জয়নাল আবেদীন: লাগাতার ভারী বর্ষণ এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে রংপুর বিভাগের তিস্তা, ধরলা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তিস্তার ৪৪ টি জলকপাট খুলে পানি প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করছে ব্যারেজ কৃর্তপক্ষ। পানি হু হু করে বৃদ্ধি পাওয়ায় তিস্তার চর অঞ্চলের ৬৩ চরের বন্যা দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি দেখা দিয়েছে ভাঙন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা গেছে,তিস্তায় পানি বৃদ্ধি শুরু হওয়ায় নীলফামারীর ডিমলার ছাতনাই এলাকা থেকে জলঢাকা, লালমনিরহাটের পাটগ্রাম, হাতীবান্ধা, কালিগঞ্জ, আদিতমারী, সদর, রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া, পীরগাছা, কুড়িগ্রামের রাজারহাট, উলিপুর, চিলমারী এবং গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের হরিপুরের ব্রহ্মপুত্র নদ পর্যন্ত অববাহিকার ৩শ৫২ কিলোমিটার এলাকার চরাঞ্চল এবং নিম্নাঞ্চলে পানি উঠেছে। কোথাও কোথাও কোনো কোনো বাড়িতে কোমর অবদি পানি ঢুকেছে। এসব এলাকার উঠতি বাদাম, আমনের চারা, পাট, সবজিসহ বিভিন্ন ফসল নিমজ্জিত হয়েছে। অনেক স্থানে রাস্তাঘাট ভেঙ্গে যাচ্ছে পানির তোড়ে। দুর্গত এলাকায় মানুষজন খুবই বিপাকে পড়েছেন। কোথাও কোনো সহযোগিতা পৌঁছায়নি। বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুদের কষ্ট বেশি। গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে কৃষকরা।

গত ২৪ ঘণ্টায় গঙ্গাচড়ায উপজেলায় ২৫টি বাড়ি ও আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। হুমকির মুখে পড়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজারসহ শত শত ঘরবাড়ি। পাউবো দুর্গম চরাঞ্চলের লোকজনদের নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার জন্য মাইকিং করছে। পাউবো শুক্রবার বিকেল ৩ টায় তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে নদীর পানি বিপৎসীমার ১৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।গঙ্গাচড়া উপজেলায় নদী ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। গঙ্গাচড়া উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের তিস্তা নদীর তীরবর্তী ও দুর্গম চরাঞ্চলের গ্রামগুলোতে প্রবেশ করছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন ৩০টি গ্রামের ২৫ হাজার মানুষ। অনেকে বাড়িঘর ছেড়ে পাউবো বাঁধে আশ্রয় নিচ্ছেন। এতে গঙ্গাচড়া উপজলার ছয়টি ইউনিয়নের ৩০টি গ্রাম দুই থেকে তিন ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে।

গঙ্গাচড়ার ল²ীটারি ইউনিয়নের পশ্চিম বাগেরহাট এলাকায় কয়েক বাড়িঘর ডুবে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাস্তাঘাট ও জমির ফসল। দুর্ভোগে পড়েছেন প্রায় ২০ হাজার মানুষ। এদিকে কোলকোন্দ ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিনবিনিয়াচরের পশ্চিমপাড়ায় ডান তীররক্ষা বেড়িবাঁধে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভেঙে যাচ্ছে বাঁধ, বাঁশঝাড়, জমি ও বসতবাড়ি। গত তিন দিনে ২৫টি বাড়ি ও ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের তীব্রতা এত বেশি যে, লোকজন বাড়িঘর নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ারও সময় পাচ্ছে না। ল²ীটারি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদি জানান, বেড়িবাঁধে ভাঙনের ফলে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে হু হু করে বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করছে। এলাকায় কয়েকশ বাড়িঘর তলিয়ে গেছে। রাস্তা ভেঙে গেছে লক্ষ্মীটারী ইউনিয় লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের পশ্চিম ইচলি গ্রামসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম ক্ষতির মুখে। তিস্তার পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় এসব এলাকার বাসিন্দারা সমস্যায় পড়েছেন। তাদেরকে উঁচু স্থানে যেতে বলা হয়েছে। এদিকে কোলকোন্দ ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিনবিনিয়াচরের পশ্চিমপাড়ায় ডান তীররক্ষা বেড়িবাঁধে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভেঙে যাচ্ছে বাঁধ, বাঁশঝাড়, জমি ও বসতবাড়ি। গত তিন দিনে ২৫টি বাড়ি ও ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের তীব্রতা এত বেশি যে, লোকজন বাড়িঘর নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ারও সময় পাচ্ছে না।

লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদি জানান, বেড়িবাঁধে ভাঙনের ফলে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে হু হু করে বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করছে। এলাকায় কয়েকশ বাড়িঘর তলিয়ে গেছে। রাস্তা ভেঙে গেছে লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডের। ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তলিয়ে যাচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম। কাউনিয়া উপজেলার টেপামধুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদুল ইসলাম বলেন, আমার ইউনিয়নের ৬টি মৌজা খুব ঝুঁকিতে। ভারি বৃষ্টি ও উজানের ঢলে নদীর পানি বৃদ্ধি পেলে ছয় মৌজার প্রায় সব বাড়িতেই পানি ঢুকে পড়ে। দেখা দেয় নদীভাঙন। পানি উন্নয়ন বোর্ডের সর্তকবার্তায় এই অবস্থায় পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন। বালাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনসার আলী বলেন, গত কয়েকদিন ধরে উজানে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে, এতে করে নদীর তীরবর্তী গ্রামগুলোতে বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে তিস্তা খনন না হওয়ায় পলি জমে নদীর মধ্য ভাগ উঁচু হয়ে গেছে। ফলে উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানিতে বন্যা হয়ে বতসবাড়ি ও আবাদি জমিগুলো তলিয়ে যায়। বিভিন্ন ফসলের ক্ষেতের ক্ষতি হয়। তীরবর্তী গ্রামগুলোতে ভাঙন দেখা দেয়।পানি গত পাঁচ দিন ধরে বাড়ছে। গত বুধবার থেকে তিস্তা নদীর পানি গঙ্গাচড়া পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। এতে উপজলার ছয়টি ইউনিয়নের ৩০টি গ্রাম দুই থেকে তিন ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। এদিকে রংপুর আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ মোস্তাফিজার রহমান জানান, শুক্রবার বিকেল ৫টা আগের ২৪ ঘন্টায় রংপুর অঞ্চলে ১শ২০ দশমিক ৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ ওবায়দুর রহমান জানান কয়েক দিনের বন্যায় ফসলের তেমন ক্ষতি হয়নি । তিস্তার চড়ে বাদাম আগেই উঠেছে । তিনি আরও বলেন রোবো ধান আবাদ আগেই উঠেছে । পাউবো রংপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবিব বলেন, ‘ভাঙনকবলিত কোলকন্দ ইউনিয়নের বিনবিনিয়া চর ও ল²ীটারি উনিয়নের পশ্চিম ইচলি গ্রামসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম ক্ষতির মুখে। তিস্তার পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় এসব এলাকার বাসিন্দারা সমস্যায় পড়েছেন। ইতোমধ্যে তাদেরকে উঁচু স্থানে যেতে বলা হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘টেকসই মজবুত বাঁধ নির্মাণের প্রকল্প প্রস্তাব সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি সমীক্ষা করা হচ্ছে। সমীক্ষা প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে । আহসান হাবিব বলেন, রংপুরের গঙ্গাচড়ায় পানি বেড়ে যাওয়ায় নদীভাঙন দেখা দিয়েছে। বেড়িবাঁধের বাইরে ভাঙনের খবর পাওয়া গেলে জিওব্যাগ দেওয়া হচ্ছে। তবে তিস্তার পানি বিপৎসীমার ওপর প্রবাহিত হওয়া ফসলি জমি, ঘরবাড়ি ও রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে । রংপুর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, বন্যায় যাতে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে ব্যাপারে সরকারিভাবে সব ধরনের আগাম প্রস্তুতি নেয়া আছে। বন্যা আশ্রয়ণ কেন্দ্রসহ সব ধরনের প্রস্তুতি আমাদের আছে। বন্যা মোকাবিলায় জনবল, শুকনো খাবার, চাল, টাকা সবই মজুত আছে। যখন যা প্রয়োজন হবে, তা দিতে পারব আমরা। ইতিমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের বন্যার আশঙ্কা আছে এমন সংলগ্ন নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষদের সব সময় খোঁজখবর নেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

Previous articleঅস্ত্র দেখিয়ে ছাত্রীদের ধর্ষণকারী ‘সিরিয়াল রেপিস্ট’ শামীম গ্রেফতার
Next articleটাঙ্গাইলে নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেলো লৌহজং নদীর বেড়াডোমা সেতু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।