আহম্মদ কবির: তাহিরপুরে হাওর ও নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের কবলে বাড়িঘর ভাঙ্গনের আতঙ্কে রয়েছে, সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার প্রত্যন্ত হাওর পাড়ের মানুষ। এ উপজেলার হাওর কেন্দ্রিক শ্রীপুর উত্তর ও শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নে প্রায় অর্ধশতাধিক গ্রাম রয়েছে, গ্রামগুলো বর্ষা এলেই হাওরের আছড়েপড়া উত্তাল ঢেউয়ের কবলে ঘরবাড়ি ভাঙ্গনের মুখে পড়ে।

বসতভিটা রক্ষায় প্রতি বছরই চলে নানামুখী সংগ্রাম। এতে ভিটেমাটি হারানোর ঘটনাও ঘটে প্রতিবছরই।এ উপজেলায় এমন গ্রাম রয়েছে,যে গ্রাম গুলোর নাম নথিতে ঠিকই আছে, কিন্তু বাস্তবে সেসব গ্রামের অস্তিত্ব অনেক পূর্ব থেকেই নেই।

উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ও শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন হচ্ছে সবচেয়ে নিম্নাঞ্চল ও হাওর কেন্দ্রিক এলাকা,বছরের মে মাস থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত সাতমাস বর্ষাকাল থাকে।তখন হাওর পাড়ের বিচ্ছিন্ন ছোট-ছোট গ্রাম গুলোকে দূর থেকে একেকটা ভাসমান দ্বীপ মনে হয়।সে সময় হাওরে সামান্য বাতাস হলেই প্রচন্ড ঢেউ ওঠে, তিন-চার ফুট উঁচু একেকটা বিশাল ঢেউ এসে আছড়ে পড়ে গ্রামগুলোতে। তখন চোখের সামনেই বিলীন হয়ে যায় কষ্টেগড়া বসতভিটা।

সম্প্রতি টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে হাওর নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায়,ঘরবাড়ি স্কুল মসজিদ সহ বিভিন্ন হাটবাজারে বন্যার পানি উঠতে শুরু করেছে।এতে হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের কবলে বাড়িঘর ভাঙ্গনের আতঙ্কে রয়েছে হাওরবাসী।এছাড়াও অধিকাংশ সড়কপথে রয়েছে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাযায় বর্ষার ঝড়ো বাতাস ও বিশাল ঢেউয়ের কারণে সৃষ্ট দুর্যোগের নাম তোপান। গোটা হাওরাঞ্চলের মানুষের কাছেই তোপান এক আতঙ্কের নাম।জানাযায় তোপান ও হাওরের আছড়েপড়া উত্তাল ঢেউয়ের কবলে ভাঙ্গনের ঘটনা এ অঞ্চলে নতুন কিছু নয়।যুগ যুগ ধরেই এ অঞ্চলের মানুষ ভাঙ্গনের হুমকি মোকাবেলা করে আসছে। এই ঝড়-তুফান মোকাবেলায় তাদের বড় সহায়ক ছিল হাওরের চতুর্পাশের গাছগাছালি ও বনজঙ্গল, কিন্তু মানবসৃষ্ট বিভিন্ন কারণে দিনদিন প্রকৃতির এই সহায়ক কে উজাড় করে দিয়েছে নিজেরাই।ফলে তুমুল বর্ষা এখন তাদের কাছে হাজির হয় সর্বস্ব হারানোর ভয়াল আতঙ্ক হয়ে।প্রতি বছরেই বসতবাড়ি ভাঙা গড়ায় সর্বহারা এ অঞ্চলের অনেকেই।

বসতবাড়ি হারানো ভুক্তভোগী অনেকেই জানান উনাজ থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের সাথে বালি এসে ও ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে,হাওর নদীতে পড়ে পলি জমে নদী ও হাওর ভরাট হওয়ার কারনে এ অঞ্চলে অল্প পানিতেই বন্যার সৃষ্টি হয়।নদী খনন না হলে আমাদের এই দুর্ভোগ কখনো শেষ হবে না।

ঘরবাড়ি হারিয়ে ঢাকায় অবস্থানরত উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের জয়পুর গ্রামের রফিকুল ইসলাম বলেন গেল বছর দেড় – এক পূর্বের বন্যায় ঘরবাড়ি হারিয়ে ঢাকায় এসেছি,এ বছর পুনরায় মাটি ভরাট করেছি,এ বছর আবার বন্যা দেখা দিয়েছে।না জানি কি হচ্ছে আমার কষ্টে গড়া একমাত্র সম্বল বসতভিটা।

Previous articleসিংগাইরে বৃদ্ধা মায়ের স্থান হয়েছে গোয়াল ঘরে, দুই ছেলে ও পুত্রবধূ গ্রেফতার
Next articleনোয়াখালীতে ঝোপে মিলল দেশীয় অস্ত্র
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।