ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: গতবছর ৩ বিঘা স্ট্রবেরি চাষ করে সব খরচ বাদ দিয়ে লাভ হয়েছিল ১৮ লাখ টাকা। সেই প্রেরণা থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর গ্রামের ইয়াসিন আলী এবছর ৬ বিঘা জমিতে চাষ করেছিলেন স্ট্রবেরি।

উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় গাছের যত্নও নিয়েছিলেন ভালোমত। থোকায় থোকায় এসেছিল ফল ও ফুল। সবমিলিয়ে ফলনও হয়েছিল বাম্পার। সবকিছু ঠিক থাকলে কয়েকদিনের মধ্যেই ফল উঠাতে শুরু করতেন ইয়াসিন আলী।

কিন্তু বুধবার (১২ জানুয়ারী) রাত সাড়ে ৯টার দিকে শুরু হওয়া শিলাবৃষ্টিতে সবকিছু শেষ হয়ে যায় ইয়াসিন আলীর। স্ট্রবেরির ক্ষেত নষ্ট হয়ে যায় আধা ঘণ্টার শিলাবৃষ্টিতে। গাছে দেখা ফুল-ফলসহ গাছ ধ্বংস হয়েছে রাতের শিলাবৃষ্টিতে। সদর উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের টিকরীর মাঠে এমনই কোটি টাকা লাভের স্বপ্ন নিয়ে স্ট্রবেরি চাষ করেছিলেন ইয়াসিন আলীর মতো আরও ৫ কৃষক।

এই ৬ কৃষকদের প্রায় ২০ বিঘা ফসলী জমি শেষ হয়েছে শিলাবৃষ্টিতে। একই মাঠে এতোগুলো স্ট্রেবিরে চাষের বাম্পার ফলন দেখতে বুধবার (১২ জানুয়ারী) দুপুরে চাষকৃত এলাকা পরিদর্শনও করে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। কিন্তু তার কয়েকঘন্টা পরেই সব স্বপ্ন তছনছ হয়ে যায় কৃষকদের। শিলাবৃষ্টিতে ক্ষয়ক্ষতি দেখতে বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারী) দুপুরে পুনরায় মাঠ পরিদর্শন করেছেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

টিকরীর মাঠে সদর উপজেলার মহারাজপুর গ্রামের ইয়াসীন আলি ছয় বিঘা, মোহাম্মদ আলী তিন বিঘা, আব্দুল মোমেন তিন বিঘা, আবু বক্কর দেড় বিঘা, আব্দুল জলিল দুই বিঘা, আব্দুস সালাম এক বিঘা এবং শিবগঞ্জ উপজেলার ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামের আনারুল তিন বিঘা স্ট্রবেরি চাষ করেন।

শিলাবৃষ্টিতে তাদের সকলের অবস্থা এখন একই রকম। অন্যের জমি ইজারা নিয়ে চাষাবাদ করছিলেন তারা। স্থানীয় বিভিন্ন এনজিও ও ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে স্ট্রবেরি চাষ করেছিলেন কৃষকরা। এই ক্ষতি পুষিয়ে নিয়ে পুনরায় চাষাবাদ করতে সরকারকে এগিয়ে আসার দাবি তাদের।

প্রথমবারের মতো তিন বিঘা স্ট্রবেরি চাষ করেছিলেন আনারুল ইসলাম। তিনি বলেন, একা রাতের আধা ঘণ্টার শিলাবৃষ্টিতে যে ক্ষতি হয়েছে, তাতে বাঁচার আর কোন সুযোগ নেই। সবকিছু শেষ হয়ে গেছে। ফুল, ফলসহ গাছ মাটির সাথে মিশে গেছে। গাছে ফুল, ফল দেখে মন ভরে যাচ্ছিল। ভাবছিলাম ১০ দিন পরেই গাছ থেকে স্ট্রবেরি সংগ্রহ করবো। কিন্তু তা আর হলো না।

কৃষক আব্দুল মোমেন জানান, জমিগুলো ইজারা নেয়ার পর ঋণ নিয়ে স্ট্রবেরি চাষ করেছিলাম। ৩ বিঘা স্ট্রবেরি চাষ করতে খরচ হয়েছিল ৬ লাখ টাকা। আশা করেছিলাম, সব খরচ বাদ দিয়ে লাভ থাকবে অন্তত ২০ লাখ টাকা। কিন্তু শিলাবৃষ্টিতে সব শেষ।

কথা ছিল ইয়াসিন আলী জমি থেকে বৃহস্পতিবার প্রথম স্ট্রবেরি তুলবেন। তিনি জানান, বুধবার বিকেলেও খুশি মনে জমি থেকে বাড়ি ফিরে গেছি। কারন এবছর স্ট্রবেরি চাষের আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বাম্পার ফলন এসেছিল। কিন্তু সবকিছু মাটিতে মিশে গেল।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তাসনুভা ইয়াসমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি বলেন, কৃষি অফিসের সহয়তায় বাম্পার ফলন হওয়ায় কালকেই স্ট্রবেরির মাঠ পরিদর্শন করেছিলাম। অথচ তার পরেরদিন নষ্ট হওয়া জমি দেখতে আসতে হয়েছে। রাতের শিলাবৃষ্টিতেই সব শেষ হয়ে গেছে। কৃষকদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। সরকারের পক্ষ ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের সহায়তার আশ্বাস দেন তিনি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, শিলাবৃষ্টিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুই উপজেলায় ফসলী জমির ক্ষতি হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার রানিহাটি, মহারাজপুর ও বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়ন এবং শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা, ছত্রাজিতপুর ও ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, শিলাবৃষ্টিতে দুই উপজেলার ৮১২ হেক্টর ফসলী জমির ক্ষতি হয়েছে। গম, সরিষা, ডালজাতীয় বিভিন্ন ফসল, সবজি, পেঁয়াজ, রসুন, বরই ও বীজতলার ক্ষতি হয়। আগামী কয়েকদিন রোদ উঠলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কিছুটা কমবে বলে জানান তিনি।

Previous articleক্যান্সারে আক্রান্ত মেধাবী ছাত্র নাঈমের বাঁচার আকুতি
Next articleসিংগাইরে অজ্ঞাত নারী অর্ধগলিত বস্তাবন্দি মৃতদেহ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।