জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে দীর্ঘ আড়াই মাস পরে চাঞ্চল্যকর মোটরসাইকেল চালক রাসেল হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে ডিবি পুলিশ। এসময় হত্যার সাথে জড়িত ডিবি পুলিশ দুই জনকে আটক করেছে। আটক দু’জনের কাছ থেকে ভিকটিমের মোবাইল ফোন উদ্ধার, হত্যাকাজে ব্যবহৃত চাকু জব্দ করেছে।

পুলিশ জানায়, গত ১৭ আগস্ট কেশবপুর উপজেলার পৌর সদরে সাবদিয়া গ্রামের মাজিদ মোড়লের পুত্র সাগরদাড়ী চিংড়া পূর্বপাড়া গ্রামস্থ চিংড়া হতে শ্রীপুরগামী (টেপার মাঠ) কাঁচা রাস্তার পাশে জনৈক আয়সা বেগমের ধানক্ষেত থেকে রাসেল হোসেন (২৬) নামের এক যুবকের লাশ কেশবপুর থানা পুলিশ উদ্ধার করে। নিহত রাসেল ভাড়ায় মটরসাইকেল চালাতো। গত ১৬ আগস্ট বিকালে ভাড়ায় মটরসাইকেল চালানোর জন্য বাড়ী থেকে বের হয়ে কেশবপুরের উদ্দেশ্যে যায় রাসেল। রাতে রাসেলের মোবাইলে ফোন দিলে বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজির একপর্যায়ে ১৭ আগস্ট তারিখ রাতে ঘোপসানা রোড থেকে ভিকটিম রাসেলের মটরসাইকেলটি পাওয়া গেলেও তাকে পাওয়া যায় না। পরের দিন সকালে স্থানীয় লোকজন চিংড়া ডেপার মাঠে একটি মৃতদেহ দেখতে পায়। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রাসেলের মৃতদেহ সনাক্ত করে তার পরিবারের লোকজন। এরপর নিহত রাসেলের পিতা মাজিদ মোড়ল বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় এজাহার দায়ের করলে কেশবপুর থানার মামলা নং-০৩, তাং-১৭/০৮/২০২১ তারিখ, ধারা-৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড রুজু হয়।

ঘটনাটি চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস হওয়ায় জেলার পুলিশ সুপার জনাব প্রলয় কুমার জোয়ারদার, বিপিএম (বার), পিপিএম মহোদয় মামলাটি জেলা গোয়েন্দা শাখায় তদন্তভার ন্যাস্থ করেন। ডিবি’র অফিসার ইনচার্জ জনাব রুপন কুমার সরকার, পিপিএম এর দিক- নির্দেশনায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শামীম হোসেন মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করে গোপন তথ্য সংগ্রহ আসামীদের সনাক্তপূর্বক গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রাখেন। গত শনিবারে(৩০ অক্টোবর) গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ পরিদর্শক শাহীনুর রহমানের নেতৃত্বে মামলার তদন্ত কারী কর্মকর্তা এসআই শামীম হোসেন ও এসআই মফিজুল ইসলাম, পিপিএম এর নেতৃত্বে একটি চৌকশ টিম কেশবপুর থানাধীন হাসানপুর, বিষ্ণপুর, সাগরদাড়ি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে হত্যার সাথে জড়িত সন্ধেহে ২ জন যুবককে গ্রেফতার করে।

তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, হত্যাকাজে ব্যবহৃত ১টি চাকু জব্দ করে। ডিবি পুলিশ সাংবাদিকদের জানায়, আর্থিকভাবে লাভ হওয়ার কারনে গ্রেফতারকৃত আসামী (১) মাসুদ হোসেন, (২) অহিদ হাসানদ্বয় ছিনতাই করার পরিকল্পনা করে। এরপর তারা ইং ১৬/০৮/২০২১ তারিখ ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে চাকু নিয়ে কেশবপুর দিয়ে খুলনায় যায়। সেখানে ছিনতাই করতে না পারায় রাত অনুমান ১১:০০ ঘটিকার সময় খুলনা থেকে ট্রাকে করে চুকনগর বাজারে আসে। এরপর ভিকটিম মটরসাইকেল চালক রাসেলকে ৩’শত টাকা ভাড়া চুুক্তিতে সাগরদাড়ির উদ্দেশ্যে নিয়ে যায়। পথিমধ্যে মামলার ঘটনাস্থল চিংড়া টেপার মাঠের মধ্যে নিরিবিলি জনমানব শুন্য এলাকায় নিয়ে ভিকটিম রাসেলকে চাকু-ছুরির ভয় দেখাইয়া মটরসাইকেলটি ছিনতাই করতে চায়। রাসেল বাঁধ সাজলে একপর্যায়ে চাকু দ্বারা পেটে আঘাত করে। নিহত রাসেল মোবাইল ফোনে ১ বছরের বাচ্চার (মেয়ে) ছবি দেখিয়ে জীবন ভিক্ষা চাইলেও ঘাতক মাসুদ ও অহিদ তাকে জীবনে বাঁচতে না দিয়ে উপর্জুপুরি চাকুু-ছুরি আঘাতে রক্তাক্ত জখম করে গলার শ্বাসনালী কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে মটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়। কিন্তু ঘাতকরা হত্যার কথা চিন্তা করে মটরসাইকেলটি ঘটনাস্থল থেকে ৫/৬ কিলোমিটার দূরে ঘোপসানা রোডে ফেলে দেয় এবং অনুমান ১০/১৫ দিন পর ভিকটিম রাসেলের মোবাইল ফোনটি হাসানপুর বাজারে ১টি মুদি দোকানদার শহিদুলের নিকট ৩ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়। আটক দু’আসামী একই উপজেলার হাসানপুর গ্রামের আব্দুর রহমান সরদারের পুত্র মোঃ মাসুদ হোসেন (১৯)ও বিষ্ণপুর গ্রামের আব্দুর রউফ মোড়লের পুত্র মোঃ অহিদ হাসান (১৯)। আসামী আটকের পর পুলিশ নিহতের মা বাবার কাছে নিয়ে যায়। এ সময় নিহত মটরসাইকেল চালক রাসের পিতা-মাতা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হত্যাকারীদের ফাঁসি দাবী করে বিলাপ করতে থাকে।

Previous articleবিয়ের ৪ দিনের মাথায় ধর্ষণের অভিযোগে চিকিৎসক আটক
Next article‘আপনারা আমার লুঙ্গিতেই আটকা পড়ে রইলেন’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।