ফজলুর রহমান: রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলায় প্রথমবারের মতো ব্রোকলী (সবুজ ফুলকপি) চাষ করে সফল চাষী নুরুন্নবী। উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্দ্যোগে সবুজ রংয়ের ফুলকপি ১৫ শতক জমিতে চাষ করে লাভবান হয়েছেন তিনি।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সয়ার ইউনিয়নের দামোদরপুর ব্লকের চাষী নুরুন্নবীর চাষকৃত সবুজ এই ফুলকপির প্রকৃত নাম ব্রোকলি। এটি আমাদের দেশে নতুন জাত। ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন এলাকায় এই ব্রোকলি চাষ হয়ে আসলেও তারাগঞ্জ উপজেলায় এই জাতের কপি চাষ এটাই প্রথম। ওই কৃষককে ব্রোকলি চাষে উদ্বুদ্ধ করার মাধ্যমে তারাগঞ্জ উপজেলায় এই ব্রোকলী চাষের সূচনা হলো। আর এই সূচনা লগ্নেই ব্রোকলি চাষ করে বাজিমাত করেছে চাষী নুরুন্নবী।

উপজেলা কৃষি অফিস থেকে ওই চাষীকে ১ হাজার ২৬০টা ব্রোকলী কপির চারা, ৫০ কেজি ইউরিয়া সার, ডিএপি সার ২৫ কেজি, এমওপি সার ২৫ কেজি, জিপসাম সার ১০ কেজি আর বোরোন ১ কেজি দেয়া হয়েছে। এছাড়াও তাকে পোঁকা দমন করার জন্য সেক্স ফেরোমন ফাঁদও দেয়া হয়। সম্প্রতি, রংপুর বিভাগের কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ২০২১- ২২ বছরের রবি মৌসুমে উচ্চ মূল্য সবজি প্রদর্শনী হিসেবে সয়ার ইউনিয়নের দামোদরপুর ফকিরপাড়া সবজি ফসল কৃষক গ্রুপের সদস্য চাষী নুরুন্নবীকে ২০২১ সালে ডিসেম্বর মাসে (হাইব্রিড) জাতের ব্রোকলী ফসলের চারা ও কৃষি উপকরন দেয়া হয়। ব্রোকলী চারা রোপন থেকে শুরু করে মাত্র আড়াই মাসেই একেকটি ব্রোকলীর ওজন হয়েছে প্রায় দুই কেজি পর্যন্ত। যা বাজারে দেশীয় সাদা ফুলকপির থেকে প্রতিটি প্রায় ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি মূল্যে বিক্রি করছে কৃষক।

ব্রোকলী চাষী নুরুন্নবীর সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস থেকে বিনামূল্যে সার ও চারা পাওয়ায় তিনি ব্রোকলী চাষে উদ্বুদ্ধ হন। ১৫ শতাংশ জমিতে নিজ তহবিল থেকে ৫শ ৫০ টাকা ব্যয় করে ব্রোকলী চাষ করে এবছর আয় হবে অন্তত ৩০ হাজার টাকা বলে তিনি জানান। ব্রোকলী বাজারজাত করণের লক্ষ্যে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ক্ষেত থেকে ব্রোকলী সংগ্রহ করা হয়। এদিনে ব্রোকলী চাষ পরিদর্শন করেন রংপুর বিভাগ কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের সিনিয়র মনিটরিং অফিসার আবু ফাত্তাহ্ধসঢ়; মোঃ রওশন কবীর। তিনি ব্রোকলী চাষ দেখে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেন এবং এর বাজারজাত করণের প্রক্রিয়া সম্পর্কে কৃষককে পরামর্শ প্রদান করেন। সয়ার দামোদরপুর ব্লকের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা শ্যামলী আক্তার বলেন, কৃষক নুরুন্নবী প্রতি বছর ফুলকপি চাষ করেন। তবে আমি খেয়াল করে দেখেছি যে তিনি নতুন জাতের ফসল চাষে বেশি আগ্রহী। তাই আমি

তাকে ব্রোকলী চাষের সম্পর্কে বললে তিনি তা চাষ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উর্মি তাবাস্ধসঢ়;সুম বলেন, এ উপজেলার মাটিকে আদর্শ মাটি বলা যেতে পারে। আমি এই উপজেলার দায়িত্বে আসার পর থেকে দেখে আসছি এখানকার মাটিতে সব ধরনের ফসলই চাষ হয়। শুধু সব ধরনের ফসল চাষ হয় বললে কম বলা হয়ে যাবে, এখানে কৃষকদের আন্তরিকতার কারণে সব ধরনের ফসলের চাষ হওয়ার পাশাপাশি ফলনও অত্যন্ত ভালো হয়। ব্রোকলী চাষ তারাগঞ্জ উপজেলায় এই প্রথম। রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ওবায়দুর রহমান মন্ডল এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, রংপুর বিভাগ কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জেলার চারটি উপজেলায় কাজ করা হচ্ছে।

Previous articleহতদরিদ্র কর্মহীন মানুষ ৪০ দিনের কর্মসূচীতে কাজ করে আর্থিকভাবে লাভবান
Next articleস্বর্ণের দাম ভরিতে ৩২৬৫ টাকা পর্যন্ত বাড়ল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।