শফিকুল ইসলাম: সপ্তম ধাপে আগামী ৭ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কুসুম্বা ও আওলাই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের কোনঠাসা করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তাঁদেরকে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে বাঁধা, পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলা, কর্মী-সমর্থকদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

আওলাই ইউনিয়নের প্রতিটি ওর্য়াডের সংরক্ষিত ও সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নিজেদের পাশাপাশি নৌকার প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইতে শপথও করানো হয়েছে। শপথের ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। শপথের ঘটনাকে নির্বাচনী আচরণবিধির সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন বলে ওই দুটি ইউপির রিটার্নি ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন।

ওই দুটি ইউনিয়নে গিয়ে জানা গেছে, আওলাই ও কুসুম্বা ইউনিয়নে সরকার দলীয় প্রার্থীদের পোষ্টারের ছড়াছড়ি থাকলেও বেশি ভাগ স্থানেই স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পোষ্টার নেই। আবার আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীরা উৎসবমূখর পরিবেশে নির্বাচনী প্রচারণা চালালেও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা তা পারছেন না। এই দুটি ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা এক প্রকার কোণঠাসার মধ্যে রয়েছেন। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীর পক্ষে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতারা নিয়মিত প্রচারণা অংশ নিচ্ছেন। তাঁরা পথসভায় বক্তব্যে দিচ্ছেন। অন্যদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও তাঁদের কর্মী-সমর্থক এবং ভোটারদের মধ্যে শঙ্কা বিরাজ করছে। আওলাই ইউনিয়নের সংরক্ষিত ও সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নৌকার প্রার্থীর পক্ষে ভোট করার শপথ করানো হয়েছে।

ইউপি নির্বাচনে ৫-৬ টি ইউপিতে দলীয় প্রার্থীকে জিতিয়ে আনায় দলটির নেতা কর্মীদের ‘ম্যাজিক ম্যান’ উপাধি পাওয়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী ওরফে অবসর এই শপথ করিয়েছেন। তিনি শপথের ভিড়িও কয়েক দিন আগে তাঁর নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে আপলোড করেছেন। অনেকেই শপথের ভিডিও শেয়ার করেছেন। শপথের ৩টি ভিডিও এই প্রতিনিধি কাছে এসেছে। একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছিল, চার জন সাধারণ সদস্য ও একজন নারী সদস্য প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে একটি কক্ষের ভেতর জড়ো করা হয়েছে। সেখানে তাঁরা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী ও পাঁচবিবি পৌরসভার মেয়র ও পাঁচবিবি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমানের হাতে হাত রেখে শথপ করছেন। গোলাম মাহফুজ চৌধুরী তাঁদের শপথ বাক্য পাঠ করাচ্ছিলেন। গোলাম মাহফুজ চৌধুরীকে বলতে শোনা যায়, আমরা সকল মেম্বার প্রার্থী শপথ করেছি যে যেই যেই দল করি না কেন আওলাই ইউনিয়নের মানুষের বিশেষ করে ছয় নম্বর ওর্য়াডের মানুষের ভাগ্য পরির্বতনের স্বার্থে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী ইব্রাহিম সরকারের পক্ষে নৌকার পক্ষে আজ থেকে ৭ তারিখ পর্যন্ত বিজয়ী করবার জন্য আমাদের ভোটের পাশাপাশি নৌকার ভোট নিশ্চিত করব ইনশাল্লা। জয়বাংলা-জয়বঙ্গবন্ধু। এসব প্রতিদ্বন্দ্বী সদস্যরা প্রাথীরা তাঁর সঙ্গে সম সূরে ওই কথাগুলো বলছিলেন। আরেকটি ভিড়িওতে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঠে দুই জন সাধারণ সদস্য পদ প্রার্থীকে একইভাবে তিনি শপথ করাচ্ছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওলাই ইউপির প্রতিদ্বন্দ্বী দুই সদস্য প্রার্থী বলেন, আমরা নিরুপায় হয়ে অনেকটায় স্বেচ্ছায় শপথ করেছি। এটাছাড়া আমরা নির্বাচনের মাঠে থাকতে পারব না। আমাদের মতো ইউনিয়নের সব ওর্য়াডের সদস্য প্রার্থীদের শপথ করানো হয়েছে।

আওলাই ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থী একরামুল হক চৌধুরী বলেন, আমাকে প্রচারণা চালাতে দিচ্ছে না। নির্বাচনের দিন কোন কেন্দ্রেই আমার এজেন্ট থাকতে দেবে না বলে ঘোষনা দিয়েছে। আবার সদস্য প্রার্থীদের ব্যালেট গোপনে আর চেয়ারম্যানদের ব্যালেটে প্রকাশ্যে সিল নেওয়ার কথা প্রচার করছে। এতে ভোটারেরা বিভ্রান্তি পড়েছে। সব ওর্য়াডের প্রতিদ্বন্দ্বী সদস্যদের নৌকার পক্ষে ভোট করার শপথ করানো হয়েছে। নৌকার প্রার্থী ও তাঁর লোকজনের এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে। এসব ঘটনায় রির্টানিং কর্মকর্তার লিখিত অভিযোগ করেছি। কোনো কাজ হয়নি।

ওই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আজিজুল হক বলেন, নির্বাচনী প্রচারণায় চালাতে পারছি না। নির্বাচনে বহিরাগত লোকজন আসছে কেন সেটি প্রশাসনের কাছে জানতে চাই। যে পরিবেশ তাতে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কায় রয়েছি।

আওলাই ইউপির আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী এস,এম ইব্রাহিম হোসাইন বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অভিযোগ সত্য নয়। তাঁরা নিজেদের পরাজয় জানতে পেরে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

কুসুম্বা ইউপির স্বতন্ত্র কুসুম্বা ইউপির স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মুক্তার হোসেন হোসেন মন্ডল বলেন, আমাকে প্রচারণা চালাতে দেওয়া হচ্ছে না। আমার কর্মী-সমর্থকদের ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে। ফেসবুক লাইভে এসে আমাকে গুলি করে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী জিহাদ মন্ডল এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ইউপি সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করানো বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী বলেন, কাউকে জোর করে শপথ করানো হয়নি। তাঁরা নিজেরাই নৌকার পক্ষে কাজ করার অঙ্গিকার করে আমার কাছে শপথ করেছেন।

রির্টানিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, আওলাই ইউপিতে ওর্য়াডে-ওয়াডে প্রতিদ্বন্দ্বী সদস্য প্রার্থীদের শপথ করানোর বিষয়টি আমার কানেও এসেছে। তবে কেউ এব্যাপারে অভিযোগ করেননি। এ ঘটনাটি নির্বাচনী আচরণবিধির সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন। এছাড়া স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিভিন্ন অভিযোগ এনে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। সেই অভিযোগগুলো নির্বাচনে নিয়োজিত নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) অবহিত করেছি। তিনি জানান, এই দুটি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে মোট নয় জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এরমধ্যে কুসুম্বা ইউপিতে দুই জন আর আওলাই ইউপিতে ৭ জন। এই দুই ইউপিতে মোট ভোটার ৪৮ হাজার ২২৯ জন।

Previous articleনুডলস চুরির অভিযোগে যুবককে খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন
Next articleকলাপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জন নিহত, আহত ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।