এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাট নবান্ন উৎসব উপলক্ষে জয়পুরহাটের কালাই পৌরশহরের পাঁচশিরা বাজারে প্রতি বছরের মতো এবারও বসেছে ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলা। ক্যালেন্ডার নয়, পঞ্জিকা অনুসারে অগ্রহায়ণ মাসের প্রথম বৃহস্পতিবার এ জেলায় একমাত্র পাঁচশিরা বাজারে প্রতিবছর বসে মাছের মেলা।

বাঙালি সংস্কৃতির অংশ হওয়ায় নবান্নের মেলায় ঢল নামে সব বয়সী মানুষের। প্রতি বছর মাছ মেলার আয়োজনে আনন্দের ঘণ্টা বাজে আশেপাশের ১৫/২০ গ্রামের মানুষের। মেয়ে জামাইসহ স্বজনদের অপেক্ষা এ দিনটিকে ঘিরে। জয়পুরহাটের প্রত্যন্ত গ্রামঞ্চলে শুরু হয়েছে নবান্ন উৎসব। কৃষকদের ঘরে উঠেছে নতুন ধান। পিঠা-পায়েসসহ নানা আয়োজনে জামাই ও স্বজনদের নিয়ে উদযাপিত হচ্ছে এ উৎসব। এই দিনের অপেক্ষায় প্রহর গুনেন এ উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামের লোকজন। এই দিনকে ঘিরে পাঁচশিরাতে ভোর ৪টা থেকে সারাদিন চলে মাছ কেনা-বেচার উৎসব। এই অনুষ্ঠান উদযাপন করতে আসেন সারাদেশে বসবাসরত এ এলাকার জামাই-মেয়ে, বিয়াই-বিয়ানসহ আত্মীয়-স্বজনরা। মূলত প্রতিযোগিতা করেই মেলা থেকে জামাইরা মাছ কিনে শ্বশুরবাড়িতে নিয়ে যান।

সীমান্ত ঘেঁষা জেলায় ভোর থেকেই মেলা জুড়ে ছিল ক্রেতা-বিক্রেতা আর কৌতুহলী মানুষের ঢল। সকাল থেকেই ক্রেতারা ভিড় জমান মাছের মেলায়। মেলার প্রতিটি দোকানে সাজানো হয়েছিল দেশীয় জাতের বোয়াল, রুই, মৃগেল, কাতল, চিতল, সিলভার কার্প, পাঙ্গাস, বাঘাআইড়সহ নানা ধরনের মাছ। মেলায় সর্বোচ্চ ২৫ কেজি ওজনের কাতল মাছ বিক্রি হয়েছে ৩৭ হাজার টাকায়। স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, দিনটি উদযাপন উপলক্ষে মাছ ব্যবসায়ীরা কয়েকদিন আগে থেকেই পাঁচশিরা বাজারে তাদের আড়ৎ ঘরে এলাকার থেকে নানা জাতের বড় বড় মাছ সংগ্রহ করেন। মেলা উপলক্ষে এ দিনে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি, পেশাজীবী মানুষরা উচ্চ মূল্যে এসব মাছ কেনেন। আগের তুলনায় এ বছর মেলায় লোকজনের উপস্থিতি ছিল বেশি। মাছ কেনাবেচাও হয়েছে প্রচুর। মেলায় মাছ বিক্রি করতে আসা ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম বলেন, মেলাতে কাতলা, রুই, মৃগেল ৭শ্#৩৯; থেকে ১৫শ্#৩৯; টাকা কেজিতে এবং বাঘাআইড়, বোয়াল ও চিতল মাছ ১৩শ্#৩৯; থেকে ২ হাজার টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। আর মাঝারি আকারের মাছ ৩৯০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। অন্য বছরের তুলনায় এবার ক্রেতা ছিল বেশি। তাই মাছও বিক্রি হয়েছে বেশি। মেলায় মাছ কিনতে এসেছেন পৌরসভার মূলগ্রামের জামাই আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, এই মেলা উপলক্ষে শ্বশুরবাড়ি প্রতি বছরই আসি। যেহেতু এই মেলা জামাই-মেয়ে উপলক্ষে আয়োজন করা হয়, সে কারণে মাছ কিনতেই হয়। এবারও ৯ কেজি ওজনের একটি কাতল মাছ কিনেছি। অন্য বছরের চেয়ে এবার মাছের দাম একটু বেশি। তারপরও আনন্দ লাগছে। মেলায় মাছ কিনতে আসা মোহসিন, বিপ্লব, জাহাঙ্গীর,রনি সহ আরো অনেকেই বলেন, ‘করোনার সময় অনেক কিছু বন্ধ ছিল যার জন্য আমরা কোনো উৎসব বা অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারিনি।প্র্রতিবছরের মত এবারও মাছের মেলা হওয়ায় আমরা অনেক খুশি।’

তারা আরো বলেন, ‘অন্য বছরের চাইতে এবার মাছের দাম একটু বেশি। তবে মেয়ে- জামাই বলে কথা। তাদের জন্য বাঘাআইড়, কাতলা, ব্রিগেট ও রুই মাছ কেনা হয়েছে।’ পাঁচশিরা বাজার ইজারাদার ছানোয়ার হোসেন ছানো বলেন, এ মেলার কোনো আয়োজক নেই। প্রতিবছর এই দিনে মাছের মেলা বসে। তবে মাছ ব্যবসায়ীরা মেলার আগে এক সপ্তাহ ধরে এলাকায় মাইকে প্রচার করে। এই দিনে মেলায় প্রচুর মাছ আমদানি এবং বিক্রি হয়। কালাই উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, আজকের মেলায় কমপক্ষে ১ থেকে সোয়া কোটি টাকার মাছ কেনাবেচা হবে। মৎস্য বিভাগ চাষীদের সবসময় মাছ চাষে পরামর্শ দিয়ে আসছে। আগামীতে এই মেলার পরিধি আরও বাড়বে বলে আমি আশাবাদী। কালাই পৌর মেয়র রাবেয়া সুলতানা বলেন, নবান্ন উৎসব কে কেন্দ্র করে প্রতি বছরই কালাই পাঁচশিরা বাজারে মাছের মেলা বসে। মাছের মেলাকে কেন্দ্র করে এখানে উৎসব মুখর পরিবেশ তৈরী হয়। পৌর সভার পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা করা হয়। কালাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিনফুজুর রহমান মিলন জানান, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হওয়ায় নবান্নের এই মেলায় কেনাকাটা করতে আসেন সব সম্প্রদায়ের মানুষ।

Previous articleরামু সেনানিবাসে আন্তঃফরমেশন এ্যাসল্ট কোর্স প্রতিযোগিতা ২০২১ এর সমাপনী অনুষ্ঠিত
Next articleপত্রিকায় উদ্দেশ্যপ্রনোদিত সংবাদ প্রকাশের জেরে বাউফলে প্রতিবাদ সমাবেশ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।