বাংলাদেশ প্রতিবেদক: খুলনার কয়রায় একই পরিবারের মা-বাবা ও মেয়েকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনার এক দিন পর সুন্দরবন সংলগ্ন উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের মঠবাড়ী নদীর চর থেকে আরো এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার হয়েছে। বুধবার সকালে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে কয়েকজন জেলে লাশটি দেখতে পেয়ে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

অন্য দিকে চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডারের ঘটনায় অজ্ঞাতদের আসামি করে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। নিহত হাবিবুল্লাহ গাজীর মা কোহিনুর খানম মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কয়রা থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

এদিকে ঘটনায় ক্লু উদ্ধারে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চারজনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তারা হলেন- জিয়া (২৭), সুলতানা (২৫), নাঈম (২২) ও কিবরাল (৩০)।

থানা পুলিশ জানায়, প্রাথমিকভাবে দু’টি বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

কয়রা থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো: শাহাদাৎ হোসেন বলেন, এ ঘটনায় অজ্ঞাতদের আসামি করে মামলা দায়ের হয়েছে। ঘটনার ক্লু উদ্ধারসহ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা চলমান রয়েছে।

উল্লেখ্য, খুলনার কয়রা উপজেলার বাগালী ইউনিয়ন পরিষদের পাশের মৃত আব্দুল মাজেদ গাজীর পুকুর থেকে মঙ্গলবার সকালে বামিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল মাজেদ গাজীর ছেলে হাবিবুল্লাহ গাজী (৩৩), তার স্ত্রী বিউটি খাতুন (২৫) ও একমাত্র মেয়ে ও স্থানীয় বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী হাবিবা খাতুন টুনির (১৩) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সবশেষ ওই ঘটনার এক দিন পর বুধবার সকালে পৃথক ঘটনায় মহারাজপুর ইউনিয়নের মঠবাড়ী নদীর চর থেকে আরো এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার হয়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত উদ্ধার হওয়া লাশের নাম পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।

আরো জানা যায়, মঙ্গলবারের ঘটনাস্থলের প্রায় ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে কয়েকজন জেলে লাশটি দেখতে পেয়ে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

Previous articleআবারো পেছালো রেইনট্রি ধর্ষণ মামলার রায়
Next articleপ্রয়োজনে সেনাবাহিনীকে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।