এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার মামুদপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে গণসংযোগ করার সময় বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীদের ৭টি মোটর সাইকেল, নিবাচনী অফিস ও দোকানঘর ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার রাতে ইউনিয়নের মহব্বতপুর সাখিদার পাড়া,বাড়ইল কুটিপাড়া ও বেলতা বানদিঘী তিন মাথার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। শতাধিক মোটরসাইকেলে লাঠি ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীরা এ হামলা চালায় বলে বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীরা অভিযোগ করেন। মহব্বতপুর সাখিদারপাড়া, বাড়ইল কুটিপাড়া ও বেলতা বানদীঘি গ্রামের বেশ কিছু লোকজনদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রোববার বিকেলে আ’লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রশীদ বকুল আনারস মার্কার পক্ষে ভোট চেয়ে গণসংযোগ শুরু করেন। ওইদিন তিনি ইউনিয়নের মহব্বতপুর সাখিদারপাড়া গ্রামে মানুষের বাড়ি বাড়ি ভোট প্রার্থনা করছিলেন। সন্ধ্যায় সাখিদারপাড়া মোড়ে ৮-১০টি মোটরসাইকেল রেখে তার কর্মীরাও গণসংযোগে যোগ দেয়। রাত সাড়ে সাতটার দিকে হঠাৎ করে নৌকার কর্মীরা বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মীদের ৭টি মোটরসাইকেল লোহার রড ও লাঠি দিয়ে ভাঙচুরের পর তিনটি ডোবার পানিতে ফেলে দিয়ে তারা চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রশীদকে খুঁজতে থাকেন। এ সময় স্থানীয় এক কর্মীর বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রাণে রক্ষাপান। এ ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে নৌকার কর্মীরা চলে যান। খবর পেয়ে পুলিশ ওই গ্রামে যাওয়ার পর লাঠি ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে প্রায় দেড়শতাধিক মোটরসাইকেল সহকারে নৌকার কর্মীরা আবারো হামলা করে। এ সময় বিদ্রোহী প্রার্থীর লোকজন গাঢাকা দিলে তারা কাউকে না পেয়ে একটি মোটরসাইকেল আগুন দিয়ে জ¦ালিয়ে দেয়। পরে রাত ন’টার দিকে তারা মোটরসাইকেল শো-ডাউন করে বাড়ইল কুটিপাড়া ও বেলতা বানদীঘি গ্রামে হামলা চালিয়ে আনারসের দুটি অফিস এবং তিনটি দোকান ভাঙচুর করে। বাড়ইল কুটিপাড়া গ্রামের কয়েকজন নারী অভিযোগ করেন,রাত ন’টার দিকে ক্ষেতলাল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাকিম মন্ডল, পৌর মেয়র সিরাজুল ইসলাম বুলু এবং নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী মশিউর রহমান মাইক্রো নিয়ে এসে ঘুরে যাওয়ার পর দেড়শতাধিক মোটরসাইকেলে নৌকা মার্কার কর্মীরা লাঠি ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে আনারসের অফিস ভাঙচুর করে। এ সময় বাজার থেকে আনারস মার্কার সবগুলি পোষ্টার ছিড়ে মোসলিম নামের এক চা বিক্রেতার দোকানও ভাঙচুর করে। বেলতা বানদিঘী তিন মাথার মোড়ের তুহিন মোল্লা বলেন,‘আনারস মার্কার পক্ষে কাজ করার অপরাধে তার সেলুনের দোকান এবং বাড়িতেও হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়। আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুর রশীদ বকুল অভিযোগ করেন,শান্তিপূর্ণভাবে ভোটের প্রচার চালানোর সময় নৌকা প্রার্থীর কর্মীরা তাদের ৭টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। ১টিতে আগুন দিয়েছে। রোববার রাতে কয়েকটি গ্রামে হামলা চালিয়ে ত্রাস

সৃষ্টি করা হয়েছে। তিনি বলেন,নির্বাচন করার মত এখন কোন পরিবেশ নাই। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামীলীগ প্রার্থী মশিউর রহমান শামিম বলেন,‘সন্ত্রাসী আর অস্ত্র ব্যবসায়ীদের নিয়ে ভোটে গণসংযোগে নেমেছেন বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী। আমার নেতা-কর্মীদের তারা ভয়-ভীতি দেখাচ্ছেন। আমার কোন কর্মী মোটরসাইকেল ভাঙচুর বা আগুন দিয়ে পুড়ে দেয়নি। তারা নিজেরাই মোটর সাইকেল ভাঙচুর করে আমার ওপর দোষ চাপাচ্ছেন। আমার জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে তিনি ভিন্ন পথ বেছে নিয়েছেন। ক্ষেতলালের মামুদপুর ও আলমপুর ইউপি নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আনিছুর রহমান বলেন,‘বিভিন্ন মাধ্যমে মামুদপুর ইউনিয়নে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গন্ডগোলের কথা শুনেছি,তবে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে নিরাপত্তা জোরদার করা হবে। ক্ষেতলাল পৌর সভার মেয়র ও জেলা আ’লীগের সদস্য সিরাজুল ইসলাম বুলু বলেন,মামুদপুর ইউনিয়নে আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীরা কোন হামলা করেনি। বরং বিদ্রোহী প্রার্থীর লোকজনই হামলা করছে। এমন অভিযোগ পেয়ে অন্য নেতাদের সাথে নিয়ে আমরা মামুদপুর গিয়ে নেতা-কর্মীদের শান্তনা দিয়ে এসেছি। ক্ষেতলাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নীরেন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন,গন্ডগোলের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এ ব্যাপারে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleউল্লাপাড়ায় ভোট উৎসবে জমজমাট উপজেলা চত্বর
Next articleমুলাদীতে জাতীয় যুব দিবস পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।