বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে মাদ্রাসার এক অফিস সহকারী সিঙ্গাপুরে অবস্থান করেই চাকুরি করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকার প্রদত্ত মাসিক বেতন- ভাতা (এমপিও) কপিতেও বিল আসছে নিয়মিত।

উপজেলার গাছুয়া ইউনিয়নের ইসলামাবাদ নেছারিয়া আলিম মাদ্রাসার অফিস সহকারী মো. আরাফাত হোসেন ওরফে শাহাদাত হোসেনের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ওঠে।

আরাফাত হোসেন ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাও. ইয়াসিন মুনিরের ছেলে। তাই প্রবাসে থেকেও তার চাকুরি বহাল রয়েছে বলে জানিয়েছেন মাদ্রাসার শিক্ষার্থী অভিভাবকরা। তবে আরাফাত হোসেন চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে গেছেন বলে দাবি করেছেন অধ্যক্ষ। স্থানীয়রা জানান, ইসলামাবাদ নেছারিয়া মাদ্রাসাটি প্রথমে দাখিল পর্যন্ত অনুমোদিত হয়। ৪/৫ বছর আগে অধ্যক্ষ মাদ্রাসাটিকে আলিম স্তরে উন্নীত করার জন্য চেষ্টা শুরু করেন। ওই সময় আলিম স্তরের জন্য কিছু শিক্ষক ও কর্মচারি নিয়োগ দেন তিনি। সেই সাথে নিজের সিঙ্গাপুর প্রবাসী ছেলে আরাফাত হোসেনকেও অফিস সহকারী হিসেবে নিয়োগ দেন। পরবর্তীতে মাদ্রাসাটি আলিম স্তরে এমপিওভুক্ত হলে আরাফাত হোসেন সিঙ্গাপুর থেকে ছুটি নিয়ে দেশে আসেন।

২০২১ সালের প্রথম দিকে কয়েক মাস মাদ্রাসায় দাপ্তরিক কাজ করেন। সেই সময় সরকারি বেতন ভাতা উত্তোলন করেছেন। পরবর্তীতে ওই বছর মে-জুন মাসে আবার সিঙ্গাপুর চলে যান আরাফাত। মধ্য গাছুয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, মাদ্রাসার অফিস সহকারী আরাফাত হোসেন দেশ ছেড়ে চলে গেলেও তার পদটি শূণ্য করা হয়নি। নতুন কোনো অফিস সহকারী নিয়োগ দেওয়া হয়নি। সেই হিসেবে আরাফাত এখন পর্যন্ত মাদ্রাসায় কর্মরত রয়েছেন। এছাড়া একজন অফিস সহকারীর অনুপস্থিতিতে মাদ্রাসার বিভিন্ন দাপ্তরিক কাজেও সমস্যা হচ্ছে।

এব্যাপারে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাও. ইয়াসিন মুনির বলেন, আরাফাত হোসেন আমার ছেলে এবং মাদ্রাসার অফিস সহকারী হিসেবে চাকুরি করছে। সে চিকিৎসার জন্য ছুটি নিয়ে সিঙ্গাপুর গিয়েছে। বর্তমানে তার বেতন-ভাতা স্থগিত রাখা হয়েছে। চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে মাদ্রাসায় যোগদান করতে পারে। তবে কতদিনের ছুটি দেওয়া হয়েছে কিংবা কবে দেশে ফিরবে সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি অধ্যক্ষ।

মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সভাপতি ও উপজেলা জাতীয় পার্টি (জাপা) সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর আরিফ হোসেন সরদার বলেন, মাদ্রাসার অফিস সহকারীর প্রবাসে অবস্থান করার বিষয়টি আমার জানা নাই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম জানান, প্রবাসে অবস্থান করে মাদ্রাসায় চাকুরি করার বৈধতা নেই। ইসলামাবাদ নেছারিয়া আলিম মাদ্রাসার অফিস সহকারীর বিদেশ যাওয়ার বিষয়টি আমাদের জানা নেই। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleবিচারকের যে রায়ে মুগ্ধ হয়ে মুসলিম হন ইহুদি
Next articleউল্লাপাড়ায় সমলয় চাষাবাদ পদ্ধতি বোরো ধানের চারা রোপণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।