মুখলেসুর রাহমান সুইট: চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় বরুমচড়া ইউনিয়নের নলদিয়া গ্রামের খালে মাছ শিকারের জন্য জাল ফেলেন কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মোহাম্মদ নুরুল্লাহ লোকমানী নামের এক শিক্ষার্থীর। ওই জাল তুলে রুই, বিদেশি পুঠি, তেলাপিয়া ও শোল মাছ উঠে আসে। এর সাথে উঠে আসে বিরল প্রজাতির “সাকার ফিস”।

রবিবার (১লা আগস্ট) সকালের দিকে মাছটি পাওয়া যায়। মাছটি প্রায় ১৫ ইঞ্চি লাম্বা ও ওজন ৭শ গ্রাম।

হঠাৎ বিরল প্রজাতির মাছটির কথা শুনে স্থানীয় লোকজন ভির জমাতে থাকে। তখন বিভিন্ন লোকজনে বিভিন্ন রকমের নাম বলতে থাকেন তারা।দেখা যায়,মাছটির সারা শরীর গোলাকার ও ডোরাকাটা দাগ রয়েছে। তাছাড়া পুরো মাছের গায়ে ছোট ছোট কাটা আবৃত। পিঠের উপরে ও দুই পাশে রয়েছে আরো ৩টি বড় কাটা। মুখে রয়েছে ধারাল দাঁত।

মোহাম্মদ নুরুল্লাহ লোকমানী আজকের বাংলাদেশকে জানান, এই মাছটি এর আগে কখনো দেখিনি। শখের বশে আজ সকালে মাছ ধরতে গিয়ে এই বিরল প্রজাতির মাছটি জালে পড়ে। আমি মাছটি না চিনলেও পরবর্তীতে লোকেরা এটিকে “সাকার ফিস” বলে চিহ্নিত করে। এর আগে এই মাছ ও নাম কখনো জানতাম না।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান বলেন, এই মাছটির নাম সাকার ফিস। মাছটি পানি ছাড়াও প্রায় ২৪ ঘন্টা বেচে থাকতে পারে। তবে এই মাছটি আমাদের দেশের জন্য না। মৎস্য বিভাগ থেকে সব স্থানেই এ মাছটিকে দেখলে অপসারন করতে বলা হয়েছে।

Previous articleরংপুরে করোনায় আরও ১৪ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৫০২
Next articleপেকুয়ায় আগুনে ৮টি গাড়িসহ দুই দোকান পুড়ে ছাই
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।