তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ২০ টি পরিত্যক্ত ভবনে চলছে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান। জরাজীর্ণ এসব ভবনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাঠদান করায় ব্যহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। অপরদিকে-জমি নিয়ে কয়েকটি স্থানে মসজিদ কমিটি ও বিদ্যালয় কমিটির দ্বন্দ্বে নতুন ভবন নির্মান করা যাচ্ছেনা বলে সংশ্রিষ্টরা অভিযোগ করেছেন।।

প্রাথমিক শিক্ষা অফিস জানায় , উপজেলায় ১২১টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরিত্যক্ত ভবনে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান । এছাড়াও ১৫টি বিদ্যালয়ের ভবনের অবস্থা খুবই নাজুক ও ৬টি বিদ্যালয় ভবনের অবস্থা খারাপ।শ্রেণী সঙ্কটের কারণে পরিত্যক্ত ভবনগুলোতেই চলছে পাঠদান।

রায়পুরের পরিত্যাক্ত ও ঝুকিপুর্ণ বিদ্যালয়গুলো হলো-ঝাউডগী, উত্তর রায়পুর, লামচরি আরএম, লামচরি, বামনী, গোলকপুর, উত্তর বামনী, সাগরদি-পুর্ব উদমারা, সিকদার কান্দি, চরপাঙ্গাসিয়া, দক্ষিন পশ্চিম কেরোয়া,
নাপিতের চর, দক্ষিন পুর্ব উদমারা
,চরবংশি বাবুরহাট, কেরোয়া মানছুরা ও কাজির চরসহ ২০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।।

শিক্ষক ও অভিভাবকদের অভিযোগ, নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে ভবন নির্মাণ করায় অল্প দিনের মধ্যেই ভবনগুলো ভগ্ন দশায় পরিণত হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগের অর্থায়নে এ ভবনগুলো ১৯৮৮ সাল থেকে ২০০০ সালে নির্মাণ করা হয়েছে। কক্ষের দেয়ালে ফাটল রয়েছে, রড বেরিয়ে গেছে, বৃষ্টি হলে ছাদ চুয়ে পানি পড়ছে।

রাখালিয়া ১নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফারুখ আহাম্মদ বলেন, কাগজপত্র অনুযায়ী ১৮৯৬ সালে ১ একর ১০ শতাংশ জায়গা নিয়ে বিদ্যালয়টি নির্মান করেছিলেন এলাকার শিক্ষানুরাগী মোঃ কেয়ামুদ্দিন ও আবু কাশেম। কিন্তু দেখা যায় প্রায় এক একর সম্পদই নাই। এসমস্যার মধ্যেই মসজিদ ঘেষে গত বছর নতুন ভবন না থাকায় পুরাতন ভবনের উপর নতুন আরেকটি ভবন নির্মান করা হয়। বর্তমানে ১০ জন শিক্ষক কর্মরত ও ৩৫০ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত রয়েছে। এমতাবস্তায় ৫ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে চলতি বছরেরসেপ্টেম্বর মাসে পরিত্যক্ত সেমিপাকা টিনসেড তিনটি কক্ষে পাঠদান করাতে হচ্ছে। তবে- মসজিদ কমিটির কাউছার চৌধুরী বলেন, প্রধান শিক্ষকদের কারনেই সমস্যা সমাধানকরা যাচ্ছেনা।

রায়পুর সরকারী প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোতালেব হোসেন বলেন, জরাজীর্ণ পরিত্যাক্ত ভবনে জীবনের ঝঁকি নিয়ে শিশুদের পাঠদান করাতে যেমন পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি দুর্ঘটনার আশঙ্কাও রয়েছে। শিক্ষা কর্মকর্তা দের বারবার বললেও কোন গুরুত্ব দিচ্ছেন না।।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাক আহাম্মদ বলেন, পরিত্যক্ত ভবনের তালিকা করে উপজেলা প্রকৌশলী অফিসে জমা দেওয়া হয়েছে।

Previous articleরংপুরে এই প্রথম মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের সেলস ডিসপ্লে সেন্টার চালু
Next articleবিয়ে না করেই স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে ৮ মাস ঘর-সংসার, এবার বিয়ের দাবিতে অনশনে কলেজছাত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।