জয়নাল আবেদীন: রংপুরের মিঠাপুকুরে পুলিশ পরিচয়ে আসামি ধরতে গিয়ে জনতার হাতে আটক হয়েছেন দুই প্রতারক। পরে তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। রোববার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠায় পুলিশ।

এরা হলেন- উপজেলার লতিবপুর ইউনিয়নের বাতাসন দুর্গাপুর মৌসুমীপাড়া গ্রামের মৃত নুরুজ্জামানের ছেলে কামরুজ্জামান ও জায়গীর বাসস্ট্যান্ড মসজিদ সংলগ্ন সাইফুল ইসলামের ছেলে দুলাল মিয়া। জানা গেছে, আরিফুল ইসলাম নামে এক মোটরসাইকেল মেকানিক কাফ্রিখাল ইউনিয়নের মহদীপুর গ্রামে বিয়ে করেন। সেখানে বউয়ের সঙ্গে মনোমালিন্য হলে ২৭ জুলাই শ্বশুরবাড়ির লোকজন আরিফুলকে বেধড়ক মারধর করেন। এরপর সুযোগ বুঝে আরিফুলের পরিবারের লোকজনও তার শ্বশুরবাড়ির একজনকে মারধর করেন।এ ঘটনায় শ্বশুরবাড়ির পক্ষ থেকে আরিফুলের বিরুদ্ধে মিঠাপুকুর থানায় মামলা করা হয়। এরপর কাফ্রিখাল ইউনিয়নের কোনাপাড়া গ্রামে দুলাভাইয়ের বাড়িতে আত্মগোপনে যান আরিফুল ইসলাম। এ সুযোগে রোববার ভোরে কামরুজ্জামান ও দুলাল নামের দুজন পুলিশ পরিচয় দিয়ে ওই বাড়িতে আরিফুলকে গ্রেফতারের চেষ্টা করেন। এ সময় এলাকার লোকজন বাধা দেয়।পুলিশের পরিচয়পত্র দেখতে চাইলে তারা দেখাতে পারেননি। পরে এলাকাবাসী ৯৯৯-এ ফোন দেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনায় আরিফুলের বোন বেবি নাজনিন বাদী হয়ে ওই দুজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন। রংপুর জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘আরিফুলের নামে মামলা ছিল। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে গ্রেফতাররা পুলিশ সেজে তার বাড়িতে যায়। সেখানে তারা পুলিশের পরিচয় দেয় এবং চাঁদা দাবি করে। পরে খবর পেয়ে তাদেরকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই দুইজন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

Previous articleরংপুরে পুলিশের উপস্থিতিতে হাতকড়াসহ মাদক মামলার আসামীর পলায়ন
Next articleতাহিরপুরে ১৫ই আগস্ট শোক দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।