জয়নাল আবেদীন: জ্বালানি তেলের মুল্য বৃদ্বিতে কৃষকদের যখন নাভিশ্বাস উঠেছে , তখন রংপুর অঞ্চলের কৃষকদের সৌরচালিত পাতকুয়া স্বস্তি এনে দিয়েছে । বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ)। সৌরবিদ্যুতের মাধ্যমে পানি উত্তোলন হওয়ায় এবং বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা থাকায় পাতকুয়া শতভাগ পরিবেশবান্ধব। এতে সুবিধাভোগী কৃষকদের উৎপাদন খরচ অনেক কমে গেছে।

বিএমডিএ জানায় কৃষকদের উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ায় বিকল্প সেচ সুবিধার লক্ষ্যে রংপুরে চালু মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। কৃষকদের জন্য সৌরবিদ্যুৎ চালিত এ পাতকুয়ার উদ্যোগ নিয়েছে । রংপুর অঞ্চলের ৪ জেলায় ১৭টি পাতকুয়া নির্মাণ করেছে বিএমডিএ। এর ফলে মাত্র ২০০-২৫০ টাকা খরচে এক বিঘা জমিতে সেচ দিতে পারছেন কৃষকরা। এতে একদিকে উৎপাদন খরচ কমে লাভের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে । অন্যদিকে ভূ-উপরিস্থ পানির সর্বোত্তম ব্যবহার এবং বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হচ্ছে।বিএমডিএ এর উদ্যোগে জেলার ৬শ৮০ বিঘা জমি সেচের আওতায় এসেছে। এতে উপকৃত হয়েছেন দেড় হাজার সবজি চাষি।

বিএমডিএ সূত্র জানায়, সবজি চাষের জন্য প্রসিদ্ধ মিঠাপুকুর উপজেলায় ২০২০-২১ অর্থবছরে চারটি পাতকুয়া নির্মাণ করা হয়েছে। এ উপজেলার সুবিধাভোগী কৃষক আশরাফ হোসেন জানান, তার ৬০ শতাংশ জমিতে আগাম জাতের আলু চাষ করেছিলেন। পাতকুয়ার মাধ্যমে মাত্র ২শ টাকা খরচে দুইবার সেচ দিয়েছিলেন। অথচ পাতকুয়া নির্মাণের আগে একবার সেচ দিতেই খরচ হতো ৮শ টাকা।পাতকুয়া অপারেটর বেলাল জানান, এ সুবিধা পাওয়ার পর এক একর শিম খেতে তিনবার সেচ দিতে খরচ হয়েছে ৪শ টাকা। এর আগে, একবার সেচ দিতে খরচ হয়েছিল ৬শ টাকা।বিএমডিএ মিঠাপুকুর জোনের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রায়হান হাবীব জানান, তিনি নিজেই মিঠাপুকুরে চারটি পাতকুয়া দেখভাল করেন। প্রতিটি পাতকুয়া ১শ২০ ফুট গভীর করা হয়েছে। কুয়ার ৬২ ফুট নিচে সাবমারসিবল পাম্প বসানো হয়েছে। কুয়ায় ৮৪টি আরসিসি রিং পাত আছে। একটি পাতকুয়া চলে ৫ কিলোওয়াট শক্তিসম্পন্ন আটটি সৌর প্যানেল দিয়ে।

রংপুর বিএমডিএর নির্বাহী প্রকৌশলী মো: হারুন আর রশিদ জানান, ভূ-উপরিস্থ পানির সর্বোত্তম ব্যবহার ও বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে সেচ স¤প্রসারণ প্রকল্পের অধীনে রংপুর জেলায় ১৭টি পাতকুয়া নির্মাণ করা হয়েছে। সৌরবিদ্যুৎ পরিচালিত পাম্পটির পানি সংরক্ষণে একটি টাওয়ারের ওপর তিন হাজার লিটারের ট্যাংক স্থাপন করা হয়েছে। একটি পাতকুয়া ২৫ বিঘা জমি সেচের জন্য ডিজাইন করা হলেও ব্যাপক চাহিদা থাকায় অধিক জমিতে সেচ দেওয়া হচ্ছে।

বিএমডিএ রংপুর সার্কেলের তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান খান জানান, রংপুর জেলায় ১৭টি , নীলফামারীতে ৮টি, গাইবান্ধা ও লালমনিরহাটে ৪টি করে পাতকুয়া নির্মিত হয়েছে। সৌরবিদ্যুতের মাধ্যমে পানি উত্তোলন হওয়ায় এবং বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা থাকায় পাতকুয়া শতভাগ পরিবেশবান্ধব। এতে সুবিধাভোগী কৃষকদের উৎপাদন খরচ অনেক কমে গেছে।

Previous articleজুন মাসের মধ্যে পদ্মা সেতু যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত হবে: সেতুমন্ত্রী
Next articleরাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২ মাদক ব্যবসায়ীকে হেরোইনসহ রংপুর থেকে আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।