জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলার পঞ্চম ধাপের ১১টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪৮ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করেন। এদের মধ্যে ২২ জনের জামানত বাতিল হয়েছে। এসব প্রার্থী তাদের প্রাপ্ত ভোটের আট শতাংশ না পাওয়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার দু’জন প্রার্থী ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নয়জন রয়েছেন। বাকিরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দীতা করেছিলেন।

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপজেলার ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ অহিদুজ্জামান নৌকা প্রতীকে এক হাজার একশ’ ৭৪ ভোট পাওয়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

এছাড়া, ২৭৩ ভোট পেয়ে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ কবির আলমগীরের। সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত অলিয়ার রহমান নৌকা প্রতীকে ৫০৬ ভোট পাওয়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

এছাড়া জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী আকরাম খান (১৩৬৯ ভোট) ও আমানত আলী (১৭১ ভোট), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ইসমাইল হোসেনের (২৮৪ ভোট)। মজিদপুর ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আব্দুল লতিফ খান ৮৯৭ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন।

বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হজরত আলী ৪৬৩ ভোট ও মঙ্গলকোট ইউনিয়নে একই দলের মিজানুর রহমান মোড়ল ৭২২ ভোট এবং স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী এস এম কামরুজ্জামান ১১০৩ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন।

কেশবপুর সদর ইউনিয়নের মূলগ্রাম ভোট কেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত থাকায় সম্পূর্ণ ফলাফল প্রকাশ হয়নি। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ১২০৭ ভোট, আয়ুব আলী ১২৩ ভোট ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আনিছুর রহমান ২২৩ ভোট পাওয়ায় জামানত ফেরত পাবেন না বলে নির্বাচন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

পাঁজিয়া ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল হামিদ ১৯৫ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিহির কুমার বসু মাত্র ৭৫ ভোট, সুফলাকাটি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন মাত্র ২ ভোট ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আব্দুল আহাদ ১৫৬ ভোট পেয়ে জামানত খুইয়েছেন।

গৌরীঘোনা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম আলিমুজ্জামান রানা ১৭৩ ভোট, সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী সাইফুল ইসলাম ৩৪৮ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী উত্তম কুমার ঘোষ ১৪১০ ভোট এবং রেজাউল ইসলাম ১৩২৬ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছে।

হাসানপুর ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল গফফার মোড়লের মাত্র ১২১ ভোট পাওয়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। উপজেলা নির্বাচন অফিসার বজলুর রশিদ সাংবাদিকদের জানান, গ্রহণকৃত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ না পেলে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে থাকে।

Previous articleরোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে তুরস্ক
Next articleপীরগাছায় প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।