মিজানুর রহমান বাদল: মানিকগঞ্জের সিংগাইরে ঈদে বান্ধবীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে ঘুরতে গিয়ে কিশোরগ্যাংদের হাতে কুপিয়ে মো. রনি (২০) নামের যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ৮ জনকে আসামী করে থানায় মামলা হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িত এজাহারভুক্ত আসামী আলিফ ও ইয়ামিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদে জন্য আটকা নারীসহ ৪জনকে মুচলেকায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার চান্দহর ইউনিয়নের ওয়াইজনগর গ্রামের নোয়াব আলীর ছেলে সৌরভ হোসেন রনি (২০)। মা

মলার এজাহার সূত্রে জানাযায়, উপজেলার চান্দহর ইউনিয়নের ওয়াইজনগর গ্রামের নোয়াব আলীর ছেলে সৌরভ হোসেন রনি (২০) ঈদেও দিন বিকেলে বন্ধবীকে মোটরসাইকেলে শোল্লা ব্রীজে ঘুরতে যায়। প্রেম সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরিয়া উপজেলার বান্দাইল রফিক দেওয়ানের মুদি দোকানের সামনে সৌরভ হোসেন রনিকে মোটরসাইকেলের গতিরোধ করিয়াা রামদা, চাইনিজ কুড়াল, লোহার রড ও লাঠি-সোটা অতর্কিত ভাবে এলোপাথারি ভাবে মারধর করে। এসময় রনি দৌড়াইয়া পালানোর সময় বান্দাইল গ্রামের নজর আলীর ঘরে আশ্রয় নেয়। এসময় সাহরাইল (মুন্সিপাড়া) গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে মোঃ শান্ত (২০), আয়ুব আলীর ছেলে মানিক (১৮), নুরু মিয়ার ছেলে রবিন (১৯), হাবুর ছেলে মোহাম (২২) , চন্দননগর গ্রামের জান্নান ছেলে ইয়ামিম (২০), চানু মিয়ার ছেলে শামীম (১৮), কাওছারের ছেলে আলিফ (১৮), সায়েস্তা গ্রামের কামালের ছেলে সুজন (১৮) সহ আরো অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন ঘরে প্রবেশ করিয়া শান্ত চাইনিজ কুড়াল দিয়া কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করে। মানিক রামদা দিয়া হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় ও বাম হাতে জখম করে মোটরসাইকে যোগে পালিয়ে যায়। এ সময় তার ডাক-চিৎকারে আশে পাশের লোকজন আসিয়া। পরে স্থানীয়রা মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষনা করেন।

সাভার মডেল থানা পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। নিহতের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। বুধবার দিবাগত রাতে নিহত রনির পিতা নোয়াব আলী বাদী হয়ে ৮ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সিংগাইর থানার ২/১৩৬, তাং-০৪/০৫/২০২২ খ্রিঃ, ধারা-১৪৩/৩৪১/৩২৩/৩২৬/৩০৭/৩০২/৩৪ পেনাল কোড-১৮৬০; রুজু করা হয়েছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার ভোররাতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে চন্দননগর গ্রামের জান্নানের ছেলে ইয়ামিম (২০) ও সায়েস্তা গ্রামের কাওছারের ছেলে আলিফকে (১৮) গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ জাহিদুল ইসলাম বলেন, প্রযুক্তি ব্যবহার করে হত্যাকান্ডে জড়িত মুল আসামী অন্যান্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ ব্যাপারে সিংগাইর থানার ওসি সফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, মামলার ২ আসামী আলীফ ও ইয়ামিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মুলহোতাসহ বাকী আসামীদের গ্রেফতারের জোর চেষ্ট চলছে। অভিযান অব্যাহত আছে।

Previous articleবাবার ইচ্ছাপূরণে ঈদগাহকে মূল্যবান জমি দান করলেন হিন্দু দু’বোন
Next articleওবায়দুল কাদেরকে বীর ৭১ সম্মাননা প্রদান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।