জয়নাল আবেদীন : প্রায় শতভাগ পাশের তালিকায় ওরা পাশই করেনা। দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধীন ঠাকুররগাঁও জেলার পীরগঞ্জ এবং রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলার বড়াইবাড়ী কলেজ থেকে একজনও পাশ করেনি অথচ রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার উজ্জল ।

শারীরিক নানান প্রতিবন্ধকতার সঙ্গে যুদ্ধ করে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলো । অন্য দশ জন শিক্ষার্থী হাতে লিখে পরীক্ষা দিলেও জোবায়ের হোসেন উজ্জ্বল মুখ দিয়ে উত্তরপত্র লিখে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয় । অতপর মেধাযুদ্ধে ৪.৫৮ পয়েন্ট নিয়ে কৃতিত্বের সঙ্গে কৃতকার্য হয়েছে।

গতকাল সোমবার ছিলো এই দুটো বিষয় নিয়ে রংপুরে টক অবদ্যা টাউন । উজ্জলের হাতও আছে পা ও আছে। কিন্তু তা অকেজো। মনে ও প্রাণে শক্তি আছে কিন্তু দাঁড়াতে পারে না। তাছাড়া স্পষ্টভাবে কথাও বলতে পারে না সেই যুবক। রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার বালারহাট আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষায় অংশ নেয় জোবায়ের হোসেন উজ্জ্বল।‌ নিজের সাফল্যে আত্মহারা অদম্য এই শিক্ষার্থী। হতে চায় কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার। আরও পড়ালেখা করতে চায়, কিন্তু এ কথা বোঝাতে গিয়ে কষ্টের যে অভিব্যক্তি তার চোখেমুখে ফুটে উঠল তা দেখলে যে কারও মন কেঁদে উঠবে।

উপজেলার বালারহাট ইউনিয়নের হযরতপুর গ্রামের দরিদ্র কৃষক জাহিদ সারোয়ারের তিন সন্তানের মধ্যে উজ্জ্বলদ্বিতীয়। জন্মের পর থেকে নানা রকম শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় বেড়ে ওঠে উজ্জ্বল। নিজ বিছানাকে শ্রেণিকক্ষ বানিয়ে দিনরাত মুখে কাঠি নিয়ে বইয়ের পৃষ্ঠা উল্টিয়ে চলত পড়াশোনা। শুধু তাই নয়, মুখ দিয়ে মোবাইল ফোন চালিয়ে অনলাইনে ক্লাসও করত। মুখে কাঠি নিয়ে কিবোর্ডে আঁচড় ফেলে কম্পিউটারে টাইপ করত।উজ্জ্বলের বাবা জাহিদ বলেন, মেট্রিক পাস করার পর উজ্জ্বলকে বালারহাট কলেজে ভর্তি করাই। করোনার কারণে অটোপাস দেওয়ার খবরে তার মন খারাপ ছিল। তার ইচ্ছা ছিল, পরীক্ষা দিয়ে সে এইচএসসি বাধা টপকাবে। পরে সশরীরে পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত শুনে সে দারুণ খুশি হয়েছিল। বাসা থেকে দুই কিলোমিটার দূরে অটোরিকশায় শুয়ে সে পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়া-আসা করত। কেন্দ্রে বিছানায় শুয়ে সব পরীক্ষা দেয় উজ্জ্বল।

উজ্জ্বল বলেন, সব প্রতিকূলতাকে হারিয়ে এভাবেই সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। আরও পড়ালেখা করে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই। আমার হাত-পা অচল, স্পষ্ট করে কথা বলার শক্তি নেই। তারপরও থেমে থাকিনি, ভালো কিছু করার স্বপ্ন দেখেছি। এখন স্বপ্নপূরণে সবার ভালোবাসা ও সহযোগিতা চাই। বালারহাট আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মো. আলাউদ্দিন বলেন, বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধী হওয়ার পরও উজ্জলের লেখাপড়ার টান দেখে শুয়ে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য বোর্ড থেকে অনুমতি নেওয়ার ব্যবস্থা করেছি। ও আজ শুধু ওর পরিবারের নয় গোটা উপজেলার গর্ব ।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান-সদস্যদের শপথ গ্রহণ
Next articleসোনারগাঁও যুব মহিলা লীগের উদ্যোগে সোনারগাঁও পৌরসভায় বসন্ত বরণ ও পিঠা উৎসব
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।