বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভোলার মনপুরায় কৌশলে ঘরে ঢুকে পাঁচ যুবক মিলে এক গৃহবধূর হাত-পা ও মুখ বেঁধে বাড়ির পাশের বাগানে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছেন। পরে স্থানীয়রা হাত, পা ও মুখ বাঁধা রক্তাক্ত অবস্থায় ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে মনপুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করান।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সেখানে ওই গৃহবধূর অবস্থার অবনতি হলে সোমবার উন্নত চিকিৎসার জন্য ভোলা জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। রোববার রাত ১২টার দিকে উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের চরগোয়ালিয়া গ্রামে ওই গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ প্রধান অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছেন। অন্য চার আসামি পলাতক রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশ জানায়, সোমবার দিবাগত ভোর রাত ৩টার দিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামিকে আটক করেছে। এই ঘটনার সাথে জড়িত অপর চার আসামিকেও ধরতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।
এর আগে সোমবার রাতে ওই গৃহবধূ ধর্ষণে জড়িত পাঁচ যুবককে আসামি করে মনপুরা থানায় মামলা দায়ের করেন।

আটক প্রধান আসামি মো: শিপন ওরফে আলাউদ্দিন (৩৫) উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের চরগোয়ালিয়া গ্রামের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাইয়ুম হাওলাদারের ছেলে।

মামলার অপর আসামিরা হলেন- মো: বেল্লাল মেকার, মো: হেলাল, মো: ইউসুফ দালাল ও মো: সেলিম মেকার। তাদের সবার বাড়ি উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের চরগোয়ালিয়া গ্রামে।

মামলার এজাহার ও ঘটনা সূত্রে জানা যায়, রোববার রাতে দুই শিশু সন্তানকে নিয়ে নির্যাতিত ওই গৃহবধূ উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের চরগোয়ালিয়া গ্রামের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে নিজ বাড়িতে ঘুমাচ্ছিলেন। রাত ১১টার দিকে নারী কণ্ঠে ওই গৃহবধূর নাম ধরে একাধিকবার ডাক দেন কেউ একজন। পরে ঘরের দরজা খোলার সাথে সাথে মো: শিপন ওরফে আলাউদ্দিন, বেল্লাল, হেলাল, ইউসুফ ও সেলিম ঘরে ঢুকে পড়ে। এরপর ওই গৃহবধূর হাত- পা ও মুখ বেঁধে ফেলে পাশের বাগানে নিয়ে শারীরিক নির্যাতনসহ তারা পালাক্রমে ধর্ষণ করে ফেলে রেখে পালিয়ে যান।

রাত ১টার দিকে স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় হাত-পা বাঁধা ওই গৃহবধূকে বাগানে পড়ে থাকতে দেখে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। সোমবার বিকেলে চিকিৎসাধীন থাকা ওই গৃহবধূর অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভোলা জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এজাহারে আরো উল্লেখ করা হয়, রোববার রাতে ওই গৃহবধূর স্বামী সাগরে মাছ ধরতে যাওয়ায় বাড়িতে ছিলেন না। ঘটনাশুনে সোমবার স্বামী বাড়িতে এলে ওই গৃহবধূ রাতে থানায় মামলা করেন।

এ ব্যাপারে মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইদ আহমেদ জানান, গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর চার আসামি ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Previous articleটাঙ্গাইলে প্রার্থীর মৃত্যুতে চেয়ারম্যান পদের নির্বাচন স্থগিত
Next articleপীরগঞ্জের ঘটনায় ছাত্রলীগকে জড়ানোর অপচেষ্টা ব্যর্থ: তথ্যমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।