জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ব্যবহারিত সিল-প্যাড অধিক পুরাতন ও অস্পষ্টতা, মার্কা বুঝতে না পারা, ব্যালট পেপারে প্রার্থীর প্রতিক ছাড়া অতিরিক্ত প্রতিক থাকা এবং ভোটারদের অসাবধানতার কারণে ভোট কেন্দ্রে এবার ২ হাজার ৩ শত ৮৮ ভোট নষ্ট হয়েছে। এতে অনেক প্রার্থীরা হতাশ হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে, পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে কয়েকটি ঘটনা ছাড়া উপজেলায় ১১টি ইউনিয়নে সুষ্টভাবে ভোট হয়েছে। এর মধ্যে একটি ভোট কেন্দ্রে অনিয়ম হওয়ায় ৬ নং ইউনিয়নে ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে। উপজেলায় ১১টি ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৮৫ হাজার ৯ শত ৬৫টি।

এদের মধ্যে ১ নং ত্রিমোহনী ইউনিয়নে ১২ হাজার ১ শত ৭৬, নং সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নে ২৪ হাজার ৮ শত ৮৩, ৩ নং মজিদপুর ইউনিয়নে ১৯ হাজার ২ শত ৩৮, ৪নং বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নে ১৩ হাজার ৭ শত ৯৯, ৫ নং মংগলকোট ইউনিয়নে ১৮ হাজার ৯ শত ১৯, ৬ নং ইউনিয়নে ১৭ হাজার ৯৬, ৭ নং পাঁজিয়া ইউনিয়নে ২০ হাজার, ৮ নং সুফলাকাটি ইউনিয়নে ১৪ হাজার ৪শত ২৬, ৯ নং গৌরিঘোনা ইউনিয়নে ১৭ হাজার ৮২ ভোট, ১০ নং সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে ১৫ হাজার ৩শত ১৯ ও ১১ নং হাসানপুর ইউনিয়নে ১৩ হাজার ২৭ ভোট রয়েছে। কিন্তু পঞ্চম ধাপের ই্ধসঢ়;উপি নির্বাচনে কেশবপুরে বিভিন্ন ইউনিয়নে নির্বাচনে ব্যবহারিত সিল-প্যাড অধিক পুরাতন ও অস্পষ্টতা, মার্কা বুঝতে না পারা, ব্যালট পেপারে অতিরিক্ত মার্কা থাকায় এবং ভোটারদের(নতুন ভোটার) অসাবধানতার কারণে ২ হাজার ৩ শত ৮৮ ভোট নষ্ট হয়েছে। এ কারণে ভোটে অনেক ইউনিয়নের প্রার্থীরা হতাশ হয়েছে।

৫ নং মংগলকোট ইউনিয়নে সংরক্ষিত একটি মহিলা আসনে(১, ২ ও ৩ নং) ওয়ার্ডে বক ও জেব্রা প্রতিক পাশা-পাশি হওয়ায় জেব্রাকে বক মনে করে অনেক ভোটাররা জেব্রায় ভোট দিয়েছে। এতে ঐ ইউনিয়নে অনেক ভোট নষ্ট হয়েছে। ্ধসঢ়;ওই ওয়ার্ডের দ্বিতীয় স্থান অধিকারিনী প্রার্থী তানিয়া বলেন, আমার মার্কা ছিলো বক। জেব্রাকে বক মনে করে অনেক ভোটরা জেব্রায় ভোট দিয়েছে। এ কারণে আমার অনেক ভোট নষ্ট হয়ে গেছে। না হলে আমি ভোটে পাশ করতে পারতাম। গৌরিঘোনা ইউনিয়নের সলেমান বরেন, সিল-প্যাড অধিক পুরাতন ও অস্পষ্ট। সিলে কালি নিলেও তা দাড়াচ্ছে না। ফলে সিল মারলেও প্রতিকে বোঝা যাচ্ছে না। উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ বজলুর রহমান বলেন, ব্যালট পেপারে প্রার্থীর প্রতিক ছাড়া অতিরিক্ত প্রতিক হওয়ায় এ নির্বাচনে বেশি ভোট নষ্ট হয়েছে। ভোটররা একটু সচেতন হলে এ সমস্যা অনেকটা কম হতো।

উল্লেখ্য, কেশবপুর উপজেলায় ৬ নং ইউনিয়নে (সবচেয়ে বেশি) ৩৫০টি ভোট নষ্ট হয়েছে।

Previous articleতালেবানে চলছে শুদ্ধি অভিযান, আটক ২৫০০
Next articleবঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে ডাকটিকিট অবমুক্ত করলেন প্রধানমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।