ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরিস্থিতি বিবেচনায় দেড় বছর পর সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলেছে। শিক্ষার্থীদের পদচারণায় প্রাণ ফিরে পেয়েছে স্কুল-কলেজ। অভিভাবক, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। ফুল দিয়ে বরণ করা হয়েছে শিক্ষার্থীদের। সবান দিয়ে হাত ধোয়া ও তাপমাত্রা পরীক্ষার পর হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে ক্লাসে প্রবেশ করেছে তারা।

ক্লাসের শুরুতেই স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে আলোচনা। বসার সুযোগ হয়নি বন্ধুদের পাশে। জিগজ্যাগ পদ্ধতিতে একটি বেঞ্চে এক শিক্ষার্থী বসে ক্লাস হয়েছে। তবুও প্রিয় প্রতিষ্ঠানে ফিরতে পেরে আনন্দের কমতি নেয় শিক্ষার্থীদের মাঝে। কারন দীর্ঘদিনের একঘেয়েমি কাটিয়ে তারা এখন প্রিয় শিক্ষক-বন্ধুদের সাথে। সারাদেশের ন্যায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় মোট ৪৫৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলেছে আজ (রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর)। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দেড় লাখ শিক্ষার্থী তাদের শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে ফিরেছে।

রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শহরের নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ, নবাবগঞ্জ হরিমোহন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গ্রীণ ভিউ উচ্চ বিদ্যালয়, নবাবগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঘুরে দেখা গেছে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের পদচারণায় মুখরিত শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান। প্রথম ক্লাসে অংশ নিয়ে উচ্ছ্বসিত তারা।

নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান ঢাকা পোস্টকে বলেন, গত ১৭ মাস বাসায় বসে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে গেছিলাম। এছাড়া আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা অনলাইনে ক্লাসের সাথে পরিচিত না। তাই অনলাইনে ক্লাসের প্রতিও আমার কোন আগ্রহ ছিল না। বাসায় বসে, সুয়ে, মোবাইল টিভি দেখেই সময় পার করেছি। পড়াশোনার অনেক ঘাটতি তৈরি হয়েছে। আশা করি, স্কুল খোলার পর তা সেই ঘাটতি পূরণ করতে পারবো। এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য যথেষ্ট সময় পাব এখন।

৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী আনিসা আনজুম জানান, করোনায় পৃথিবী থমকে গেছিলো। সেই সাথে বন্ধ হয়েছিল পড়াশোনাও। স্কুলে ফিরতে পেরে খুব আনন্দ লাগছে। সকল বন্ধুদের পেয়ে যে আনন্দ লাগছে, তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। মনে হচ্ছে, দীর্ঘদিন পর প্রাণ ফিরে পেলাম। দেশের সকল বিনোদন কেন্দ্র, গণপরিবহন, অফিস-আদালত, মার্কেট খুলে দেয়া হয়েছে। তাই দীর্ঘ সময়ের জন্য সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি আনিসার।
একাদশ শ্রেণীর ছাত্র আপন রেজা নিশান ঢাকা পোস্টকে বলেন, চলতি বছরে বালুগ্রাম আর্দশ কলেজে ভর্তি হয়েছি। কিন্তু ভর্তি হওয়ার ৫ মাস পেরিয়ে গেলেও কলেজে ক্লাসের সুযোগ পায়নি। আজ প্রথম ক্লাস করতে পেলাম। মাধ্যমিক পেরিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকে কলেজের প্রথম ক্লাস স্মরণীয় হয়ে থাকবে। প্রথম দিনেই অনেক নতুন বন্ধু হয়েছে।
স্কুল খুলে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের সাথে অভিভাবকরাও আনন্দিত হলেও করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ভয় কাজ করছে তাদের মনে। এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, একদিকে যেমন আনন্দ লাগছে, তেমনি অন্যদিকে মনের মধ্যে ভয় কাজ করছে। কারন বন্ধুদের সাথে মিশতে গিয়ে যদি করোনায় আক্রান্ত হয়। তাই এবিষয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষকদের বাড়তি গুরুত্ব দিতে হবে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহা. আবদুর রশীদ ঢাকা পোস্টকে জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পাঁচ উপজেলায় প্রাথমিক, নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক মিলে মোট ৪৫৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলেছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে পাট জাগ দিতে গিয়ে প্রাণ গেল আলমের
Next articleপাঁচবিবিতে মসজিদের টাকা রাখাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ১৫
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।