আতিউর রাব্বী তিয়াস: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর পৌরসরের পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম হাস্তাবসন্তপুর মৎসজীবী মহল্লার বাসিন্দা রশিদা বেগম। ১২ বছর বয়সে প্রথম বিয়ে হয়েছিল মেহের আলীর সাথে রশিদার। এরপর তাঁর সাথে ১৫ বছর সংসার করার সেই স্বামী মারা যান। পরে ১২ বছর একা থাকার পর মোজাহার আলীকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন রশিদা।

আজ সোমবার সকালে রশিদার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় রশিদা নতুন ঘর পেয়ে নিজের সংসারের কাজ করছেন। এখন নিজ বাড়িতে হাস মুরগী পালন করবেন। পরে ছাগল বা গরু পালন করার
ইচ্ছে আছে।

রশিদার দ্বিতীয় স্বামীও গত দেড় বছর আগে মারা যান। রশিদার দুই স্বামীর সংসারে কোন সন্তান হয় নি। তখন রশিদা বেগম তাঁর ভাই মন্টুর বাড়ির একটি ভাঙাচুড়া ঘরে বসবাস করতেন। অন্যের বাড়িতে কাজ করে রশিদা নিজের পেঁটের খাবার যোগাতেন। সেই অসহায় রশিদার মুখে এবার হাসি ফুটিয়েছে জয়পুরহাট জেলা পুলিশ

তাকে আধাপাকা বাড়ি নির্মাণ করে দিয়েছে পুলিশ। রশিদা বিধবা এবং নিঃসন্তান হওয়ায় তার দের শতক জমি নিজের আর এক শতক কিনে দিয়ে আড়াই শতক জমির উপর একটি দুই কক্ষ বিশিষ্ট বাড়ি নির্মাণ করে দিয়েছে পুলিশ।

গতকাল রোববার দুপুরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জমিসহ নির্মিত বাড়ি উপকারভোগীর মাঝে হস্তান্তর করেন। একই সাথে আক্কেলপুর থানার নারী,শিশু,বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেক্স সেন্টারেরও শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন তিনি।

স্থানীয় বাসিন্দা মিনি বেগম বলেন, রশিদার দুই স্বামীর সংসার কোন সন্তান জন্ম গ্রহণ করে নি। তিনি নিঃসন্তান। দুই স্বামীই মারা গেছে, অন্যের বাড়িতে কাজ করে পেটের ভাত যোগাতেন। তাঁর ছোট ভাইয়ের বাড়ির পাশে একটি খুপরি ঘরে থাকতের রশিদা। তাঁকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিনামুল্যে একটি আধা পাকা ঘর উপহার দিয়ে রশিদার শেষ জীবনে মাথা গোঁজার ঠাই হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর ঘর উপহার পেয়ে কান্না জরিত কন্ঠে রশিদা বেগম বলেন, পরপর দুই স্বামীকে হাড়িয়ে দুনিয়ার বুকে আমি বড় একা। নিজের সম্বল বলতে দের শতক জমি ছাড়া কিছুই ছিল না আমার। অন্যের বাড়িতে কাজ করে পেটের ভাত জোগাতাম। ভাঙা ঘরে অনেক কষ্টে বসবাস করতাম।

আমাকে জয়পুরহাট জেলা পুলিশের সহযোগীতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে জমিসহ ঘর উপহার দিয়েছেন। আমি যতদিন বাঁচব ততদিন শেখ হাসিনা ও পুলিশের জন্য দোয়া করে যাব।

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমান বলেন, বৃদ্ধা রশিদার জীবন কাহিনি অনেক কষ্টের। শেষ জীবনে সে থাকার একটি সুন্দর ঠিকানা পেয়ে অনেক খুসি হয়েছেন। তার ওই ঘর নির্মাণে সরকারী দুই লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এখন থেকে রশিদা নতুন ঘরে থাকছে।

Previous articleবিদেশী হুমকির সেই চিঠি প্রধান বিচারপতিকে পাঠালেন ইমরান
Next articleরাজাপুরে প্রতিপক্ষের দাপটে বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবার বসতবাড়ি হাড়িয়ে ভূমিহীন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।