ওসমান গনি: কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার ফসলের মাঠ জুড়ে নিরাপদ সবজির দৃষ্টি নন্দন সবুজ সমারোহ। পৌরসভার বিভিন্ন গ্রামে ফসলের মাঠে পাঁচশত জন সবজি উৎপাদনকারী কৃষকের পরিশ্রমের ফসল ওই নিরাপদ সবজি পাচ্ছেন ক্রেতারা। ইতোমধ্যে বাজারে বিক্রয় শুরু করেছেন কৃষকরা। এখানে সবজি উৎপাদনের ক্ষেত্রে রাসায়নিক সার ব্যবহার না করে জৈব সার ও জৈব বালাইনাশক ব্যবহার করছে কৃষকরা। ফলে এসব সবজি স্বাস্থ্য সম্মত।

কুমিল্লা সর্ব বৃহৎ সবজির হাট নিমসার বাজার, রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন হাট-বাজারে যাচ্ছে স্বাস্থ্য সম্মত এসব সবজি। অর্গানিক ফুড বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান, অর্গানিক সবজি আড়ৎসহ বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে বাজারজাত করছে চান্দিনায় উৎপাদিত ওই নিরাপদ সবজি গুলো।

২০২১-২০২২ অর্থ বছরে পরিবেশ বান্ধব কৌশলের মাধ্যমে নিরাপদ ফসল উৎপাদন প্রকল্পের আওতায় ‘আইপিএম মডেল ইউনিয়ন’ কার্যক্রম চলমান রয়েছে এ উপজেলায়। ওই কার্যক্রমের আওতায় চান্দিনা পৌরসভার বিভিন্ন গ্রামে ৫০০ জন কৃষক মানুষের খাদ্য চাহিদা মিটাতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। চান্দিনা উপজেলা কৃষি বিভাগ তাদেরকে নিরাপদ ফসল উৎপাদনের বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে যাচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার মনিরুল হক রোমেল জানান, ‘আইপিএম মডেল ইউনিয়ন’ এর আওতায় ২৫জন কৃষক সদস্য নিয়ে গঠিত ২০টি গ্রুপের ৫০০ জন কৃষকের মালিকানাধীন ১০০ একর জমিতে চলতি মৌসুমে টমেটো, বাঁধাকপি, ফুলকপি, লাউ, চাল কুমড়া, মিষ্টি কুমড়া, বরবটি, করলা, ঢেড়স, বেগুন সহ বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ করা হয়েছে।

জানা যায়, কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলা একটি ঘনবসতি পূর্ণ উপজেলা। সবজি উৎপাদনে এ উপজেলার কৃষকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এখানকার জমি সবজি উৎপাদনে খুবই উর্বর। অনুকূল আবহাওয়া থাকায় এবছর উৎপাদনও ভালো। উপজেলা কৃষি অফিসার মনিরুল হক রোমেল, উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মো. মনির আহাম্মদ এবং উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. গোলাম সারওয়ার নিরাপদ সবজি উৎপাদনে কৃষকদের সার্বক্ষণিক পরামর্শ প্রদান করে যাচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, নিরাপদ ফসল উৎপাদনের লক্ষে কৃষকদের মাঝে বিভিন্ন প্রকার জৈব বালাইনাশক যেমন- হলুদ ফাঁদ, ফেরোমেন ফাঁদ, ফাইটোম্যাক্স, ফাইটোক্লিন, সয়েল রিচার্জ, ডায়নামিক, এসএনপিভি, কিউফেরো, বিএসবি ফেরো, স্পোডোলিউর সহ অন্যান্য উপকরণ বিতরণ করা হয়।

এব্যাপারে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. গোলাম সারওয়ার জানান, বিভিন্ন জৈব বালাইনাশক ব্যবহারে কৃষকদের মধ্যে বেশ আগ্রহ ও সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। আইপিএম মডেল ইউনিয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের মাধ্যমে চান্দিনা পৌরসভার সবজি চাষীরা নিরাপদ ফসল উৎপাদনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। তিনি আরও বলেন- নিরাপদ সবজি চাষের মধ্য দিয়ে কৃষকরা আর্থিকভাবে নিজেদের ভাগ্য উন্নয়নে সক্ষম হবে বলে আমরা আশাবাদী।

এদিকে স্থানীয় কৃষকদের মাঝে রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রবণতা রয়েছে। তাদের স্বাভাবিক ধারনা রাসায়নিক সার ব্যবহারে ফসল উৎপাদন বেশি হয়। কিন্তু জৈব সার ও জৈব বালাইনাশক ব্যবহারে ভালো সুফল পাচ্ছেন নিরাপদ সবজি উৎপাদনকারী কৃষকরা। তাদের মধ্যে এখন রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রবণতা নেই।

এব্যাপারে পৌর এলাকার বড় গোবিন্দপুর গ্রামের নিরাপদ সবজি চাষী জহিরুল ইসলাম ভূইয়া জানান, তিনি ১শত ২০ শতাংশ জমিতে টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ ও মিষ্টি কুমড়া চাষ করেছেন। এতে তার ৩০ হাজার টাকা খচর হয়। ইতোমধ্যে তিনি উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে ১ লাখ ৫০ টাকা আয় করেছেন। তিনি আরও জানান, মৌসুমের শেষ পর্যন্ত আরও ১ লাখ টাকার সবজি বিক্রি করতে পারবেন তিনি।

ক্রেতাদের স্বাস্থ্য সম্মত খাদ্য চাহিদা মিটাতে নিরাপদ সবজি যেমন কাজে লাগছে তেমনি চাষীরাও লাভের মুখ দেখছে। ফলে নিরাপদ সবজি চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের।

Previous articleচিত্রনায়িকা শিমুকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে স্বামী: পুলিশ
Next articleহত্যা নাকি আত্মহত্যা, কবর দেয়ার ৫ মাস পর শ্রমিকের লাশ উত্তোলন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।