তাবারাক হোসেন আজাদ: আন্তপ্রত্যয়-অধম্য-সাহসী ও সংগ্রামী এক নারী আমেনা বেগম। বয়স ৩৫ বছর। একসময় চাকুরি করার কারনে গ্রামের দুষ্ট লোকজনের ষড়যন্ত্র ও হামলার শিকার হতে হয়। গ্রাম থেকে বিতারিত করার পায়তারাও করা হয়েছিলো। কিন্সতু দুষ্ট চক্র বিজয়ী হতে পারেনি। সকল কিছু উপেক্ষা করে জয়ী হন আমেনা। ৫টি চাকুরির বেতনে এখন তিনি দুই তলা বাড়ির মালিক, বাড়ির ছাদে নানানরকম ফল-সবজির বাগান, পুকুরে মাছ চাষ ও কবুতর পালন এবং অসহায়দেরকে চিকিৎসাসেবা ও ওষুধ প্রদানের মধ্যে দিয়ে তিনি এক সফল নারী। তার এখন একটাই স্বপ্ন, দুই সন্তান মানুষ হবে, আলেম হবে। তাদের ওয়াজশুনবে মানুষ।এতেই তার তৃপ্তি।

রোববার (৬ মার্চ) সরেজমিন আমেনার বাড়িতে গেলে আজকের বাংলাদেশের প্রতিবেদকের কাছে তার দীর্ঘ ১৮ বছরের সংগ্রামী জীবন ও সাফল্যে তুলে ধরেছেন।

সকলের প্রিয় আমেনা আপা:–
——————————————-

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার উত্তর চরবংশী ইউপির কুচিয়ামারা গ্রামের মোঃ নুরুজ্জামানের স্ত্রী। আমেনার এক ভাই আছে। নাম মিজানুর রহমান। তিনি রায়পুর শহরে মাইক ভাড়া দিয়ে পরিবার নিয়ে জীবন যাপন করছেন। তার দুই সন্তানের মধ্যে বড় ছেলে চাঁদপুর শহরের একটি মাদরাসার আলিমে ও ছোট ছেলে রায়পুরের খাসেরহাটের মাদরাসায় হেফজ বিভাগে রয়েছে। আমেনা আগামি বছর একটি কলেজ থেকে এইচএসসি আর বড় ছেলে আলিম পরীক্ষা দিবে। প্রস্তুতিও নিয়েছেন তারা, তাদের ইচ্ছা ভালফল।।।

এক সংগ্রামী নারী আমেনা :–
—————————————

আমেনার বাবা গ্রামের একটি মসজিদে ইমামতির চাকরি করতেন। ২০০২ সালের ৩ নভেম্বর দশম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় তার বিয়ে হয় একই গ্রামের নুরুজ্জামান নামে এক প্রবাসী সাথে। ২০০৪ সালে সৌদি আরবে মিথ্যা অভিযোগে এলাকার দুই ব্যাক্তি নুরুজ্জামানকে বেদম পিটিয়ে টয়লেটে ফেলে রেখে তালাবদ্ধ করে চলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে পুলিশের মাধ্যমে দেশে ফেরত আসেন। এঅবস্থায় অভিভাবকদের কারনে আমেনার সংসার ভেঙ্গে যাওয়ার উপক্রম হয়। পরে স্বামীর প্রতি বিশ্বাস ও ভালোবাসার কারনে আমেনার সাহসি ভুমিকায় বিয়ে আর ভাঙ্গেনি। আমেনা তার স্বামীকে বাড়ির সামনে ১টি মুদি দোকান করে দেন । একসময় দোকানে লোকসান হওয়ায় তা ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। পরে হতাশাগ্রস্ত হয়ে ২০১২ সালে ৮০ জন পাওনাদারদের বিরুদ্ধে রায়পুর থানায় অভিযোগ করে টাকাগুলো উদ্ধার করেন আমেনা।

স্বামী ও দুই শিশু সন্তান নিয়ে-ঝুকিপুর্ণ ঝুপরি ঘরে ছিলো তাদের বসবাস। সবকিছু হারিয়ে আমেনা বাড়ির পাশের এক কলেজ শিক্ষকের কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা লোন নিয়ে দুইজন নারী কর্মী দিয়ে বসতঘরের পাশে ছোট একটি দর্জি দোকান দেন। এতে মোটামুটি সংসার জীবন ভালোই কাটছিলো। কিন্তু একসময় সুদে-আসলে সেই টাকা তিন বছরে হয়ে দাঁড়ায় তিন লক্ষ টাকা। নিরুপায় হয়ে আড়াই লক্ষ টাকার বসতঘরের অর্ধেক অংশ ৭০ হাজার ও ২০ হাজার টাকায় দর্জি দোকানটি বিক্রি করতে বাধ্য হয়ে দেনা পরিশোধ করেন।

আমেনার শপথ ও সংগ্রাম:–
—————————————–

এ দুর্বিসহ জীবনে-আমেনাকে বড় হতে হবে। সবকিছু ঝেড়ে উঠে দাঁড়াতে হবে। সমাজের মানুষের সাথে মিশতে হবে। শুরু হয় তার সংগ্রামী জীবন। তাই সে চাকরি নেন ব্রাকের পুষ্টি প্রকল্পে। এতে স্বা মী-সংসার নিয়ে ভালোই কাটছিলো তার। কিন্তু দশম শ্রেণীর সনদে পদোন্নোতি হবেনা। তাই আবার স্কুলে ভর্তি হয়ে এসএসসিতে ভালো ফলাফল অর্জন করেন। এদিকে ব্রাকেও তার পদন্নতি হয়। কর্মকর্তারাও সন্তুষ্ট হয়ে তার বাড়িতে বিশাল প্রোগ্রাম করেন। এতে আবারও হিংসাত্মক হয়ে উঠে গ্রামের এক দুষ্ট কুচক্রি মহল। তবে হাল ছাড়েননি আমেনা। আবার ভর্তিও হন কলেজে। কিন্ত আবারও কলেজে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায় তার।
আমেনাকে কলেজে ভর্তি করেন তার স্বামী নুরুজ্জামান। তার সামনে বিশাল স্বপ্ন। এইবার আমেনা চাকুরি নিয়েছেন বেসরকারি হাসপাতালে নার্স, একটি মার্কেটিং,একটি ইন্সুরেন্স কোম্পানি ও ডরপ এনজিওর উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা প্রকল্পের পাশাপাশি বাড়ির পাশে সকালে মক্তবও পড়াচ্ছে।

গত দুই বছরে তার এইসব চাকরি ও রায়পুর শহরে পরিবহন কাউন্টারে স্বামীর চাকরির টাকা এবং ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে দুই তলা বিশিষ্ট একটি বাড়ি করেছেন। গত এক মাস আগে বাড়ির ছাদে মনোরম ছাদবাগান করেছেন। সেই বাগানে ডালিম, লেবু, লটকন, আম,পেয়ারা,কমলা, জাম্বুরা সহ শতাধিক ফল ও সবজি গাছের বাগান করেন। তার সাথে ২০ জোড়া কবুতর লালন ও ১টি পুকুর দুই বছরের জন্য লিজ নিয়ে মাছ চাষ করছেন। তার ঘরে দুটি সেলাইয়ের মেশিনও রয়েছে। গ্রামের অসহায় মানুষকে কমমূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ দেন।
এতে আনন্দে তার চোখে জল ছলছল করছিলো।।

সংগ্রামের পর সাফল্য ও আমেনার অনুভূতি:–
—————————————————————–

প্রবাসী যুবকের সাথে ১৪ বছর বয়সে বিয়ে। মা-বাবা, দুইজনই কোরআনে হাফেজ। সাত বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে তিনি ৬ষ্ট বোন। শশুর, শাশুরী, দেবর, ননদ কেও নেই তার। চাকুরি করার কারনে গ্রামের দুষ্ট লোকজনের ষড়যন্ত্র ওহামলার শিকার। বসতঘর ও দর্জি দোকান বিক্রি করে দেনা পরিষদ। অল্প পড়াশুনায় বন্দু, বান্ধব, সমাজে অবহেলার শিকার। গ্রাম থেকে বিতারিত করার পায়তারা- সকল কিছু উপেক্ষা করে বিজয়ী হলাম। সব হারিয়ে অবশেষে আবার বাড়ি ঘর, আমাদের স্বামী-স্ত্রীর চাকুরি, বাড়ির ছাদে বাগান, পুকুরে মাছ চাষ করে আজ আমার সাফল্য। মহান আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া। এখন আমার একটাই স্বপ্ন দুই সন্তান মানুষ হবে-বড় আলেম হবে। তাদের ওয়াজ শুনবে মানুষে। সেখানেই আমার তৃপ্তি।

Previous articleকলাপাড়ায় ঘরে আগুন লেগে ৭ মাসের কন্যা শিশুর মৃত্যু, মা দগ্ধ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ঘাস মারা বিষ খেয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা, লাশ নিয়ে টানাটানি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।