আহাম্মদ কবির: সুনামগঞ্জ দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট টাঙ্গুয়ার হাওর সহ তাহিরপুর উপজেলার ছো-বড় বেশ কয়েকটি হাওরে মাছের সংকট দেখা দিয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছে হাওর পাড়ের মাছ ধরার উপর নির্ভরশীল মৎস্যজীবী পরিবার গুলো। তাদের মধ্যে অনেকেই বিভিন্ন এনজিও ও স্থানীয় মহাজনদের কাছ থেকে ঋন ও দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দাদন নিয়ে মাছ ধরার জাল ও নৌকা ক্রয় করে অনেক আশা-আকাঙ্ক্ষা নিয়ে হাওরে যায় মাছ ধরতে, মাছ ধরে বিক্রি করে পরিবারের অর্থিক চাহিদা ও ঋন পরিশোধ করবে।কিন্তু হাওর পর্যাপ্ত মাছ না থাকায়,শূন্য হস্তে বাড়িতে ফিরছেন এমতাবস্থায় হাওর পাড়ের মৎস্যজীবী পরিবার গুলো চরমবিপাকে রয়েছেন।তাদের মধ্যে অনেকেই জীবিকার তাগিদে পরিবার পরিজন নিয়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন শহরে পাড়ি জমাচ্ছেন।

জানাযায় উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর, গোলাবাড়ি, ছিলানী তাহিরপুর,শ্রীয়ার গাও, মন্দিয়াতা,তরং শিবরামপুর,শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের রামসিংহপুর,হুকুমপুর,লামাগাও,সন্তোষপুর,শিবপুর,ভবানীপুর,সহ বিভিন্ন গ্রাম থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে কেউবা আবার ছেলে সন্তান নিয়ে জীবিকার তাগিদে ঢাকা সহ বিভিন্ন শহরে দলে দলে পাড়ি জমাচ্ছে।

ঢাকায় অবস্থানরত জয়পুর গ্রামের মৎস্যজীবী তছদ্দুল মিয়া মিয়া জানান অনেক আশা লইয়া হাওরে মাছ ধরার লাইগ্যা ঋণ কইরা জাল নাও কিনছিলাম ছোটমোটো একটা মুদির দোকানের ব্যবসা করতাম,হাওরে মাছ ধরতে না পারায় দোকানে বিকিকিনি নাই নিজেও মাছ ধরতে না পারায় অন্য কোন কাজকাম না থাকায়, দোকানের মালামাল সব খাইয়া শেষ করে ঋণের বোঝা মাতায় নিয়ে পরিবার নিয়া ঢাকায় আইলাম।এইখানেও মানুষ আর মানুষ তেমন কামকাজ নাই বৌবাচ্ছা নিয়া বিপদে আছি।

একই আব্দুল আলী মিয়া বলেন কিতা কইমু সব শেষ ভিটে বাড়ি সব বেইছ্যা ঋণের বোঝা নিয়া ঢাকায় আইলাম এইখানেও কামাই নাই।বড় বিপদে আছি।

পাশ্ববর্তী শ্রীয়ারগাও গ্রামের মৎস্য ব্যাবসায়ী বাবুল মিয়া বলেন, মাছের কারবার(ব্যাবসা)করতাম বড় আশা কইরা ঋণ কইরা জাউল্যা(জেলে)দের টাকা দিছিলাম মাছের আশায়।কিন্তু জাউল্যারা( জেলেরা)মাছ না পাওয়া ব্যবসা বন্ধ, পুঁজি সব খাইয়া ঘর-বাড়ি বেইচ্ছা পরিবার নিয়া ঢাকায় আইলাম দেখি কিতা হয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সচেতন মহল বলেন হাওরে অবাধে মৎস্য আহরণ প্রজনন মৌসুমে মা ও পোনামাছ নিধন ও মানবসৃষ্ট বিভিন্ন কারণ এছাড়াও প্রাকৃতিক বিভিন্ন বিপর্যয়ের কারণে ধীরেধীরে হাওরে মাছের সংকট দেখা দিয়েছে। এখনো প্রয়োজনীয় উদ্যোগ না নেওয়া হলে উপজেলার সবকটি হাওর হুমকির মুখে পড়বে। এবং হাওর পাড়ে বসবাসরত ধরার উপর নির্ভরশীল জনগোষ্ঠী,হাওরপাড়ে বসবাস অনুপযোগী হয়ে যাবে।

Previous articleসিংগাইরে নকল প্রসাধনী উদ্ধার, এসআর গ্রেফতার
Next articleডোমারে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।