বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়া শহরে আবাসিক হোটেলের কক্ষে মুশফিকুর রহমান (৬০) নামে এক কৃষকের ঝুলন্ত লাশ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার রাতে সাতমাথা টেম্পল রোডের আমজাদিয়া আবাসিক হোটেলের চতুর্থ তলার চার নম্বর কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে সদর ফাঁড়ি পুলিশ।

ঋণ পরিশোধে কথা বলে তিনি বাড়ি থেকে বের হন। পরে হোটেল কক্ষে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে।

পরিবারের সদস্যদের উদ্ধৃতি দিয়ে সদর ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর তাজমিলুর রহমান জানান, ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে তিনি আত্মহননের পথ বেছে নেন।

হোটেলের ম্যানেজার বুলবুল আহম্মেদ জানান, মুশফিকুর রহমান জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার হিন্দুকশবা গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের ছেলে। ওই ব্যক্তি চিকিৎসার প্রয়োজনে বৃহস্পতিবার বিকালে বগুড়া শহরে এসে ওই হোটেলে ওঠেন।

রাতে খেয়ে এসে রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেন। শুক্রবার দুপুরে দরজায় ধাক্কা দিয়েও তার সাড়া মেলেনি। দরজা ভেতর থেকে বন্ধ থাকায় সদর পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেওয়া হয়। রাত ৯টার দিকে পুলিশ দরজা ভেঙে ফেললে ফ্যানের সঙ্গে রশি দিয়ে গলায় ফাঁস দেওয়া তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পাওয়া যায়।

সদর ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর তাজমিলুর রহমান পরিবারের সদস্য ও এলাকার ইউপি সদস্যের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, ওই কৃষক এলাকার কয়েকজনের কাছে দুই লক্ষাধিক টাকা ঋণ করেন। ঋণদাতারা পরিশোধের জন্য তাকে চাপ দেওয়ায় তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন।

শুক্রবার ঋণ পরিশোধের তারিখ ছিল। তিনি জয়পুরহাট শহরে চিকিৎসার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে না গিয়ে বগুড়ায় এসে শহরের সাতমাথায় আমজাদিয়া হোটেলে ওঠেন।

পুলিশ কর্মকর্তার ধারণা, ঋণের চাপেই তিনি আত্মহত্যা করেছেন। কক্ষের দরজা ভেঙে লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল

কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে সদর থানায় অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা হয়েছে।

Previous articleপরীমনিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ
Next articleগ্রেনেড হামলা নিয়ে সাঈদ খোকনের বক্তব্য রহস্যজনক: রিজভী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।