলে, কোন পরামর্শ না করে নিজের ইচ্ছেমতো কাজ করেন তিনি। দীর্ঘদিনের নানা অত্যাচার জুলুমের কারনেই চাবি নিয়েছি। তবে মারধরের ঘটনা অস্বীকার করেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইফফাত জাহান জানান, ঘটনার সময় উপজেলার বাইরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের কার্যক্রম পরিদর্শনে ছিলাম৷ পরে বিষয়টি জানতে পেরেছি। খোঁজ-খবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleসাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা মামলায় গ্রেফতার ১
Next articleস্বজনপ্রীতির মাধ্যমে হেলেনার আ.লীগে পদ-পদবী লাভ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।