বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় ডাকাতি করতে গিয়ে ছালেহা বেগম নামের এক বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যার দায়ে চার আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বুধবার দুপুরে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়ার জজ ১ম আদালত ও স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল নং ২ এর বিচারক হাবিবুর রহমান এ রায় দেন।

কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- কাউসার (২৩), শাখাওয়াত হোসেন (২২), সোহাগ (২৮), নাসির উদ্দিন (২৫)। এদের মধ্যে কাউসার ও শাখাওয়াত জেল হাজতে এবং বাকি দুই আসামি পলাতক রয়েছেন। রায়ে আবদুল গফুর ও মো. আরিফ নামে অপর দুই আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, ২০১১ সালের ৪ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়নের শমেষপুর গ্রামের নিজ ঘর থেকে ছালেহা বেগমের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে বুড়িচং থানার দেবপুর ফাঁড়ি পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের মেয়ে শিল্পী আক্তার বাদী হয়ে ৫ সেপ্টেম্বর অজ্ঞাত ব্যাক্তিদের নামে বুড়িচং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি তদন্তের পর অভিযুক্তদের শনাক্ত করে বিভিন্ন সময় চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। সাক্ষ্য প্রমাণসহ ওই বছরের ২৮ ডিসেম্বর পুলিশ কুমিল্লা আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আসামিরা স্বীকারোক্তিতে জানায়, ডাকাতির সময় ছালেহা বেগম বাধা দেওয়ায় তারা তাকে গলা কেটে হত্যা করেন।

সরকার পক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট তানজিনা জানান, আদালত দীর্ঘ ১০ বছর ধরে মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষে বুধবার আদালত রায় ঘোষণা করেন। রায়ে গ্রেপ্তার থাকা দুই আসামিসহ চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে এবং অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অপর দুই আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলার বাদী শিল্পী আক্তার জানান, আদালত আসমিদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়ায় তারা সন্তুষ্ট।

Previous articleসৈয়দপুরে যৌতুকের বলি গৃহবধূ মুক্তা, স্বামী ও শাশুড়ি আটক
Next articleকলাপাড়ায় স্বেচ্ছাসেবকলীগের অনন্দ মিছিল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।