আবুল কালাম আজাদ: টাঙ্গাইলে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেলো টাঙ্গাইল-বেড়াডোমা-ওমরপুর সড়কের লৌহজং নদীর উপর নির্মিত বেড়াডোমা সেতু।সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত একটি সেতুটি বৃহস্পতিবার রাতে দেবে যায়। এতে ওই সড়কে চলাচলকারিদের পোহাতে হবে দুর্ভোগ। দ্রুত সময়ের মধ্যে সেতু নির্মাণ শেষ করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

শুক্রবার দেবে যাওয়া সেতুটি পরিদর্শন করেছেন, পৌরসভা ইঞ্জিনিয়ার ও ঠিকাদারী প্রাতষ্ঠানের কর্মকর্তারা। পৌরসভা সূত্রে জানাগেছে,স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় টাঙ্গাইল পৌরসভা সেতুটির বাস্তবায়ন করছে।৮ মিটার প্রস্থ ও ৩০ মিটার দীর্ঘ সেতুটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ কোটি ৬০ লাখ ১৮ হাজার টাকা।২০২০ সালের ১২ নভেম্বর থেকে ব্রিক্সস অ্যান্ড ব্রিজ লিমিটেড ও দি নির্মিতি নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যৌথ ভাবে কাজ শুরু করেন। গত ১১ মে কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ৫৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। গত সপ্তাহে সেতুটির উপরে অংশে ঢালাই করা হয়। হঠাৎ বৃহস্পতিবার রাতে সেতুটির সেন্টারিং সাটারিং এর কাঠ ও বাঁশের পাইল সরে গিয়ে সেতুটি মাঝ খানে দেবে গেছে।

বেড়াডোমা এলাকার বাসিন্দা হাফিজুর রহমান জানান,ইতোপূর্বে এখানে একটি বেইলি সেতু ছিলো সেটিও দুবার ভেঙে যাওয়ায় জনদুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে কয়েক বছর।এ সেতুটি নির্মাণ কালিনসময়েও দুর্ভোগ অব্যাহত আছে।সেতুটি দেবে যাওয়ায় আরও জনদুর্ভোগ বাড়লো। স্থানীয়রা জানান,পার্ক বাজার থেকে বাজার করে রিকশা চলাচলের অনোপযোগী থাকায় নিজেদেরই বহন করে আনতে হয়। দুই বছরের অধিক সময় ধরে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ জানান,জনদুর্ভোগ লাঘবে কাজটি শেষ করার জন্য বার বার তাগিদ দেয়া হয়েছে।কিন্তু পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ার ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন কোন কথাই শুনেনি। সেতুটি দেবে যাওয়ায় লাখ লাখ মানুষের কয়েক বছরের জন্য দুর্ভোগ আরও বেড়ে গেলো। পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ার শিব্বির আহমেদ আজমী জানান,ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রকল্প পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অবগত করা হয়েছে।এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি করে মূল রহস্য উদঘাটন করা হবে।

Previous articleরংপুরে তিস্তা, ধরলা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ওপরে, ডুবে গেছে চরাঞ্চল
Next articleবাবার আত্মহত্যার খবর শুনে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে ছেলের আত্মহত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।