বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে জোড়পূর্বক এক বৃদ্ধের জমি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার গাছুয়া ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল হাসেম বেপারীর ছেলে শাহ আলম বেপারীর জমি জোড়পূর্বক দখল করে নেওয়া হয়েছে বলে দাবী করেছেন তিনি। একই গ্রামের মৃত ইউনুচ বেপারীর ছেলে অধ্যাপক শরীয়ত উল্লাহ ও তার লোকজন ওই বৃদ্ধের বলরামপুর নতুন বাজারের জমি দখল করে নেয়। এছাড়া দখলকারীরা বৃদ্ধকে প্রাণে মেলে ফেলা এবং মেরে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

জমি ফিরে পেতে শাহ আলম বেপারী ইতিমধ্যে কয়েক বার মুলাদী থানায় অভিযোগ করেছেন এবং প্রাণের ভয়ে থানায় কয়েকটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। শাহ আলম বেপারী জানান, প্রায় ৬২ বছর আগে চরবলরামপুর মৌজায় আলী আকুব্বর বাবুর্চির কাছ থেকে তার পিতা আব্দুল হাসেম বেপারী ২৪ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। ওই জমি তারা দীর্ঘ দিন ধরে ভোগদখল করে আসছিলেন। ২০১৩ সালে অধ্যাপক শরীয়ত উল্লাহ, সামছুল আলম দপ্তরী, আব্দুস সত্তার বেপারীসহ কয়েকজন ওই জমির পাকা ভবনের টিনের চাল ও ১৫ হাজার ইট লুট করে নেয়। একই মৌজায় ১৯৬১ সালে শাহ আলম বেপারীর পিতা আলী আকুব্বর বাবুর্চির কাছ থেকে ১৭ শতাংশ জমি ক্রয় করেন।

২০১২ সালে অধ্যাপক শরীয়ত উল্লাহর নির্দেশে আব্দুল হালিম ও তার লোকজন ওই জমি থেকে ১ লক্ষ টাকার গাছ কেটে নেয় এবং পাকা ঘর তুলে জমি দখল করে। শাহ আলম বেপারী আরও বলেন, ১৯৫৮ সালে তার পিতা চরবলরামপুর মৌজায় আব্দুল কাদের সিকদারের কাছ থেকে ২১শতাংশ জমি ক্রয় করে। চলতি বছর ১৮ মার্চ শরীয়ত উল্লাহর লোকজন ওই জমি দখলের চেষ্টা চালায়। ওই সময় দখলকারীরা তার (শাহ আলম বেপারীর) ২টি দোকন থেকে মালামাল লুট করে নেয়। এবং জমি দখলের জন্য সীমানা প্রাচীর নির্মাণের চেষ্টা চালায়। পরে দখল চেষ্টাকারীরা তাকে জীবন নােেশর হুমকি দেন। বর্তমানে শাহ আলম বেপারী তার পিতার ক্রয়কৃত ৪১ শতাংশ জমি ফেরত পেতে চান এবং জীবনের নিরাপত্তার জন্য মুলাদী থানায় ৩/৪টি অভিযোগ ও সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

Previous articleপদ্মাসেতুর জমি অধিগ্রহণের টাকা জালিয়াতি মামলায় দুই আসামীকে জেলহাজতে প্রেরণ
Next articleতার কথা শোনে পাখিটি, পোষ মানা শালিকের সাথে সবার সখ্যতা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।