বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নওগাঁর মহাদেবপুরে এক আদিবাসী বিধবা নারীর ঘরে ঢুকে থাকা এক যুবককে স্থানীয়রা আটক করেছে। পরে তাকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

সোমবার রাত ৮ টার দিকে উপজেলার সফাপুর ইউনিয়নের দাক্ষিণ লক্ষ্মীপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মৃত মহেশ কর্মকারের বিধবা স্ত্রী ঝর্ণা রাণীর (৪৫) ঘরে ঢুকে ছিলেন পার্শ্ববর্তী বাঁশবাড়িয়া গ্রামের মুসলেম আলীর ছেলে আজাদুল ইসলাম জাদ্দেশ (৪০)। তাকে ধর্ষণ না হত্যার উদ্দেশ্যে তার ঘরে ঢুকেছেন তা আমরা জানিনা। রাত সাড়ে ১১টার সময় অভিযুক্তকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী ঝর্ণা রাণী বলেন, আমি সন্ধ্যার পর আমার জায়ের (দেবরের স্ত্রী) বাড়িতে ছিলাম। এ সুযোগে তিনি আমার ঘরের ভিতরে ঢুকেছিলেন। পূর্বেও তিনি আমাকে একবার জোর করে ধর্ষণচেষ্টা করেছেন। এ বিষয়ে আমি আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা করি। এ মামলার পরে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তির অনুরোধে তার সাথে আপসও করেছি। এরপর তিনি আজ আবারো আমার ঘরে ঢুকেছেন। হয়তোবা আগের ঘটনার রাগে প্রতিশোধ নিতে আমাকে ধর্ষণ বা হত্যা করার জন্য তিনি এসেছেন। আমি এ অপরাধের শাস্তি চাই।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য জিয়াউল হক জিয়া বলেন, আমার জানা মতে আজাদুল ইসলাম পূর্বেও এ নারীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন। এরপর আবারো সবার অজান্তে ওই নারীর ঘরে ঢুকে ওঁত পেতে ছিলেন, ধর্ষণ করার জন্য সুযোগের অপেক্ষায় বসে ছিলেন। এখন আইনগতভাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মহাদেবপুর থানার পরিদর্শক কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি নিজে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আসামিকে আটক করে নিয়ে আসি। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও তিনি জানান।

Previous articleউখিয়া ও টেকনাফে পাহাড় ধস ও পানিতে ডুবে ছয় রোহিঙ্গাসহ ৭ জনের মৃত্যু
Next articleরেজিস্ট্রেশন লাগবে না, জাতীয় পরিচয়পত্র দেখালেই ইউনিয়ন পরিষদ কেন্দ্রে দেওয়া হবে টিকা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।