নিহত বাসচালক আব্দুর রহিম

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চট্টগ্রামে মাইক্রোবাসের আরোহীদের মারধরে বাসচালক নিহত হওয়ার ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার ভোর রাতে নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানার আমিন কলোনী এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তারা তিনজনই মাইক্রোবাসের আরোহী ছিলেন।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন, বায়েজিদ বোস্তামী থানার বাস্তুহারাবাসী কলোনীর মৃত মো. শাহজাহানের ছেলে মো. আনোয়ার হোসেন, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ থানার বসুরহাট ব্র্যাক অফিস এলাকার আলাউদ্দিনের ছেলে মো. মোর্শেদ ও খাগড়াছড়ির ভাইবোন ছড়ার মো. বাবুল মিয়ার ছেলে মো. রবিউল।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছেন, দুর্ঘটনা ঘটতে পারে জেনেও বাসচালক তাদের বহনকারী মাইক্রোবাসকে চাপ দেন। তাই তাকে পিটিয়েছেন তারা।

গত ২৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় আমিন জুট মিল এলাকায় হাটহাজারী থেকে নগরের দিকে আসা এক বাস চালককে মারধর করেন মাইক্রোবাস আরোহীরা। এতে তার মৃত্যু হয়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। পরদিন হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে হাটহাজারী ও অক্সিজেন এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন তারা।

বায়েজিদ বোস্তামী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুজ্জামান বলেন, ঘটনার পর মাইক্রোবাস আরোহীদের শনাক্ত করার চেষ্টা করা হয়। হাটহাজারী সড়কের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে আসামিদের শনাক্ত করা হয়। এরপর সোমবার ভোর রাতে তাদের তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ২৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় আনোয়ার, মোর্শেদ ও রবিউল তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ফটিকছড়ি থেকে চট্টগ্রাম নগরের বাসায় ফিরছিলেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নম্বর গেট পাড় হওয়ার পর হাটহাজারী থেকে ছেড়ে আসা দ্রুতযান পরিবহনের একটি বাস (চট্ট মেট্রো জ- ১১-১৫৮৫) ওই মাইক্রোবাসটিকে চাপ দেয়। এরপর চৌধুরীহাট পেট্রোল পাম্প এলাকায় মাইক্রোবাসকে চাপা দেওয়া বাস মনে করে দ্রুতযানের আরেকটি বাসের (চট্ট মেট্রো জ-১১-১৬৬২) গতিরোধ করে চালককে নামিয়ে মারধর করেন তারা। এতে বাসের চালক আনোয়ার হোসেন বাচা অজ্ঞান হয়ে পড়েন। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তোলে।

মাইক্রোবাস আরোহীরা তাদের ভুল বুঝতে পেরে সেখান থেকে দ্রুত সটকে পড়েন। বালুছড়া এলাকায় এসে তারা তাদের মাইক্রোবাসকে চাপ দেওয়া বাসটি দেখে পিছু আবার নেন। আমিন জুট মিলের উত্তর গেটে পৌঁছে তারা বাসটির গতিরোধ করেন। এরপর চালক আব্দুর রহিমকে বাস থেকে নামিয়ে মারধর করেন। আহত চালক রহিম বাকলিয়া থানার রাহাত্তার পুল এলাকায় নিজের বাসায় চলে যান। এরমধ্যে রাতে অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবারের সদস্যরা তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে রহিমকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

Previous article‘সরকার খালেদা জিয়ার মৃত্যু কামনা করে না, খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী’
Next articleরংপুরে বিজয় দিবস এবং মহীয়সী বেগম রোকেয়া দিবস পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।