তাবারক হোসেন আজাদ: জলাবদ্ধতা নিয়েই ঝুঁকিপূর্ণ পাঠদান চালিয়ে আসছে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার মেঘনা উপকূলীয় চর ইন্দুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি। মাঠটি মাটি ভরাট করে উঁচু না করায় প্রতি বছরের বর্ষা মৌসুমের ৪-৫ মাস বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে প্লাবিত থাকে।

ভবনের ৩ দিকে পানি থাকায় কোমলমতি শিশুরা রয়েছে ঝুঁকিতে। পানি নিস্কাশনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকায় বিদ্যালয়ের তিন দিকেই থাকে এমন জলাবদ্ধ অবস্থা। উপজেলার উত্তর চরবংশী ইউনিয়নে চর ইন্দুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ২০০২সনে প্রতিষ্ঠা করা হয়। শিক্ষা কার্যক্রম চালু হয় ২০০৩ সন থেকে। তখন এটি রেজিষ্ট্রার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে কার্যক্রম চালায়। জাতীয়করণ করা হয় ২০১৩ সনে। বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে যাওয়া রাস্তাটি ইতোমধ্যে পিচঢালাই হয়েছে। এখানে অধ্যয়নরত আছে ১৫১ জন শিক্ষার্থী। কর্মরত রয়েছেন ৫ জন শিক্ষক। প্রতিষ্ঠার পর থেকে দেড় যুগ পেরিয়ে গেলেও সৌভাগ্য হয়নি নতুন একটি ভবনের। পুরাতন ভবনটিতেই কোনোমতে চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে পাঠদান কাযক্রম। ৪০ শতাংশ জমির এক কোণে দাঁড়িয়ে আছে ছোট্ট একতলা ভবনটি। একটি কক্ষে অফিস ও অপর ৩টি শ্রেণীকক্ষ নিয়েই চলে স্কুলের কার্যক্রম। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, রাস্তা থেকে বিদ্যালয়ের মাঠটি অনেক নিচু। ভবনের তিন দিকেই রয়েছে জলাবদ্ধ চাষাবাদের জমি। নেই কোনো আধুনিক মানের একটি ওয়াশ ব্লক। ভবনের পাশেই রয়েছে ছোট টয়লেটটি। যেটি একটু পানি বাড়লেই ডুবে গিয়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। বিদ্যালয় খোলা থাকায় শিশুরা কক্ষের ভিতরেই বন্দি থাকতে বাধ্য হচ্ছে। ছোট্ট বারান্দায় পা পিছলে গেলেই পানিতে পড়ে দূর্ঘটনার আশংকা তাদেরকে তাড়া করে ফিরছে। মাঠটি শ্যাওলা ও ঘাসে এক হাটু পানিতে ভরে রয়েছে। শিক্ষার্থীদের শরীরর্চচা, জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া ও জাতীয় পতাকাকে সম্মান প্রদর্শন বা খেলাধুলা কোনোটিই করার যোগাড় নেই। করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত বছর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধীদপ্তরের অধীনে স্কুলটিতে হাতধোয়ার বেসিনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। পানি সরবরাহের জন্য মাঠে স্থাপন করা হয়েছিল একটি পানির পাম্প। সেটিও এখন পানির নিচে গিয়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। স্কুলের এমন করুণ অবস্থা নিয়ে কথা হয় তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী সাজেদা, নাদিয়া, তাহিয়া, শিরিন ও পারভিনদের সাথে। তারা জানায় যে মাঠে তাদের আনন্দের খেলা চলতো সেই মাঠ এখন তাদের জন্য ভয়ের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পা পিছলে পানিতে পড়ার আতঙ্কে তারা বারান্দায় দাঁড়াতে স্বাচ্ছন্দ্যও বোধ করে না। তাদের আক্ষেপ যদি মাঠটি শুকনা থাকতো তবে তারা ছুটোছুটি খেলতে পারতো। অনেকদিন হয় সহপাঠীদের সাথে একসাথে খেলার সুযোগ হয় না। প্রধান শিক্ষক জান্নাতি বেগম বলেন, প্রায় ৩ বছর ধরেই আমরা এ দূর্ভোগের শিকার। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর স্কুল খুললেও শিক্ষার্থীদের পানিতে পড়ার ভয় নিয়েই আমাদেরকে পাঠদান কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে। আধুনিক ওয়াশব্লকের অভাবে আমরা শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা কষ্ট পাচ্ছি। স্কুলের দু’দিকের দু’টি পানি নিস্কাষনের কালভার্ট বন্ধ করে বাড়িঘর করায় এমন পরিস্থিতির শিকার হচ্ছি। ভবনের অভাবে কষ্টকর একটি পরিস্থিতির মধ্যে আমাদেরকে চলতে হচ্ছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কে এম মোস্তাক আহমেদ বলেন, বিদ্যালয়টির করুণ অবস্থা সম্পর্কে আমরা অবগত আছি। মাঠ ভরাটে আামদের দপ্তরের কোনো বরাদ্ধ থাকে না। তাই সাংসদ, উপজেলা পরিষদ বা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বরাদ্ধের চেষ্টা করা হবে। উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির বৈঠকে বিষয়টি উত্থাপন করে ভবন ও মাঠ ভরাটে সহায়তা চাওয়া হবে।

Previous articleবিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে টাঙ্গুয়ার হাওরের টেকসই উন্নয়নে ইকো ট্যুরিজম পদ্ধতি বাস্তবায়নের দাবি
Next articleতালা মেরে মার্কেট বন্ধ করার অভিযোগ কাদের মির্জার বিরুদ্ধে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।