মিজানুর রহমান বাদল: মানিকগঞ্জের সিংগাইর সিটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারে প্রসূতি সাবিনা আক্তার (২০) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় সিলগালা করেছে প্রশাসন। সেই সাথে মালিকসহ ১০ জনে জেল দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

বুধবার (২৫ মে) সকাল ১১টায় সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিপন দেবনাথ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সহকারি কমিশনার ভূমি শাম্মা লাবিবা অর্নব। হাসপাতালটির কোন কাগজ পত্র না থাকায় সিলগালা করে দেন। সেই সাথে হাসপাতালের মালিক আলমগীরকে ৬ মাসের কারাদন্ড দেন। এ সময় মালিককে পালিয়ে যেতে সাহায্য করায় ৯ কর্মচারীকে আটক করে ১৫ দিনের কারাদন্ড দেওয়া হয়।

অপরদিকে সোমবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা ডা. ফারহানা নবিকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি করা হয়। রবিবার (২২ মে) ভোরে পৌর এলাকার ভাষা শহিদ রফিক সড়কে অবস্থিত সিটি হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুল অস্ত্রোপচারের পর প্রসূতির মৃত্যু হয় বলে দাবি করেন স্বজনরা। প্রাথমিক তদন্তে কমিটি জানতে পেরেছে, সরকারি কাগজে ওই হাসপাতালের কোনও অস্তিত্ব নেই। এ ছাড়া অস্ত্রোপচারকারী ইমা বিনতে ইউনুছ ডিগ্রিধারী চিকিৎসক নন।

স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সায়েস্তা ইউনিয়নের বান্দাইল (টাকিমারা) গ্রামের মুখলেছ মিয়ার স্ত্রী ও জয়মন্টপ ইউনিয়নের উত্তর বাহাদিয়া গ্রামের সকেল উদ্দিনের মেয়ে সাবিনার প্রসব বেদনা শুরু হলে শনিবার রাত ১১টার দিকে তাকে ওই সিংগাইর সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত ৩টার দিকে চিকিৎসক ডা. ইমা বিনতে ইউনুছকে ডেকে এনে তার অস্ত্রোপচার করানো হয়। তিনি একটি মেয়ে সন্তান জন্ম দেন। অস্ত্রোপচারের পরই তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। সে সময় পরিবার দাবি তোলে, ভুল অস্ত্রোপচারের কারণে অধিক রক্তক্ষরণে অপারেশন থিয়েটারেই তার মৃত্যু হয়। পরে অ্যাম্বুলেন্স যোগে মৃত অবস্থায় সাবিনাকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। ঘটনার পর বিষয়টি মীমাংসার জন্য জোর তৎপরতা শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে প্রসূতির স্বজন ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মধ্যে দফায় দফায় দেন-দরবার হয়। একপর্যায়ে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে বিষয়টি মীমাংসা করা হয়। কিন্তু প্রসূতির মা-বাবা ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের মধ্যে টাকা ভাগাভাগি নিয়ে ঝামেলা বাধে। এই কারণে সমঝোতার বিষয়টি এখনও ঝুলে আছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক স্বজন বলেন, ‘প্রভাবশালী মহলের চাপে আপস-মীমাংসায় রাজি হয়েছিলাম। কিন্তু এখনও জরিমানার পুরো টাকা পরিশোধ করেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে উপজেলা পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুজহাত নওরীন আমীন বলেন, ‘ঘটনার প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে। ঘটনার সত্যতা পেলে হাসপাতালটির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব ডা. ফারহানা নবি বলেন, ‘তদন্তের কাজ শুরু করেছি। প্রাথমিক তদন্তকালে সিটি হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক নজরুল ইসলাম স্বপনের কাছে তার প্রতিষ্ঠানের কাগজপত্র দেখতে চেয়েছিলাম- তিনি তা দেখাতে পারেননি। সরকারি কাগজে সিংগাইরে সিটি হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামে কোনও হাসপাতাল নেই। যিনি প্রসূতির অস্ত্রোপচার করেছেন তিনি কোনও ডিগ্রিধারী চিকিৎসক নন। এমনকি যে অজ্ঞান করেছেন তারও কোনও ডিগ্রি নেই। এদিকে বুধবার (২৫ মে) সকাল ১১টায় সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিপন দেবনাথ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সহকারি কমিশনার ভূমি শাম্মা লাবিবা অর্নব। হাসপাতালটির কোন কাগজ পত্র না থাকায় সিলগালা করে দেন। সেই সাথে হাসপাতালের মালিক নজরুল ইসলাম স্বপনকে ৬ মাসের কারাদন্ড দেন। এ সময় মালিককে পালিয়ে যেতে সাহায্য করায় ৯ কর্মচারীকে আটক করে ১৫ দিনের কারাদন্ড দেওয়া হয়। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন, ওই হাসপাতালের কর্মচারী মান্না তানিয়া (৩৫), আবদুল বাতেন (২৪), সুমি আক্তার (২৩), পারভীন আক্তার (২৫), ফাতেমা (২৩), শিল্পী (২৬), মনির হোসেন (২৮), আবদুল করিম (৩৬) ও হামিদুর রহমান (৪১)।

Previous articleপারমাণবিক শক্তি : বাংলাদেশ ও দ. কোরিয়ার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর
Next articleবৃষ্টি বাগড়ার দিনে শক্ত অবস্থানে শ্রীলঙ্কা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।