বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় মা-বাবার মধ্যে কলহের জেরে ১৮ বছরের ভাইয়ের হাতে খুন হয়েছে ১২ বছরের বোন।

মঙ্গলবার উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের ছোট দিঘলীয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ছোট দিঘলীয়া গ্রামের জাকির হোসেন (৫৫) ও নুরুন্নাহার বেগমের (৪৫) ২৫ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাদের মাঝে কলহ লেগেই থাকত।

এরইমধ্যে মঙ্গলবার স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে আবার ঝগড়া বাধে। ঝগড়ার একপর্যায়ে স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যান এবং একইসাথে কাজে চলে যান স্বামী জাকিরও।

কিন্তু এ ঝগড়া থেমে যায়নি এখানেই। মা-বাবার এই ঝগড়া এসে ভেড়ে জাকির-নুরুন্নাহার দম্পতির মেজ ছেলে সিফাতুল্লাহ (১৮) ও মেয়ে হালিমা খাতুনের (১২) মাঝে।

পরে হালিমা মায়ের পক্ষ নেয়ায় মা-বাবার অনুপস্থিতিতে সিফাতুল্লাহ তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে। এমনটিই অভিযোগ স্থানীয়দের।

জাকির-নুরুন্নাহার দম্পতির আরো দুজন সন্তান রয়েছে, তারা হলো- নাসিরউদ্দিন (২০) ও শফিউল্লাহ (১০)।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক প্রতিবেশী জানান, জাকির হোসেন একজন সরল প্রকৃতির লোক। যার জন্য প্রায়ই স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া হত। ঝগড়ার সময় সিফাতুল্লাহ বাবা ও হালিমা খাতুন মায়ের পক্ষ নিত। সে কারণে সিফাতুল্লাহ তার বোনকে হত্যা করতে পারে।

হালিমা খাতুনের মা নুরুন্নাহার বেগম বলেন, আমি যখন বাড়ি থেকে বের হয়ে যাই তখন সিফাতুল্লাহ, হালিমা ও আমার প্রতিবন্ধী ছেলে শফিউল্লাহ বাড়িতে ছিল। সে সময় পারিবারিক কলহ নিয়ে উভয়ের মাঝে কথা কাটাকাটি হচ্ছিল। আমার ধারণা সিফাতুল্লাহই হালিমাকে হত্যা করেছে।

কোটালীপাড়া থানার ওসি মো: জিল্লুর রহমান বলেন, ঘটনার প্রকৃত কারণ এখনো জানা জায়নি। আমরা সিফাতুল্লাকে আটকের চেষ্টা করছি। সে বর্তমানে পলাতক রয়েছে। তাকে খুঁজে পেলেই হালিমা হত্যার প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। আমরা হালিমা খাতুনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছি।

Previous articleঝালকাঠিতে স্কুলশিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা, বাবা-ভাই আহত
Next article২৮ বছরে মেয়েদের পাসের হার বেড়েছে আড়াই গুণ: শিক্ষামন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।