শফিকুল ইসলাম: স্বামীর নির্মম হত্যা কান্ডের পর সকল প্রতিকূলতা জয় করে দুইটি মেয়েকে ডাক্তার ও ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার ক্ষেত্রে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা পালন করার জন্য গ্রাম পুলিশ সাজেদা বেগমকে সংবর্ধিত করেছে জয়পুরহাট জেলা পুলিশ। এ সময় তার ছোট মেয়ে খুর্শিদা পারভিন পলিকেও ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী প্রদান করা হয়।

মঙ্গলবার বিকেলে জয়পুরহাট জেলা পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে জেলা পুলিশের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা ও সংবর্ধনা সভায় প্রধান অতিথি পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী তাদের হাতে তুলে দেন।

পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা জানান, পিপিএম-সেবা জানান, জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল থানাধীন ৩নং মামুদপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডে আয়মাপুর, মিনিগাড়ি, কোনাপাড়া গ্রামের দায়িত্বরত গ্রাম পুলিশ মরহুম আব্দুল জলিল সরদার ২০০৬ সালের ১৩ ডিসেম্বর ক্ষেতলাল থানাধীন ফাঁসিতলা এলাকায় রাত্রীকালীন ডিউটি পালনকালে কতিপয় দুর্বৃত্ত আব্দুল জলিল সরদার সহ তিনজন গ্রাম পুলিশকে জবাই করে হত্যা করে। আব্দুল জলিল সরদার মারা যাওয়ার সময় তার দুইটি মেয়ে মুর্শিদা পারভিন জলি (১৮) ও খুর্শিদা পারভিন পলি (১৩) এবং তার স্ত্রী সাজেদা বেগমকে রেখে যান। আব্দুল জলিল সরদারের অকাল মৃত্যুতে সাজেদা বেগম তার সন্তানদের নিয়ে মহাবিপদে পড়েন। আব্দুল জলিল সরদার জীবিত অবস্থায় বাংলাদেশ পুলিশের একজন গর্বিত পুলিশ সদস্য লোকমান হাকিম (অবসর প্রাপ্ত এএসআই (সশস্ত্র), সাং- কুশাডাঙ্গা, থানা ও জেলা-নওগাঁ তৎকালিন আরআরএফ, রাজশাহীতে কনস্টেবল হিসাবে কর্মরত থাকা অবস্থায় ২০০৪ সালে প্রেষণে জরুরী ডিউটি করার জন্য জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল থানায় আসেন। উক্ত সময়ে আব্দুল জলিল সরদার এর সাথে পুলিশ সদস্য মোঃ লোকমান হাকিম এর পারিবারিকভাবে সু-সর্ম্পক গড়ে উঠে। আব্দুল জলিল এর মৃত্যুর পরে তার স্ত্রী সাজেদা বেগমের স্বল্প রোজগারে যখন তার কন্যাদের লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয় তখন পুলিশ সদস্য লোকমান হাকিম তাদের দুই কন্যার লেখাপড়ার দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। সাজেদা বেগম জীবিকা নির্বাহ ও তার দুই মেয়ের লেখাপড়ার খরচ বহনের জন্য তার স্বামী আব্দুল জলিল সরদারের শূন্য পদে ক্ষেতলাল থানাধীন ৩নং মামুদপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডে গ্রাম পুলিশের চাকুরীতে যোগদান করেন। মোছাঃ সাজেদা বেগমের বড় মেয়ে মুর্শিদা পারভিন পলি ২০০৫ সালে মামুদপুর দ্বী-মুখি উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে জিপিএ-৫.০০ পেয়ে এবং ২০০৭ সালে সরকারি সৈয়দ আলতাফুন্নেসা ডিগ্রী কলেজ, ক্ষেতলাল, জয়পুরহাট হতে এইচ,এস,সি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে জিপিএ-৫.০০ পেয়ে পাশ করেন। তিনি ২০১৪ সালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রাজশাহী হতে এমবিবিএস ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি ৩৯তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে স্বাস্থ্য ক্যাডারে উর্ত্তীণ হয়ে ২০১৯ সালে মেডিকেল অফিসার হিসাবে চাকুরীতে যোগদান করেন। তার ছোট মেয়ে খুর্শিদা পারভিন পলি ২০১০ সালে ক্ষেতলাল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে জিপিএ-৫.০০ পেয়ে পাশ করেন। তিনি ২০১২ সালে জয়পুরহাট সরকারি কলেজ থেকে এইচ,এস,সি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে জিপিএ-৫.০০ পেয়ে পাশ করেন এবং রাজশাহী ইউনিভার্সিটি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি (রুয়েট) থেকে ২০১৭ সালে সিজিপিএ-৩.৮১ (আউট অফ ফোর) পেয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করেন। সাজেদা বেগম অদ্যবধি ক্ষেতলাল থানার মামুদপুর ইউনিয়নের ০৯ নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি জীবন সংগ্রামে জয়ী হওয়া সত্যিকারের একজন জয়িতা। তার সংগ্রামী জীবনের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে জয়পুরহাট জেলা পুলিশ তাকে সংবর্ধনা প্রদান করে।

উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) তরিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোসফেকুর রহমান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (পাঁচবিবি সার্কেল) ইশতিয়াক আলম, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শাম্মী আজিজ সাজ, সাংবাদিক জনাব সাহাদুল ইসলাম সাজুসহ জয়পুরহাটের সকল থানা হতে আগত নারী পুলিশ সদস্যবৃন্দ।

Previous articleটাঙ্গাইলে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে র‌্যালি
Next articleদেশে ফিরেছেন ২৮ নাবিক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।