তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে শতকরা ৭০ শতাংশ স্বাভাবিক ও ৩০ শতাংশ গর্ভবতীর অস্ত্রোপাচারের (সিজার) মাধ্যমে সন্তান প্রসব হয়। এক্ষেত্রে গর্ভবতী মায়েদের ৭১ ভাগই সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালমুখী হচ্ছেন। গত এক বছরে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ১৯ হাজার ২৭৭ শিশু জম্ম নিয়েছে। আর বাড়িতে জন্ম নিয়েছে আট হাজার ৭৪ শিশু।

জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের তথ্যমতে, গত এক বছরে লক্ষ্মীপুরের পাঁচ উপজেলায় ২৭ হাজার ৩৫১ সন্তান জম্ম নিয়েছে। এরমধ্যে স্বাভাবিক প্রসবে ২২ হাজার ৩৬২ এবং অস্ত্রোপাচারে (সিজার) চার হাজার ৯৮৯ শিশু জন্ম নিয়েছে। সিজারের মধ্যে তিন হাজার ৬৬১টি হয়েছে বেসরকারি ক্লিনিকে।

এদিকে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে সর্বোচ্চ প্রসব সেবাদানে সারাদেশের মধ্যে লক্ষ্মীপুর প্রথম স্থান অর্জন করে। তখন ২০ হাজার ৮০৭ গর্ভবতী নিবন্ধিত ছিলেন। এরমধ্যে জেলার ৩৮টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে আট হাজার ২৭৬ গর্ভবতী প্রসব সেবা নিয়েছেন।

২০২০ সালের জুলাই থেকে ২১ সালের জুনের সরকারি সমীক্ষায় দেখা গেছে, এক বছরে লক্ষ্মীপুর সদরে তিন হাজার ৭৩৪, রায়পুরে তিন হাজার ৩৫৫, রামগঞ্জে ৯২৬, রামগতিতে এক হাজার ৬১১, কমলনগরে দুই হাজার ৮৩ শিশু স্বাভাবিক প্রসবে জম্ম নেয়। জেলার সরকারি হাসপাতাল, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পবিবার কল্যাণ কেন্দ্রে গর্ভবতী মায়েরা এসব শিশু সন্তান জম্ম দেন।

এছাড়াও সদরের হাসপাতাল ও রায়পুরসহ চারটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক হাজার ২৫০ প্রসূতির সিজার হয়। মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে (মাতৃ মঙ্গল) সিজার হয় ৭৮টি।

অপরদিকে, সদর, রায়পুর ও রামগঞ্জে অন্তত ৪০ বেসরকারি (প্রাইভেট) হাসপাতালে দুই হাজার ৫৭৯ শিশুর স্বাভাবিক জম্ম হয়। এসব হাসপাতালে সিজার হয় তিন হাজার ৬৬১ প্রসূতির।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনায় অনিয়ম ও চিকিৎসকদের অবহেলায় সিজারকালে প্রায়ই নবজাতক ও প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। এসব ঘটনায় নিহতের স্বজনরা হাসপাতালে হামলা-ভাঙচুর চালায়। মামলা-মোকদ্দমা হলেও পরবর্তীতে স্থানীয় প্রভাবশালীদের মাধ্যমে তা সমঝোতা হয়।

সবশেষ ৪ ডিসেম্বর বিকেলে লক্ষ্মীপুর নিউ আধুনিক হাসপাতালে অবস (অ্যানেস্থেসিয়া) করার চিকিৎসক ছাড়াই জেলা সিভিল সার্জন আব্দুল গফফার প্রসূতির সিজার করেন। এতে নবজাতক সুস্থ থাকলেও প্রসূতি শিমু আক্তারের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে স্বজনরা হাসপাতাল ভাঙচুর করে। পরে অবশ্য সিভিল সার্জন ভুল করেছেন বলেও গণমাধ্যমের কাছে স্বীকার করেছেন। ২১ ডিসেম্বর সকালে রায়পুর শহরের মাতৃছায়া (প্রা.) হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতি ওয়ার্ডেই রোগী ভর্তি। এরমধ্যে অধিকাংশই সিজারের রোগী।

এক নবজাতকের মামা শামছুল হুদা জানান, তার বোনকে তিনদিন আগে হাসপাতালে এনে সিজার করেছেন। বাড়িতে স্বাভাবিক প্রসবের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। ক্লিনিক পরিষ্কার-পরিছন্ন ও সবসময় ডাক্তার পাওয়া যায় বলেই এখানে এসেছেন।

লক্ষ্মীপুরে মধ্যে চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রটি মডেল। ওই কেন্দ্রের পরিবার কল্যাণ পরিদর্শক সুলতানা রাজিয়া বলেন, অর্থ ও হয়রানি ছাড়াই নবজাতক ও প্রসূতিদের সার্বক্ষণিক সেবা দেওয়া হয়। গভীর রাতে এসেও সেবা পান প্রসূতিরা।

লক্ষ্মীপুর সেইফ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেহেরুন হাসান রাজু বলেন, ৯ মাসে ১০৫ প্রসূতির স্বাভাবিক প্রসব হয়েছে। রোগীর স্বজনদের বুঝিয়ে স্বাভাবিক প্রসব করানোর জন্য আমরা চেষ্টা করি। এ পর্যন্ত ৩৮ শতাংশ স্বাভাবিক প্রসব নিশ্চিত করা হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর প্রাইভেট ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক তুহিন চৌধুরী বলেন, অধিকাংশ রোগীর স্বজনরা অসচেতন হওয়ায় সিজারে আগ্রহ দেখায়। অনেক সময় পল্লী চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা ভুল চিকিৎসা দিয়ে গর্ভবতীকে মুত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। তবে এখনো সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও বাড়িতে মিলে প্রায় ৭০ ভাগ স্বাভাবিক প্রসব হয়।

এ বিষয়ে জেলা পরিবার ও পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) আশফাকুর রহমান মামুন বলেন, গর্ভবর্তী মা ও নবজাতকদের চিকিৎসায় আন্তরিকভাবে কাজ করা হচ্ছে। ৩৮টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের কর্মীরা নিয়মিত মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন। আমরা স্বাভাবিক প্রসবে উৎসাহিত করছি।

Previous articleটাঙ্গাইলে বৃদ্ধের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার
Next articleরূপপুর পারমাণবিকের ২য় ইউনিট: নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হচ্ছে অভ্যন্তরীণ কন্টেইনমেন্টের নির্মাণ কাজ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।