স্বপন কুমার কুন্ডু: পাঁচ দিনব্যাপী নিউক্লিয়ার বাস ট্যুর ঢাকায় এসে সফলভাবে সমাপ্ত হয়েছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে জনমনে আগ্রহ সৃষ্টি, পরমাণু প্রযুক্তি ও এর নিরাপত্তা এবং জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তির ব্যাবহার সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ব্যাতীক্রমধর্মী এই বাস ট্যুরের আয়োজন করা হয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন এবং রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি কর্পোরেশন- রসাটম এই বাস ট্যুরের আয়োজন করে।

গত ২৩ ডিসেম্বর ঢাকায় অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে নিউক্লিয়ার বাস ট্যুরের উদ্বোধন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। প্রকল্প পরিচালক ও নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট কোম্পানী বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. শৌকত আকবর এসময় উপস্থিত ছিলেন। ১৫টিরও বেশী জেলা পরিভ্রমণ করে ২৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ঢাকায় শেষ হয়।

রসাটমের সাউথ এশিয়া মার্কেটিং (ইন্ডিয়া) প্রাইভেট লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী আন্দ্রেই শেভলিয়াকভ জানান, “পরমাণু শক্তি বিষয়ে রাশিয়া-বাংলাদেশ যৌথ কমুনিকেশন কর্মসূচীর আওতায় আমরা পরীক্ষামূলকভাবে এই বাস ট্যুরটির আয়োজন করেছি। উদ্যোগটির অভাবনীয় সাফল্য দ্বারা আমরা সত্যিই অনুপ্রাণিত এবং সামনের বছরগুলোতেও এজাতীয় বাস ট্যুর আয়োজনের বিষয়টি সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করছি”।

বিশেষভাবে সজ্জিত একটি যাত্রীবাহী মিনিবাস ‘নিউক্লিয়ার বাস’ পরিচয় নিয়ে ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী এবং চট্রগ্রাম বিভাগের ১৫টির অধিক জেলা পরিভ্রমণ করে। নিউক্লিয়ার বাসে ভ্রমণকারী ঢাকার পরমাণু শক্তি তথ্যকেন্দ্র (ICONE) এবং ঈশ্বরদীর পারমাণবিক তথ্যকেন্দ্রের (PIC) তরুন প্রকৌশলীরা বিভিন্ন জেলায় সাধারণ জনগনের জন্য ৩০টির অধিক রোড-সাইড ইভেন্টের আয়োজন করে। সকল বয়সের ৪,৮০০ এর অধিক মানুষ এসকল ইভেন্টে অংশগ্রহণ করে।

প্রতিটি ইভেন্টে তরুন পেশাদাররা অংশগ্রহণকারীদের সাথে ঘনিষ্টভাবে মতবিনিময় করেন। পরমাণু প্রযুক্তির ব্যাবহারের মাধ্যমে নিরাপদ ও পরিবেশ বান্ধব বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন এবং তাদের বিভিন্ন প্রশ্নেরও জবাব দেন।

অংশগ্রহণকারীদের জন্য বিজ্ঞান ভিত্তিক কুইজ প্রতিযোগিতা এবং গেমস ছিল ইভেন্টগুলোর অতিরিক্ত আকর্ষণ। সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণকারী এবং প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা পুরষ্কার হিসেবে বিভিন্ন সুভেনির লাভ করেন। এছাড়াও, আগ্রহীদের মধ্যে তথ্যমূলক লিফলেট ও বিভিন্ন পুস্তক বিতরণ করা হয়।

রাশিয়ার আর্থিক ও কারিগরী সহায়তায় ঈশ্বরদী জেলার রূপপুরে নির্মীত হচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে নির্মীয়মান দু’টি ইউনিটের প্রতিটিতে স্থাপিত হবে একটি করে ৩+ প্রজন্মের রুশ ভিভিইআর-১২০০ রিয়্যাক্টর। এই রিয়্যাক্টরগুলো সকল আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা চাহিদা পূরণে সম্পূর্ণভাবে সক্ষম।

Previous articleবাংলাদেশে একদিন যুদ্ধবিমান তৈরি হবে: প্রধানমন্ত্রী
Next articleকরোনার সুনামি আসছে: সতর্কবার্তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।