বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বরিশালের মুলাদীতে প্যাদারহাট উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের দুই কোটি টাকার সম্পত্তি দখল করে দোকান নির্মানের অভিযোগ পাওয়া গেছে এক ইউপি সদস্য’র বিরুদ্ধে।

দীর্ঘদিন ধরে কাজিরচর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য কাঞ্চন প্যাদা ও তার লোকজন প্যাদারহাট উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রায় ৬০শতাংশ জমি দখল করে আছেন। সংশ্লিষ্টরা জমি উদ্ধারের পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানালেও দীর্ঘদিনে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। জানা গেছে, ১৯৪৭ সালে উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের প্যাদারহাটে স্বাস্থ্য কেন্দ্র নির্মাণ শুরু হয়। ওই সময় স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জন্য ডিক্রীরচর গ্রামের হযরত আলী প্যাদা, কদম আলী প্যাদা, গোলাম আলী প্যাদা ১১ শতাংশ করে ৩৩শতাংশ জমি দান করেন। একই সাথে ধলু মৃধা ও সোবাহান হাওলাদার সাড়ে ১৬ শতাংশ করে ৩৩ শতাংশ জমি দেন। বন্দরের ৬৬শতাংশ জমির ওপর টিনের স্বাস্থ্য কেন্দ্র নির্মান করা হয়। ১৯৯৫- ১৯৯৬ সালে ওই জমির ৪/৫ শতাংশের ওপর স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির দ্বিতল ভবন নির্মাণ করা হয়। পরবর্তীতে বন্দরের পরিসর বড় হতে থাকলে দোকানের সংখ্যা বাড়তে থাকে। সেই সাথে প্যাদারহাট বন্দরের জমির মূল্যও বেড়ে যায়। বর্তমানে বন্দরের প্রতি শতাংশ জমির মূল্য ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা। সেই হিসেবে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রায় ২ কোটি টাকার জমি দখল হয়ে গেছে। স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমির দুর্বল তদারকীর জন্য স্থানীয় একটি মহল ধীরে ধীরে দখল করতে থাকে। বর্তমানে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমি দখল করে ভবনের চারদিকে দোকান নির্মাণ করেছেন দখলদাররা। স্থানীয় ইউপি সদস্য কাঞ্চন প্যাদা, আলীম প্যাদা ও তার লোকজন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমি দখল করে নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। স্বাস্থ্য কেন্দ্রের চারদিকে এক শতাংশ জমিও খালি নেই। এমনকি প্যাদারহাট সংলগ্ন খালে নির্মিত স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ঘাটটিও দখল হয়ে গেছে। স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমি দখল করে দোকান নির্মাণ করা হলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। চারদিকে ফাঁকা জায়গা না থাকায় চিকিৎসক, নার্স, কর্মচারীদের আবাসনের ব্যবস্থা করা যাচ্ছে না। ডিক্রীরচর গ্রামের বাসিন্দা জয়নাল আবেদীন জানান, ১৯৯০ সালেও প্যাদারহাট স্বাস্থ্য কেন্দ্রের চারদিকে অনেক জায়গা ফাঁকা ছিলো। জমির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় একটি মহল সরকারি জমি দখল করে দোকান নির্মাণ করেছেন। অনেকে পাকা ভবন নির্মাণ করে ভাড়া দিচ্ছেন। এব্যাপারে কাজিরচর ইউপি সদস্য অভিযুক্ত কাঞ্চন প্যাদা বলেন, আমার পূর্বপূরুষরা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে জমি দান করেননি। আমি আমার পৈত্রিক ওয়ারিশসূত্রে প্রাপ্ত জমিতে দোকান নির্মাণ করেছি। যারা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে জমি দিয়েছিলো তাদের জমি অন্য জায়গায় আছে। অভিযুক্ত আব্দুল আলীম প্যাদা জানান, আমি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র কিংবা কোনো সরকারি জমিতে দোকান করিনি। আমার পিতার জমিতে দোকান নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছি। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. সাইয়েদুর রহমান জানান, স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমি উদ্ধারের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের কাছে আবেদন করা হয়েছিলো। কিন্তু তাদের সহযোগিতা না পাওয়ায় জমি উদ্ধারের কাজ করা সম্ভব হয়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর মোহাম্মাদ হোসাইনী বলেন, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমি উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleশাহজাদপুরে পানিতে ডুবে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু
Next articleটেকনাফে ৭ হাজার ৮০০ পিস ইয়াবাসহ মহিলা গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।