ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ-মনাকষা সড়কের পাগলা নদীর ওপর বেলী ব্রীজটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ন হলেও তার ওপর দিয়েই চলছে শত শত ছোট বড় যানবাহন। ইতি মধ্যে ভেঙে গেছে কয়েকটি পাটাতন। ফলে যে কোন মুহূর্ত্তেই ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

মঙ্গলবার সকালে গিয়ে দেখা গেছে, ব্রীজটির স্টীলের পাটাতনগুলো নির্দিষ্ট স্থান হতে সরে গেছে। নাট বল্টু ঢিল হয়ে নড়বড় করছে পুরো ব্রীজ। কয়েকটি পাটাতন বসে গেছে। তার মধ্যে একটি পাটাতন প্রায় প্রায় ৮/৯ইঞ্চি নীচে বসে গেছে। তার পরেও দূর্ভোগ নিয়ে চলতে হচ্ছে মনাকষা, শ্যামপুর, দূলর্ভপুর, শিবগঞ্জ, বিনোদপুর কয়েক লাখ মানুষ কে।
এ ছাড়াও উপজেলার একমাত্র সরকারী আদিনাসহ ৭/৮টি কলেজ ও ২০ টি উচ্চমাধ্যমিক ও মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ এ পথে যাতায়াত করে। সড়কে চলাচলকারী অটো চালক জামাল উদ্দিন জানান,পাগলা নদীর উপর একটি মাত্র লোহার ব্রিজ এটি। এখান দিয়ে পাঁচ ইউনিয়নের প্রায় কয়েক লাখ মানুষের বসবাস।
তাঁদের প্রয়োজনীয় কাজের জন্য উপজেলা সদর শিবগঞ্জ জেলা শহর চাঁপাইনবাবগঞ্জ যেতে হয়। অন্য কোন বিকল্প রাস্তা বা ব্রীজ না থাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করতে হয় তাঁদের। মনাকষা এলাকার আম চাষী এনামুল হক জানান,ব্রীজের উপর দিয়ে প্রতিদিন শত শত আম বোঝায় গাড়ী পার হয়। ব্রীজের উপর উঠলেই প্রতিনিতই ঝুঁকতে থাকে ব্রীজটি। তার পরেও বাধ্য হয়ে যাতায়াত করতে হয় তাঁদের। শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক দুর্লভপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু আহমেদ নজমুল কবির মুক্তা জানান,ব্রীজটি যে কোন মুহুর্তে নদীতে ভেঙে পড়তে পারে।
ইতি মধ্যে ভেঙে গেছে কয়েকটি ব্রীজের পাটাতন। একাধীকবার সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানানোর পরেও কাজের কাজ কিছুই হয়না। দূর্লভপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজিব রাজু জানান,ব্রীজ দিয়ে যেন ভারী যানবাহন চলাচল না করে সে বিষয়ে ইতি মধ্যে নির্দশনা দেয়া হয়েছে। তবে ব্রীজটি মেরামত বা পূণ:নির্মানের বিষয়ে কিছুই জানাইনি সড়ক ও জনপদ বিভাগ। তাঁর দাবি-যখন পাটাতনগুলো ভেঙে পড়ে তখন শুধু নেমে মাত্র মেরামত করা হয়। দীর্ঘ মেয়াদী কোন পরিকল্পনা নেয়া হয়না। তিনি অভিলম্বে পাগলা নদীর উপর একটি নতুন ব্রীজ নির্মাণের দাবি জানান।
উপজেলা প্রকৌশলী হারুন অর রশিদ জানান,আমরা ব্রীজটি ইতিমধ্যে পদির্শন করেছি। সংশ্লিষ্ট ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। ভারী যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ব্রীজের দুইদিকে সাইন বোর্ড টাঙানো হয়েছে। কিন্তু তারা কোন কথা কর্ণপাত করছে না। বরাদ্দ পেলে দ্রুত কাজ শুরু করা হবে। তবে ব্রীজটি নির্মাণ করার সময় এটি সড়ক ও জনপদের অর্ন্তুভুক্ত থাকায় সঠিক তথ্য দিতে পারেনি তিনি। জানতে চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সানজিদা আফরীন জানান,ইতিমধ্যে মাটি পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলেই কাজ শুরু হবে।
প্রসঙ্গত,জনগণের দূর্ভোগের কথা চিন্তা করে শিবগঞ্জের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যন ও সাবেক সংসদ সদস্য মইন উদ্দিন আহম্মেদ মন্টু ডাক্তারের উদ্যোগে ১৯৮৮ সালে ব্রীজটি নির্মাণ করা হয়। ব্রীজটির দৈর্ঘ ১৫০ মিটার ও প্রস্থ ১২ফিট।

Previous articleনোয়াখালীতে মাদ্রাসায় ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা, ৬ শিক্ষক কারাগারে
Next articleমুলাদীতে ইউএনও’র মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে টাকা দাবি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।