বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ঘন-কুয়াশায় ১০ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে ১২ কিলোমিটার জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ সময় প্রায় ৫ সহস্রাধিক ছোট-বড় যানবাহন আটকা পড়ে। এতে করে চরম ভোগান্তির শিকার হয় যানবাহনের যাত্রী, চালক হেলপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের লোকজন। এ ছাড়াও রয়েছে ফেরি স্বল্পতা।

সরেজমিন জানা যায়, ঘন কুয়াশার কারণে দৌলতদিয়া- পাটুরিয়া নৌরুটে বুধবার সন্ধ্যার পর থেকে কুয়াশার প্রকোপ দেখা যায়। এরপর অত্যাধিক কুয়াশায় নদী পথ দৃষ্টি সীমার বাইরে চলে গেলে রাত ১২টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত ১০ ঘণ্টা ফেরিসহ সকল নৌযান চলাচল বন্ধ রাখা হয়। এ সময় গোলাম মওলা নামে একটি ফেরি মাঝ নদীতে আটকা পরে। এ ছাড়া প্রয়োজনের তুলনায় ফেরি কম থাকায় এরুটে উভয় পাড়ে প্রায় ৫ সহস্রাধিক ছোট-বড় যানবাহন আটকা পড়ে। মাঝ নদীতে আটকে থাকা ফেরি ও মহাসড়কে থাকা যানবাহনে থাকা লোকজন কনকনে শীত ও ঠাণ্ডা হাওয়ায় চরম দুর্ভোগ পোহায়। এ সময় নারী ও শিশুদের প্রকৃতির ডাক সারতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়।

দৌলতদিয়া ঘাট বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানায়, এ রুটে ২০টি ফেরি প্রয়োজন হলেও প্রায় ১ মাসেরও বেশি সময় ধরে মাত্র ১৬টি ফেরি চলাচল করছে। এরমধ্যে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে শাহ পরান ও বনলতা ফেরি দুটি বহরে যোগদানের পর নতুন করে কেরামত আলী ও কুমিল্লা নামে ২টি ফেরি বসা রয়েছে। ফলে ১৪টি ফেরি দিয়ে চলছে যানবাহন পারাপারের কাজ। ওই সূত্রটি আরো জানায়, এমনিতেই প্রয়োজনের তুলনায় ফেরি কম থাকায় যান পারাপার স্বাভাবিক রাখা যাচ্ছিল না। তার উপর গত রাতে ১০ ঘণ্টা ফেরি বন্ধ থাকায় পারাপার পরিস্থিতি সামাল দেয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা নাগাদ ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়াঘাট থেকে গোয়ালন্দ উপজেলার মোকবুলের দোকান পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার যানবাহনের লম্বা লাইন দেখা যায়। এ ছাড়া গোয়ালন্দ মোড়ে প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ৭ থেকে ৮ শতাধিক মালামাল ভর্তি ট্রাক আটকে রাখতে দেখা যায়। এ সময় ঢাকাগামী শত শত যাত্রীকে মহাসড়ক দিয়ে পায়ে হেটে দৌলতদিয়া ঘাট যেতে দেখা যায়।

মহাসড়কে হাঁটার সময় খুলনা, যশোহর, মাগুরা, ঝিনেদা, সাতক্ষিরা, কুষ্টিয়াসহ দেশের দক্ষিণাঞ্চল থেকে আসা যাত্রীরা জানান, তাদের গাড়ি সিরিয়ালে আটকা পড়ায় তারা পায়ে হেঁটে দৌলতদিয়ায় যাচ্ছেন। শত শত যাত্রীকে লাগেজ পত্র নিয়ে হেঁটে যেতে দেখা যায়। এ সময় দূরপাল্লার নারী যাত্রীদের যানবাহন থেকে নেমে গোয়ালন্দ উপজেলা কমপ্লেক্স জামে মসজিদ ও সড়কের আশপাশের বাড়িতে ঢুকে প্রকৃতির ডাক সারতে দেখা যায়।

এ সময় উপজেলা কমপ্লেক্স জামে মসজিদের টয়লেট ব্যবহার করতে আসা ঢাকাগামী যাত্রী সাতক্ষিরা কালিগঞ্জ নলতা থেকে আসা কিং ফিসার পরিবহনের যাত্রী আলিমুজ্জামান ও বরিশাল ঝালকাঠি থেকে আসা ইসলাম পরিবহনের যাত্রী রফিকুল ইসলাম জানান, দীর্ঘ সময় বাসে বসে থেকে তারা অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন। এ সময় তাদের সাথে থাকা নারীকে অসহায় বোধ করতে দেখা যায়। কোলে থাকা শিশু সন্তানকে কান্না-কাটি করতে দেখা যায়।

বৃহস্পতিবার প্রায় সারা দিন মহাসড়কে বাস, মিনিবাস, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, ট্রাকসহ কয়েক হাজার বিভিন্ন ধরনের যানবাহন আটকা পড়ে সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। এ সময় অসহায় যাত্রীরা ৩ থেকে ৪ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে দৌলতদিয়া ঘাটে পৌঁছান। দূরপাল্লার যাত্রীরা যানবাহনের মধ্যেই আটকে থেকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহান। যানজটের সুযোগ নিয়ে অনেক রিকশা, অটোরিকশা ও মাহেন্দ্র চালকরা যাত্রীদের কাছ থেকে ১০ টাকার ভাড়া ১০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করতে দেখা যায়।

দৌলতদিয়াঘাট বিআইডব্লিউটিসি’র ব্যবস্থাপক জামাল হোসেন বলেন, ঘন কুয়াশার কারণে বুধবার রাত ১২টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিল। তিনি আরো জানান, এ রুটে থাকা ১৬টি ফেরির দুটি ফেরি যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বসা আছে। তিনি আরো বলেন, এমনিতে ফেরি সল্পতা ও তার সাথে দীর্ঘ প্রায় ১০ ঘণ্টা ফেরি বন্ধ থাকায় মহাসড়কে প্রচুর যানবাহন আটকা পড়েছে। আমরা গাড়িগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করার চেষ্টা করছি। হয়তো বিকেল নাগাদ পারাপার স্বাভাবিক অবস্থায় আনা সম্ভব হতে পারে।

Previous articleজয়পুরহাটে সুষ্ঠ নির্বাচনের দাবিতে জাতীয় পার্টির সংবাদ সন্মেলন
Next articleসেই সার্জেন্ট মহুয়ার বাবার পাশে ডিএমপি কমিশনার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।