জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলার স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের ৩৮ কর্মীদের বিরুদ্ধে হঠাৎ করে পাশ্ববর্তী মনিরামপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। যার মামলা নম্বর ১১/২৩২। তারিখ ২৪-১২-২০২১। ১৫(৩)/২৫-উ ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলাটি করেছেন মনিরামপুর থানায় রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এস আই মোঃ লিটন মিয়া।

কয়েকজন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী দাবী করেছন আসামীদের বেশী ভাগই তাদের কর্মী সমর্থক। এ মামলা নিয়ে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, কেশবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে আগামী ৫ জানুয়ারি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীরা যখন প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছে। তখনই হঠাৎ করে গত ২৩ ডিসেম্বর রাতে ৬ নম্বর কেশবপুর ইউনিয়ের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যাপক আলাউদ্দিন আলার মটর সাইকেল প্রতীকের কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে ব্যাপক সংখ্যক ডিবি পুলিশ হানা দেয়। এ সময় আটক করা হয় ৪ জন সমর্থক ।

আটক কর্মী সমর্থকরা হলো ৬ নম্বর ইউনিয়ন পরিষদের সুজাপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম, নতুন মূলগ্রামের শরিফুল ইসলাম, রুহুল আমিন ও ভোগতি গ্রামের পলাশ। আটককৃতদের ঐ মামলার আসামি করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এছাড়া গত ২৭ ডিসেম্বর রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে রামচন্দ্রপুর গ্রামের শিক্ষক আব্দুল খালেক ও নিরীহ কৃষক রজতের পুত্র লুৎফর রহমানকে আটক করে ঐ মামলায় আটক দেখিয়ে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এ ছাড়া ২৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার রাতে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলাউদ্দিন এর একাধিক কর্মীর বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে। এ ব্যাপারে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলাউদ্দিন আলা বলেন, তার কর্মীদের এলাকা ছাড়া করতে পরিকল্পিত ভাবে এ মামলা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ঐ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ গোলাম রসুল বলেন, বাদী যে ভাবে মামলা করেছেন সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

Previous articleযশোরে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের উপর তান্ডব অব্যাহত, রহস্যজনক ভূমিকায় পুলিশ
Next articleসোনারগাঁও সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের কমিটি গঠন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।