রেজাউল ইসলাম পলাশ: বীর মুক্তিযোদ্ধার ক্রয়কৃত জমি ভোগ দখল করতে পারছে না একমাত্র সন্তান। প্রভাবশালী নিকটাত্মীয়ের দাপটে বাড়ি ছাড়ার উপক্রম ঐ সন্তানের। একের পর এক হুমকী আর প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে কোনঠাসা করে রাখা হয়েছে ওই মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে এমনটাই অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের উত্তর আরুয়া গ্রামের মৃত সেকেন্দার আলী হাওলাদারের জেষ্ঠ পুত্র স্বাধীনতা যুদ্ধে সম্মুখ সমরে নেতৃত্ব দেওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মুনসুর আলী হাওলাদার (বাংলাদেশ গেজেট নং-১৩৩০) এর সাব কবলা দলিল মুলে ১৯৪২ সালের ক্রয়কৃত বসত বাড়ি সহ সারে পাঁচ একর সম্পত্তির মালিক তার উত্তরসূরী একমাত্র সন্তান মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। মুনসুর আলীর ১৯৮১ সালে মৃত্যুর পর প্রতিবেশী কতিপয় ভূমিদস্যু সহ আপন আত্বীয়দের চক্রান্তে স্ত্রী ও ৭ বছর বয়সি নাবালক পুত্র জাহাঙ্গীর কে বসতভিটা ছেড়ে শহরে চলে যেতে হয়। প্রতিপক্ষরা সম্পত্তি আত্মসাতের ঘটনা পাকা পোক্ত করার জন্য ১৯৯০ পরবর্তী সময়ে পূর্বের দাতাদের ওয়ারিশ দিয়ে জাল জালিয়াতির মাধ্যমে অশুদ্ধ দলিল সৃষ্টি করে। এ জমির অশুদ্ধ রেকর্ড নিয়ে সম্পত্তিতে থাকা গাছপালা কেটে সাবার করে দিয়েছে প্রতিপক্ষরা। বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান জাহাঙ্গীর হোসেন দীর্ঘ্যদিন পর ঢাকার শহর ছেড়ে পরিবার নিয়ে বসবাসের উদ্দেশ্যে ২০০৭ সালে পৈত্রিক ভিটায় ফিরলে শুরু হয় বিপত্তি। প্রতিপক্ষরা জাহাঙ্গীরকে নিজ বসত ভিটায় আশ্রয় না দিলে তার আশ্রয় হয় পাশ্ববতী আদাখোলা গ্রামের নানার বাড়িতে। ২০১৫ সালের এক আপোশ রফায় বসতবাড়ি থেকে ১৩ শতাংশ জমিতে বসতি গড়ার অনুমোদন মেলায় সেখানেই বসবাস করে আসছিলেন জাহাঙ্গীর।

বেদখলকৃত সাড়ে ৫ একর জমি ফিরে পাওয়ার জন্য ২০১৯ সালে জাহাঙ্গীর বাদী হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করলেও প্রতিপক্ষরা আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ২৮ টি তারিখ হাজিরা না দিয়েই অতিবাহিত করে। এর পরে জাহাঙ্গীরের দখলে থাকা জমির গাছ পালা কর্তন সহ বসতঘরের সম্মুখে খড়ের গাদা স্থাপন প্রতিপক্ষরা। সম্প্রতি জাহাঙ্গীরের পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে তার পরিবারের পানির চাহিদার উৎস বন্ধ করে দেয়া হয়। সেই থেকে প্রানভয়ে জাহাঙ্গীর পালিয়ে বেড়াচ্ছে। বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের জন্য সরকারের বরাদ্ধকৃত পাকা ভবনের (মুক্তি নিবাস) প্রতিপক্ষের আপত্তির মুখে নির্মান করতে পারেনি উপজেলা প্রশাসন।

এ বিষয়ে বড়ইয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহাব উদ্দিন সুরু মিয়া জাহাঙ্গীরের অভিযোগের বিষয়ের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযুক্ত আ: সোবাহান সহ অন্যদেরকে জাহাঙ্গীরের বসতঘরের সম্মুখ থেকে খড়ের গাদা অপসারণ সহ উভয় পক্ষকে শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস করার নির্দেশ দেওয়া হলেও অভিযুক্তরা মানছেন না।

Previous articleরশিদার মুখে হাসি ফুটিয়েছে পুলিশ
Next articleমুন্সিগঞ্জে ১০ টাকায় ইফতার বাজার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।