রায়পুর-খাসেরহাট সড়কের বংশী ষ্টিল ব্রীজ সংলগ্ন ডাকাতিয়া নদীর তীরে বেশ কিছু খাবার হোটেল ও বিভিন্ন দোকানের বর্জ্য ফেলা হচ্ছে।

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ডাকাতিয়া নদীর তীরে নির্বিচারে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য। এসব বর্জ্য গড়িয়ে নদীর পানিতে মিশে যাচ্ছে। দূষিত হচ্ছে পরিবেশ ও নদীর পানি। অন্যদিকে-নদি দখল করে বড় বড় ইমারত নির্মান করছেন প্রভাবশালীরা। রোববার আগে ইউএনও অনজন দাশের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে ডাকাতিয়া নদীর শহরের ধানহাটা এলাকায় কয়েকটি অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। এতে সবাই আতংকিত হয়।

স্থানীয় লোকজন জানান, রায়পুর-খাসেরহাট সড়কের বংশী ষ্টিল ব্রীজ সংলগ্ন ডাকাতিয়া নদীর তীরে বেশ কিছু খাবার হোটেল ও বিভিন্ন দোকান গড়ে উঠেছে। এসব হোটেলের বর্জ্য নদীতে ফেলা হচ্ছে। এ কারণে নদী ও পরিবেশও দূষিত হয়ে পড়ছে। একসময় ঢাকা থেকে মেঘনা নদী হয়ে ডাকাতিয়া নদী দিয়ে রায়পুর হয়ে নৌপথে যাতায়াত করত মানুষ। কিন্তু এখন আর সেই অবস্থা নেই। নদীতে বর্জ্য ও ময়লার স্তূপ থাকায় দুর্গন্ধে পানির কাছে যাওয়া যায় না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আশির দশকে ঢাকায় যাতায়াতের জন্য ডাকাতিয়া নদীপথে লঞ্চ ও বড় ট্রলার ছিল এলাকাবাসীর একমাত্র বাহন। আর ব্যবসায়ীদের যাবতীয় মালামাল আনা-নেওয়া করা হতো নৌকায়। উপজেলার সহকারি কমিশনারের কার্যালয় (ধান হাটা) টার্মিনাল থেকে সদরঘাট পৌঁছাতে সময় লাগত প্রায় ছয় ঘণ্টা। এরপর স্থলপথের উন্নয়নে কিছু পরিবর্তন আসে। স্থলপথে এখন তিন ঘণ্টায় ঢাকায় পৌঁছাতে পারলেও নদীপথের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকাবাসী।

নদীভাঙন ও বন্যার কবল থেকে রায়পুরের চার ইউনিয়নবাসিকে রক্ষা করতে সরকার মেঘনার মুখে বেরিবাঁধ এলাকায় বাঁধ নির্মিত হয়েছিলো। ফলে নদীপথ বন্ধ হয়ে যায়। নদীপথ বন্ধ হওয়ায় অবহেলিত ডাকাতিয়া এখন ময়লা-আবর্জনায় ভরে গেছে। স্থানীয় খাবার হোটেলসহ অ-সচেতন ব্যবসায়ীরা কাঁচা বাজারের ময়লা-আবর্জনা নদীতে ফেলে দেন। এছাড়াও শহরের ধানহাটা এলাকায় নদীর অংশে বাজারের হোটেলসহ বাসাবাড়ির সকল বর্জ্যও নদীতে ফেলা হচ্ছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, নদীতে বর্জ্য ফেলায় তাঁদের অনেক অসুবিধা হচ্ছে। তার মধ্যে আবার ইচ্ছাকৃতভাবে নদীতে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। তাঁদের দাবি, ময়লা-আবর্জনা ফেলা বন্ধ করার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ নেওয়া জরুরি। সরকার রায়পুর-হায়দরগঞ্জ সড়কের বাঁধের মুখে জলকপাট (স্লুইসগেট) নির্মাণ করে দিলে এলাকাবাসীর সুবিধা হবে। সেই সঙ্গে বর্ষা মৌসুমে পানি ছাড়লে কৃষিজমি পলি জমবে।

রায়পুরের অন্যতম সমাজকর্মী লেখক আবদুর রব যুগান্তরকে বলেন, ‘এই উপজেলায় কিছু লোক তাদের ব্যক্তিগত স্বার্থের জন্য হোটেলসহ বাসাবাড়ি নির্মাণ করে আমাদের প্রাণের ডাকাতিয়া নদী দূষণ করছে। এটা জনগণ মেনে নেবে না। প্রশাসন যদি বিষয়টি আমলে নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। তা না হলে জনগণ আন্দোলন গড়ে তুলবেন।’

রায়পুরে বংশী ষ্টিল ব্রীজ,শহরের ধানহাটা, বাঁধের দুই পাশের ও হায়দরগঞ্জ বাজার-সহ উপজেলার কয়েকজন হোটেল ও বাসার মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা ডাকাতিয়া নদীতে বর্জ্য ফেলার কথা স্বীকার করেন এবং ভুল হয় বলেন।

ডাকাতিয়া নদী বাঁচাতে ফেস্টুন, ব্যানার নিয়ে ‘ডাকাতিয়াকে বাঁচাও’ নামে একটি সংগঠন আন্দোলন-সংগ্রাম ও মানববন্ধন করছে। তাদের মতে, দেশের পানি উন্নয়ন বোর্ড ও পরিবেশবিদেরা যদি দৃষ্টি দেন তাহলে শুধু ডাকাতিয়া নদী নয়, বেঁচে যাবে দেশের অন্যান্ন নদী ও খালগুলো।

এ বিষয়ে রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অনজন দাশ যুগান্তরকে বলেন, খাবার হোটেল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসাবাড়ির বর্জ্য নদীতে না ফেলার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে বলা হয়েছে। তারপরও কেউ ফেললে খোঁজ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleশিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক থাকছেন জায়েদ খান
Next articleভাসানচরে রোহিঙ্গা যুবকদের সবজি বাগানে ইয়াবার কারবার, আটক ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।