জয়নাল আবেদীন: রংপুর অঞ্চলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১শ৯১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রোববার থেকে পাঠদান শুরু হয়েছে । রংপুর বিভাগীয় প্রাথমিক শিক্ষা অফিস বলছে এ বছর বৃহত্তর রংপুরের পাঁচ জেলায় বন্যা অতিবৃষ্টি ও ঝড়ে ১শ৯১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এর মধ্যে গাইবান্ধায় ১শ০২টি, কুড়িগ্রামে ৭৩টি, নীলফামারীতে ১০টি, লালমনিরহাটে ৫টি এবং রংপুরে রয়েছে ১টি । এ ছাড়া নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে আরও ৪টি বিদ্যালয়। রংপুর অঞ্চলের উপপরিচালক মুজাহিদুল ইসলাম আরো জানিয়েছেন যে কটি বিদ্যালয় নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে, সেগুলোতে পাশের বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রে অথবা ইউনিয়ন পরিষদ হল রুমে আপাতত চালু কওে শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, এসব শিক্ষার্থীদের পাঠদান নিশ্চিতে দ্রæত উদ্যোগ নিতে হবে। যদিও কর্তৃপক্ষ দাবি করছে, পাঠদান নিয়ে কোনো অনিশ্চয়তা নেই। রোববারের আগেই অভিভাবক স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে অধিকাংশ বিদ্যালয়গুলোর শ্রেণিকক্ষ পাঠদান উপযোগী করে তোলা হয়েছে। এসব বিদ্যালয় মাঠে জমে থাকা পানিনিষ্কাশনের বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং স্থানীয় অভিভাবকদের নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক হয়েছে। বিভাগীয় শিক্ষা কর্মকর্তা, সংশ্লিষ্ট জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা এসব বিদ্যালয় পরিদর্শনও করেছেন। নদীগর্ভে বিলীন হওয়া বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ইউনিয়ন পরিষদ ভবন সহ বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠদান করা হচ্ছে। এদিকে দীর্ঘ ১৮ মাস পর বাড়ির বন্দী জীবন থেকে প্রিয় শিক্ষাঙ্গনে পা দিয়েছে শিক্ষার্থীরা । বন্যায় চলাঞ্চলের কিছু ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হয়েছে । কোথাও ক্লাশ হয়েছে । আবার কোথায় হয়নি ।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলাঞ্চলে বেশ কিছু বিদ্যালয়ের মাঠ ও মাঠের বাইরে এখনো পানি জমে আছে। কোনো কোনো বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে পানি নেমে গেলেও রয়েছে কাদা । কোথাও কোথাও বন্যা, অতিবৃষ্টি ও ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিদ্যালয়ের আসবাব থেকে অবকাঠামো। বিদ্যালয়ের মেঝেতে গর্ত, চরাঞ্চলের শিটশেড বিদ্যালয়গুলোর বেড়া নষ্ট। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বসার চেয়ার ও টেবিল নষ্ট হয়েছে। সেগুলো মেরামতের কাজ চলছে কয়েকদিরে মধ্যে এখানে নিয়মিত ক্লাশ নেয়া হবে । রংপুর বিভাগীয় প্রাথমিক শিক্ষা অফিস বলছে লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার পাঁচটি বিদ্যালয় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এগুলো হলো পূর্ব ডাউয়াবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ ডাউয়াবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সির্ন্দুনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম হলদিবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব হলদিবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।নীলফামারী জেলায় এবারের বন্যায় জলঢাকা, ডিমলা, ডোমার, কিশোরগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকার অন্তত ১৪টি বিদ্যালয় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১০টির অবস্থা কিছুটা নাজুক। তবে সরকারের নানা নির্দেশনা অনুযায়ী প্রস্ততি থাকায় রোববার থেকে পাঠদান করা হচ্ছে।ডিমলার পূর্ব ছাতুনামা আমিনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি চর এলাকায় অবস্থিত। সেখানে বেড়িবাঁধের ওপর অস্থায়ী শ্রেণি পাঠদান কার্যক্রমের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ডিমলার টেপাখড়িবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় , কিসামত ছাতনাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জলঢাকার পথকলি শিশু নিকেতন, উত্তর বগুলাগাড়ী, পশ্চিম বগুলাগাড়ী, উত্তর চেরেঙ্গা মাঝাপাড়া, আইডিয়াল কলেজপাড়া, শৌলমারী, মৌজা শৌলমারী আলসিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চালু করা হয়েছে ।বন্যাকবলিত গাইবান্ধায় ক্ষতির তালিকায় থাকা বিদ্যালয়ের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এ জেলায় ১শ০২টি বিদ্যালয়ের অবকাঠামোসহ বিভিন্ন ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে যেসব বিদ্যালয়ে পানি উঠেছিল তা নেমে গেছে। এখন সরকারি নির্দেশনা মেনে ধুয়েমুছে সবকিছু পরিষ্কার করে

পাঠদানের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় উপপরিচালক মুজাহিদুল ইসলাম আরো জানান রংপুর অঞ্চলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়গুলোর অধিকাংশই মেরামত করা হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ মিললে ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়গুলোতে প্রয়োজনীয় সংস্কার করা হবে।

Previous articleরংপুরে যুব সমাজের উদ্যোগে ঘাঘট নদীতে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
Next articleঅফিস সময়ে ধূমপানে ব্যস্ত ঘুষের টাকায় চলা পিআইও’র একান্ত সহকারি লাভলু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।