বাংলাদেশ প্রতিবেদক: লক্ষীপুরের আলোচিত কিশোর অটোরিকশা চালক ইয়াছিনের অটোরিকশা চুরির ঘটনায় ৫জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব-১১।

গ্রেফতারকৃতরা হলো আন্তঃজেলা চোরচক্রের সদস্য লক্ষীপুর জেলার লাহারকান্দি ইউনিয়নের আবুল কালামের ছেলে মো.রুবেল হোসেন (৩০) একই ইউনিয়নের আহছান উল্যার ছেলে মো.নিজাম উদ্দিন (২৪) ও অলি আহম্মদের ছেলে মো.হেলাল উদ্দিন (৪৫) লক্ষীপুর জেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের শাহ মো.ছবিউল করিমের ছেলে শাহ মো.মঞ্জুরুল করিম ওরফে নাঈম (৩১) নোয়াখালী সদর উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো.আব্দুল জলিল (৫২)।

বুধবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) ভোর রাতে নোয়াখালী ও লক্ষীপুর জেলায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেফতার করে র‌্যাব।

একই দিন দুপুর পৌনে ১টার দিকে র‌্যাব-১১, (সিপিপি-৩) লক্ষীপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার মো.শামীম হোসেন এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ওই প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, গ্রেফতারকৃত আসামী মো.আব্দুল জলিলের দেয়া তথ্য মতে নোয়াখালী জেলার সদর উপজেলার ৫নং বিনোদপুর ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ডের কাদির হানিফ গ্রামের হুজু মিয়ার বাড়ীর রুবেলের গ্যারেজ থেকে ইয়াছিনের চুরি হওয়া ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা উদ্ধার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, অটোরিকশাটি চুরি করে নোয়াখালী জেলার সদর থানার মাইজদী এলাকায় অপর ২ আসামী নাঈম ও জলিলের কাছে নগদ ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়। উদ্ধারকৃত অটোরিকশা এবং আসামী রুবেল ও নিজামকে চালক ইয়াছিন সনাক্ত করে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগকারী মো.জনি লক্ষ্মীপুর জেলার সদর থানায় বাদী হয়ে এজাহার দায়ের করেন।

উল্লেখ্য, গত ৬ ফেব্রুয়ারি সকাল অনুমান ১১টার দিকে চালক মো.ইয়াছিন আরাফাত (১৪) অটোরিকশা নিয়ে লক্ষীপুরের ভবানীগঞ্জ চৌরাস্তার মাথায় পৌঁছলে গ্রেফতারকৃত আসামী রুবেল হোসেন,নিজাম উদ্দিন পরিকল্পিত ভাবে ভবানীগঞ্জ বাজারের উদ্দেশ্যে তার অটোরিকশা ভাড়া করে বিভিন্ন এলাকায় অটোরিকশা ঘুরায়। দুপুর অনুমান দেড়টার দিকে চালক মো.ইয়াছিন আরাফাত অটোরিকশার আসামীদ্বয়কে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থল লক্ষ্মীপুর জেলার সদর থানাধীন হলবান মসজিদের পশ্চিম পাশের্^ ৬ তলা বিল্ডিংয়ের সামনে পৌঁছলে আসামী মোঃ রুবেল হোসেন ৬ তলা বিল্ডিং এর ৩য় তলা হতে সাউন্ড বক্স আনার জন্য চালক ইয়াছিনকে বলে। তখন চালক মো.ইয়াছিন আরাফাত অটোরিক্সাটি আসামীদ্বয়ের হেফাজতে রেখে ৩য় তলায় সাউন্ড বক্সের জন্য যায়। রুবেল তার ব্যবহৃত মোবাইল নং- ০১৮৭৬৬১৪৬৫৭ হতে ইয়াছিন এর ০১৮৭০০৪৫৮২৫ নাম্বারে ফোন করে ৩য় তলার রুমের কথা বলতে থাকে। চালক মো. ইয়াছিন আরাফাত বিল্ডিংয়ের ৩য় তলায় গিয়ে কাউকে দেখতে না পেয়ে পুনরায় বিল্ডিংয়ের নিচে এসে দেখতে পায় তার অটোরিকশাটি নেই। রুবেল এর নাম্বারে কল দিলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। উক্ত ঘটনাটি দেশজুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যপক ভাইরাল হয়।

Previous articleঈশ্বরদীতে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী উদ্বোধন
Next articleনোয়াখালীর জেলা শহরে ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।