জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা থেকে বাঁচার জন্য কেশবপুরের বিভিন্ন এলাকায় নদী ও খালের পানি নিষ্কাশনের পথে অবৈধভাবে দেয়া নেট ও পাটা উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেছে প্রশাসন।

কেশবপুরে স্থায়ী কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিরা নিজেদের স্বার্থে খালে নেট ও পাটা দিয়ে পানি প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। প্রতিনিয়ত চরমভাবে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে উপজেলার পাঁজিয়া, সুফলাকাটি, গৌরিঘোনা ও মঙ্গলকোট ইউনিয়নের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা। এ দিকে পানির প্রবাহ না থাকায় তলদেশ ভরাট হওয়ার সাথে সাথে নব্যতা হারিয়ে গতিহীন হয়ে পড়ছে খালগুলো। তাছাড়া পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা বন্ধ হওয়ায় বর্ষার মৌসুমে সামান্য বৃষ্টিতেই উপজেলার নিম্নাঞ্চলগুলোতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টির কারণে পানিবন্ধি হয়ে পড়ছে স্ব স্ব এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সাধারণ মানুষ। ইজারার নামে খালের মুখে মাটির বাঁধ দিয়ে পানির প্রবাহ বন্ধ করে দিয়েছে প্রভাবশালীরা। বছরের পর বছর ইজারাদার চক্রের স্বেচ্ছাচারিতা, জবর দখলকারীদের খাল দখল প্রবনতা ও খালে নেট-পাটা বসিয়ে সম্পূর্ণ ব্যক্তি স্বার্থে অবৈধভাবে মাছ চাষ করা হলেও তাদেরকে উচ্ছেদে উপজেলা প্রশাসন কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় বর্তমানে নাব্যতা হারিয়ে অনেকটা শ্বাসরুদ্ধ হয়ে পড়েছে কেশবপুরের খালগুলো। সম্প্রতি যশোর জেলা প্রশাসক কর্তৃক সকল সরকারি খালের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা তথা খালগুলোর পানি প্রবাহের ধারা অব্যাহত রাখতে বিভিন্ন স্থানে অবৈধ নেট-পাটা উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করার নির্দেশনা দেয়া হয়। নির্দেশনা অনুযায়ী কেশবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা শুক্রবার (৩০ জুলাই) দিনব্যাপী উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন। সূত্রে জানায়, উপজেলার পাঁজিয়া ইউনিয়নের বেলকাটি গ্রামের চাতরার বিলে কামরুল বিশ্বাস নামে একজন প্রভাবশালী ঘের ব্যবসায়ী সুইচ গেটের মুখে পাটা ও লোহার খাঁচা দিয়ে পানি আটকে রেখে দীর্ঘদিন ধরে মাছ চাষ করে আসছিলো। পানিবদ্ধতা ও বৃষ্টি কারনে বেলকাঠি এলাকার একাধিক গ্রাম তলিয়ে যায়। এলাকাবাসীদের পক্ষ থেকে বার বার বলা হলেও ঘের মালিক পানি প্রবাহের ব্যবস্থা করেনি। নিরুপায় হয়ে এলাকাবাসীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানায়। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশক্রমে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ পাটা ও লোহার খাঁচা অপসারন করে জব্দ করেন। অভিযান পরিচালনা করে খাল অবমুক্ত করায় শতশত মানুষ প্রশাসনকে সাধুবাদ জানান। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, কেশবপুরের অবৈধ ভাবে জবর দখল করা সকল খাল অবমুক্ত করা হবে। বর্তমানে কিছু কিছু স্থানে শুরু হয়েছে। উপজেলাব্যাপী এ অভিযান অব্যহত থাকবে। কোন ব্যক্তি খালের সুইচগেট বা কালভার্টের মুখ বন্ধ করে রাখলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleশেখ হাসিনার নেতৃত্বে শোক শক্তিতে পরিণত হয়েছে: নূরুজ্জামন বিশ্বাস এমপি
Next articleটেকনাফে রোহিঙ্গা মাঝি গুলিবিদ্ধের ঘটনায় ৭ রোহিঙ্গা আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।