বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদী উপজেলায় মনির হাওলাদার নামে (৩২) এক যুবককে চোখ উৎপাটনের পর গলা কেটে হত্যা করেছে দুবৃত্তরা।

গত সোমবার রাতে উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের চরকমিশনার গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে চরকমিশনার গ্রামের আবুল সরদারের বাড়ির পুকুরের পশ্চিম পাশ থেকে মনির হাওলাদারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সোমবার রাতের কোনো একসময় মনির হাওলাদারকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করেছেন পুলিশ ও স্থানীয়রা। মনির হোসেন হাওলাদার চরকমিশনার গ্রামের সালাম হাওলাদারের ছেলে। তিনি ওই এলাকার মৃত আবুল কালাম ওরফে কলম সরদারের ছেলে কামাল সরদারের গরুর খামারে শ্রমিকের কাজ করতেন। পাওনা টাকা চাওয়ায় মনির হাওলাদারকে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন নিহতের ভাই পাবেল হাওলাদার।

ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ দুইজনকে আটক করেছেন। আটককৃতরা হলেন, চরকমিশনার গ্রামের আমির মৃধার ছেলে ও কামাল সরদারের সহযোগী জামাল মৃধা এবং আব্বাস ডাক্তারের ছেলে আলম হোসেন। এদের মধ্যে জামাল মৃধা মীরগঞ্জ খেয়াঘাটে টাকা উত্তোলনের কাজ করেন এবং আলম হোসেন একই ঘাটে স্পিডবোট চালায়।

নিহতের ছোট ভাই পাবেল হাওলাদার জানান, মনির হোসেন দীর্ঘ দিন ধরে কামাল সরদারে গরুর খামারে দৈনিক মজুরিতে শ্রমিকের কাজ করেছিলেন। কয়েক মাস ধরে টাকা না দেওয়ায় এক সপ্তাহ আগে মনির খামারের কাজ ছেড়ে দেন। এতে কামাল সরদার ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয় এবং মনিরকে কোনো টাকা দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেন। সোমবার সকালে মনির হাওলাদার মীরগঞ্জ ফেরিঘাটে কামাল সরদারকে পেয়ে তার কাছে পাওনা টাকা চান। তিনি কোরবানীর ঈদের আগে কোনো টাকা দিবেন না বলে জানিয়ে দেন। মনির হাওলাদার বিষয়টি কামাল সরদারের ভাগ্নে ও কাজিরচর ইউপি সদস্য মো. শামীম খানকে জানান। ওই সময় শামীম খান উল্টো মনিরকে জেল-হাজতের ভয় দেখান।

পাবেল আরও বলেন, সোমবার রাত ৯টার দিকে মনির হাওলাদার আমার কাছ থেকে ৫০টাকা নিয়ে মীরগঞ্জ ফেরি ঘাটে যাওয়ার কথা বলে ঘর থেকে বের হন। রাতে ঘরে না ফেরায় বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজি করি। কোথাও না পেয়ে আত্মীয়-স্বজনদের কাছেও খোঁজ নিয়ে মনিরের খোঁজ পেতে ব্যর্থ হয়েছি। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় লোকজন আবুল সরদারের পুকুরের পশ্চিম পাশে মনিরের মরদেহ দেখতে পেয়ে আমাদের সংবাদ দেন। সেখানে ভাইয়ের গলাকাটা মরদেহ দেখতে পাই। আমার ভাইয়ের বাম চোঁখটি উৎপাটন করা হয়েছে। বুঝা যাচ্ছে তাকে অনেক কষ্ট দিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। আমাদের ধারণা বেতনের বকেয়া টাকা চাওয়ায় কামাল সরদার ও তার লোকজন আমার বড়ভাই মনিরকে হত্যা করেছে।

সংবাদ পেয়ে মুলাদী থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করেন। সহকারী পুলিশ সুপার (মুলাদী সার্কেল) মো. মতিউর রহমান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস.এম মাকসুদুুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনার পর থেকে কামাল সরদার ও তার লোকজন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, সোমবার রাত থেকে মনির হাওলাদার নিখোজ ছিলেন। গতকাল সকালে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। সব কিছু দেখে এটাকে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে কামাল হোসেনের সহযোগী জামাল মৃধা ও স্পিডবোট চালক আলম হোসেনকে আটক করা হয়েছে। পাশাপাশি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি এবং ময়না তদন্তের জন্য মৃতদেহ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণের প্রক্রিয়া চলছে।

Previous articleমুলাদীতে স্কুলছাত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ
Next articleকলাপাড়ায় সংখ্যালঘু পরিবারের বসত ঘর ভাংচুর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।